মিরনজিল্লা হরিজন কলোনিতে উচ্ছেদ স্থগিত থাকবে

রাজধানীর পুরান ঢাকায় আগা সাদেক লেনে মিরনজিল্লা হরিজন সিটি কলোনির বাসিন্দাদের উচ্ছেদ কার্যক্রম পরবর্তী আদেশ না দেওয়া পর্যন্ত স্থগিত রাখার আদেশ দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ। সেই সঙ্গে সর্বোচ্চ আদালত আগামী দুই মাসের মধ্যে হাইকোর্ট বিভাগকে এ সংক্রান্ত রিট নিষ্পত্তি করতে বলেছেন।

বৃহস্পতিবার প্রধান বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের নেতৃত্বাধীন পাঁচ সদস্যের আপিল বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

গত ১৩ জুন উচ্ছেদ কার্যক্রমের ওপর এক মাসের স্থিতাবস্থা জারি করে হাইকোর্টের আদেশ স্থগিত চেয়ে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের করা আবেদনের শুনানি নিয়ে আদালত এই সিদ্ধান্ত জানান। আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার সারা হোসেন ও ব্যারিস্টার অনিক আর হক। ডিএসসিসির পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মুরাদ রেজা।

শুনানি শেষে ব্যারিস্টার সারা হোসেন গণমাধ্যমকে বলেন, হরিজনরা এখানে শতাব্দিজুড়ে বসবাস করছে। তারা পরিচ্ছন্নতাকর্মী হিসেবে থাকেন, আমাদের পুরো শহরটা উনারা পরিষ্কার রাখেন। উনাদের একমাত্র দাবি যেখানে আছেন সেখানে থাকতে পারবেন। এক মাস আগে এখানে ১৬টি ঘর ভাঙা হয়েছে যখন উচ্ছেদ অভিযান চলে। একটি বাণিজ্যিক বাজার তৈরি করার জন্য যখন সিটি করপোরেশন থেকে লোকজন আসে, তখন উনারা প্রতিবাদ করেছিলেন। আমরা দেখেছি, হাইকোর্টের স্থিতাবস্থা থাকা সত্ত্বেও আবার অভিযান চালানোর প্রচেষ্টা হয়েছে গতকাল। এগুলো কোর্টের কাছে তুলে ধরা হয়েছে এবং কোর্ট বলেছেন, স্থিতাবস্থা থাকবে, অভিযান করা যাবে না এবং হাইকোর্ট আগামী দুই মাসের মধ্যে বিষয়টি নিষ্পত্তি করবেন।

প্রসঙ্গত, মিরনজিল্লা হরিজন সিটি কলোনি উচ্ছেদে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের নোটিশের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিম কোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় রিট আবেদন করেছিলেন তিনজন আইনজীবী আইনুন্নাহার সিদ্দিকা, মনোজ কুমার ভৌমিক ও উৎপল বিশ্বাস। সেই আবেদনের ওপর শুনানি নিয়ে হাইকোর্ট গত ১৩ জুন বিকল্প আবাসনের ব্যবস্থা না করে উচ্ছেদ না করার আদেশ দেন। ওই আদেশের পরে ডিএসসিসি আপিল বিভাগে লিভ টু আপিল করে। করপোরেশনের লিভ টু আপিল শুনানির জন্য সর্বোচ্চ আদালত আজকের তারিখ নির্ধারণ করেছিলেন।

হাইকোর্টের স্থিতাবস্থার মধ্যে আপিল বিভাগে লিভ টু আপিল শুনানির অপেক্ষায় থাকা সত্ত্বেও গত ৯ জুলাই ডিএসসিসি সেখানে উচ্ছেদ কার্যক্রম পরিচালনায় নতুন করে আদেশ দেয়।

অর্থসূচক/এএইচআর

  
    

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.