রেমাল আসছে, পায়রা ও মোংলায় ৭ নম্বর বিপদ সংকেত

আশংকাই সত্যি হল। বঙ্গোপসাগরে সৃষ্টি হওয়া গভীর নিম্নচাপটি ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হয়েছে। আজ শনিবার (২৫ মে) সন্ধ্যা ছয়টার দিকে এটি ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হয়। আগেই এ ঝড়ের নামকরণ করা হয়েছিল-রেমাল।

রেমাল ক্রমেই এগিয়ে আসতে থাকায় পায়রা ও মোংলা সমুদ্র বন্দরকে ৭ নম্বর বিপৎসংকেত দেখাতে বলেছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। এ ছাড়া চট্টগ্রাম ও কক্সবাজারকে ৬ নম্বর  বিপদ সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। উত্তর বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় মাছ ধরা সব নৌকা ও ট্রলারকে দ্রুত নিরাপদ আশ্রয়কেন্দ্রে চলে আসতে বলেছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

ঘূর্ণিঝড়টি সন্ধ্যা ছয়টায় পায়রা সমুদ্র বন্দর থেকে ৩৬৫ কিলোমিটার, মোংলা থেকে ৪০৫ কিলোমিটার, কক্সবাজার থেকে ৪০০ কিলোমিটার এবং চট্টগ্রাম সমুদ্র বন্দর থেকে ৪৫৫ কিলোমিটার দূরে ছিল। রেমাল ক্যাটাগরি-১ শক্তিমাত্রার ঝড় হিসাবে রোববার রাত থেকে সোমবার সকালের মধ্যে উপকূল অতিক্রম করতে পারে।

এদিকে ঘূর্ণিঝড় সৃষ্টি হওয়ার পর আজ সন্ধ্যা থেকেই ভোলা, পিরোজপুরসহ উপকূলীয় বিভিন্ন স্থানে বৃষ্টি শুরু হয়েছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, বাংলাদেশের উপকূলীয় অঞ্চল ও ভারতের ওপর দিয়ে ঘূর্ণিঝড়টি বয়ে যাবে। এ সময় বাতাসের গতি ১১০ থেকে ১২০ কিলোমিটার বেগে বয়ে যাবে, যা প্রচণ্ড দমকা ও ঝড়ো হওয়া হিসাবে ১২০ থেকে ১৩০ মিলোমিটার বেগে বয়ে যেতে পারে। ভারি থেকে অতিভারি বৃষ্টিপাত হতে পারে। উপকূলীয় এলাকায় ঘণ্টায় ৩০০ থেকে ৩৫০ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হতে পারে। চট্টগ্রাম ও বরিশালে বেশি বৃষ্টিপাত হবে। ফলে চট্টগ্রামে ভূমিধসের আশঙ্কা রয়েছে। ঘূর্ণিঝড়টি ভারতের পশ্চিমবঙ্গের দীঘা থেকে বাংলাদেশের পটুয়াখালীর মাঝামাঝি যে কোনো জায়গা দিয়ে উপকূল অতিক্রম করবে। পটুয়াখালী ছাড়াও সর্বোচ্চ ঝুঁকিতে রয়েছে সাতক্ষীরা, খুলনা ও বাগেরহাট।

