ভালোবাসার ফাল্গুন হোক প্রকৃতির সাজে

0
114

বসন্ত সাথে ভালোবাসা দিবসও। তাই একই সাথে দুই সাজ সাজতে হবে। আর সে জন্য নিজেকে ভালোবাসার ফাল্গুন দিনে রাঙিয়ে নিন প্রকৃতির রঙে। প্রকৃতির এই উৎসবে নিজেকেও সাজিয়ে নিতে পারেন স্নিগ্ধ সাজে। যেহেতু গরম পড়তে শুরু করেছে, সাজ খুব বেশি জমকালো হওয়ার প্রয়োজন নেই। বসন্ত ও প্রকৃতির স্নিগ্ধতা গায়ে মেখেই সেজে নিন এদিন। চলুন কীভাবে সাজে সিন্ধতা রাখতে পারেন জেনে নেয়া যাক-

ভ্যালেন্টাইন্স ও ফাল্গুন পোশাক

প্রকৃতির এই রঙের ছড়াছড়িতে আপনার সাজপোশাকেও একটু রঙের ছোঁয়া রাখতে পারেন। ভ্যালেন্টাইন্স ও বসন্তে তরুণীকে শাড়িতেই বেশি ভালো লাগে। তাই এই দিন পরতে পারেন বাহারি ব্লাউজের সঙ্গে একরঙা, বর্ণিল পাড়ের শাড়ি। শাড়ির রং হিসেবে বেছে নিতে পারেন হালকা হলুদ জমিন ও কমলা পাড়ের শাড়ি। এ ছাড়া পরতে পারেন সবুজ জমিন হলুদ পাড়ের শাড়ি। আর এই ধরনের শাড়িরসঙ্গে পরতে পারেন লাল বা কমলা রঙের ব্লাউজ।

ঘটি হাতা, খাটো হাতার ব্লাউজ এই দিন বেশ মানানসই। আপনার পছন্দমতো ব্লাউজে ছোট ঘণ্টা, কলকাও ব্যবহার করতে পারেন। ব্লাউজের গলাটা একটু বড় পরতে পারেন কম বয়সী তরুণীরা।

ভ্যালেন্টাইন্স ও ফাল্গুনের মেকাপ

মেকাপের ক্ষেত্রে এই দিনের আবহাওয়ার দিকে একটু খেয়াল রাখুন। ফাল্গুন মানেই হালকা শীতের সাথে মিষ্টি রোদ। তাই এই দিনের মেকাপ খুব বেশি গাঢ় না করে একটু হালকা রাখাই ভালো। মেকাপের শুরুতে মুখটা ভালো করে পরিষ্কার করে সানস্ক্রিন ক্রিম লাগিয়ে ১০ মিনিট অপেক্ষা করুন। এর পর আপনার মুখে লাগিয়ে নিন একটা ম্যাট ফাউন্ডেশন। এরপর এর ওপর বুলিয়ে নিন হালকা ফেইস পাউডার। আপনার ত্বকের সাথে মিল রেখে শেড পছন্দ করুন।

এছাড়া চোখে ব্যবহার করতে পারেন হলদে, গোলাপি, লাল বা কমলাভাব অথবা পিচ কালারের আইশ্যাডো। চোখে আইশ্যাডো অ্যাপ্লাই করার পরে একটু গাঢ় করে কাজল, আইলানার ও মাশকারা লাগিয়ে নিন। সবশেষে লাগিয়ে নিন লিপস্টিক। লিপস্টিকের ক্ষেত্রে পিচ কালারই বেশি ভালো লাগবে। এরপর কপালে পরতে পারেন বড় লাল টিপ। আর আপনি যদি টিপে একটু ভিন্নতা চান, তাহলে ব্যবহার করতে পারেন পেইন্টিং ধাচের টিপ।

সাজে বাহারি ফুলের গহনা

বসন্ত মানেই প্রকৃতিজুড়েই রঙিন ফুলের সমাহার সাথে ভালোবাসা দিবস। আর ভালোবাসা মানেই ফুলের শুভ্রতা। তাই এই বসন্ত বরণে বেছে নিতে পারেন বাহারি ফুলের গহনা। এই দুটি উৎসবে ফুলের গহনাই বেশ মানানসই। ফুলের গহনা আপনার সৌন্দর্য দ্বিগুণ বাড়িয়ে তুলবে। তাই আপনার গহনা হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন ফুলের গহনা। তবে ফাল্গুনে গাঁদা ফুলের গহনাই বেশি ভালো লাগবে। আপনি চাইলে খোঁপায় গুজে নিতে পারেন কিছু ফুল কিংবা মাথায় পরতে পারেন বাহারি ফুলের কোনো ব্যান্ড। হাতভর্তি রেশমি কাচের চুড়ি এই সাজে ভালো মানাবে। আপনি চাইলে কয়েক রঙের কাচের চুড়ি মিলিয়েও পরতে পারেন। এ ছাড়া পরতে পারেন মেটাল, পুতি কিংবা কড়ির গহনা।

হেয়ার স্টাইল

চুলটা খোলাই ভালো লাগবে এমন দিনে। আর যদি কেউ চুল খোলা রাখাতে না চান, সেক্ষেত্রে হালকা করে চুলটা বেঁধে নিন। তবে এই সময়ে চুলে মেসি ভাবটা অনেক ভালো লাগবে। ফাল্গুনের পোশাকের তালিকায় আপনি যদি পশ্চিমা কোনো পোশাককে বেছে নেন তাহলে, সামনের চুলটা মেসি ভাব রাখুন আর পেছনের চুলগুলো হালকা কার্ল করে ছেড়ে দিন। আর বসন্ত ও ভালোবাসার সাজে ফুলের ভূমিকা অনন্য। তাই চুলগুলোকে যদি কার্ল করে ছেড়ে দিতে চান তাহলে, চুলের মধ্যে ছোট ছোট ফুল এলোমেলো করে গুজে নিতে পারেন। এ ছাড়া খোলা চুলে পরতে পারেন ফুলের কোনো ব্যান্ড। খোঁপায় গুজে দিতে পারেন কয়েকটা ফুল। আপনার চুল যদি বেশ বড় হয় সেক্ষেত্রে আপনি চাইলে চুলে বেনুনিও করে নিতে পারেন।

অর্থসূচক/আরএস