এদিকে শনিবার সচিবালয়ে সম্ভাব্য ঘূর্ণিঝড় পরিস্থিতি মোকাবিলার প্রস্তুতি সভা শেষে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী মহিববুর রহমান সাংবাদিকদের জানান, ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে শনিবার রাত থেকেই মহাবিপদ (১০ নম্বর) সংকেত দেখানো হতে পারে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তরসহ পৃথিবীর অন্যান্য দেশের সঙ্গে সমন্বয় রেখে আমরা বুঝতে পেরেছি ঘূর্ণিঝড়টি আসন্ন। রাত ১২টা-১টা নাগাদ ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত জারি হতে পারে। এমন একটা সম্ভাবনা রয়েছে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, পূর্বাভাস পর্যালোচনায় মনে হচ্ছে রোববার সন্ধ্যা নাগাদ ঘূর্ণিঝড়টি মূল আঘাত হানবে। সম্ভাব্য ঘূর্ণিঝড়ের প্রস্তুতি হিসাবে এরই মধ্যে ৪ হাজার আশ্রয়কেন্দ্র প্রস্তুত রাখা হয়েছে। আমাদের প্রতিটি জেলার গুদামে পর্যাপ্ত শুকনো খাবারসহ যেসব জিনিস দরকার হবে, এগুলো মজুত রেখেছি। অতিরিক্ত প্রয়োজন হলে যেন ঢাকা থেকে সরবরাহ করা যায়, সেই প্রস্তুতিও রাখা হয়েছে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমাদের ৮০ হাজার স্বেচ্ছাসেবক প্রস্তুত রেখেছি। ঘূর্ণিঝড়টিতে সাতক্ষীরা থেকে কক্সবাজার পর্যন্ত কমবেশি সব জেলা আক্রান্ত হতে পারে। ৭ থেকে ১০ ফুট উচ্চতার জলোচ্ছ্বাস হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। প্রচুর বৃষ্টিপাতের আশঙ্কা রয়েছে। চট্টগ্রামের পাহাড়ি এলাকায় ভূমিধস হতে পারে। সেজন্য সেনাবাহিনীকে প্রস্তুত রাখা হয়েছে। উপকূলীয় এলাকায় কোস্ট গার্ড, রেডক্রস সদস্যরা প্রস্তুত রয়েছেন। রোববার সন্ধ্যা নাগাদ ঘূর্ণিঝড়টি উপকূলে আঘাত হানতে পারে বলেও জানান প্রতিমন্ত্রী।

এর আগে আবহাওয়াবিদরা জানান, ঘূর্ণিঝড়ে রূপান্তরিত হলে রেমালের প্রভাব বাংলাদেশে পড়তে শুরু করবে রোববার বেলা ৩টা থেকে। সেক্ষেত্রে রোববার সন্ধ্যা থেকে মধ্যরাতের মধ্যে বাংলাদেশের উপকূল অতিক্রম করতে পারে ঘূর্ণিঝড়টি। রেমাল একটি আরবি শব্দ। যার অর্থ ‘বালি’।

আবহাওয়াবিদরা বলছেন, বর্তমানে যে অবস্থান দেখাচ্ছে তাতে ঘূর্ণিঝড়টি বাংলাদেশের ওপর দিয়েই অতিক্রম করার আশঙ্কা আছে। তবে বাংলাদেশের সুন্দরবন এলাকা এবং বরিশাল, পটুয়াখালী, বরগুনা ও ভোলা জেলায় রেমালের আঘাত হানার আশঙ্কা বেশি বলে জানান আবহাওয়াবিদ ওমর ফারুক।

তিনি জানান, প্রবল ঘূর্ণিঝড় হলে ৩ থেকে ৭ ফুট উচ্চতার জলোচ্ছ্বাস হতে পারে। এদিকে সাগরে নিম্নচাপ থাকলেও সারা দেশে মৃদু ও মাঝারি ধরনের তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। শুক্রবার থেকে শুরু হওয়া তাপপ্রবাহ শনিবারও অব্যাহত ছিল। রাজধানী ঢাকাসহ রাজশাহী, রংপুর, ময়মনসিংহ, খুলনা, বরিশাল, চট্টগ্রাম, সিলেট ও কুড়িগ্রামের ওপর দিয়ে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের তাপপ্রবাহ বয়ে যায়। প্রচণ্ড গরমে জনজীবনে হাঁসফাঁস অবস্থা। তবে রেমালের প্রভাবে সারা দেশে বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। ঘূর্ণিঝড়ের আশঙ্কায় উপকূলীয় অঞ্চলে যাত্রীবাহী নৌযান চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে বিআইডব্লিওটিএ।

  
    

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.