গত বছরে ৫১৩ শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা

অভিমান, প্রেমঘটিত কারণ, পড়াশোনার চাপ, পারিবারিক দ্বন্দ্ব ও মানসিক সমস্যায় গত বছরে ৫১৩ জন শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছে। তাদের মধ্যে ৬০ শতাংশ নারী। দেশের ১০৫টি জাতীয়, স্থানীয় পত্রিকা এবং অনলাইন পোর্টাল থেকে শিক্ষার্থীদের আত্মহত্যার তথ্য সংকলিত করা হয়েছে।

আজ শনিবার (২৭ জানুয়ারি) বেসরকারি সংস্থা আঁচল ফাউন্ডেশন আয়োজিত এক ভার্চ্যুয়াল সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য প্রকাশ করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে সভাপতিত্ব করেন আঁচল ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি তানসেন রোজ। মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সংগঠনের গবেষণা ও বিশ্লেষণ বিভাগের টিম লিডার ফারজানা আক্তার।

সংবাদ সম্মেলনে আঁচল ফাউন্ডেশন জানায়, অভিমান ও প্রেমের সম্পর্কের মতো আবেগজনিত কারণে আত্মহত্যার হার বেশি। এ হার ৪৭ শতাংশ। ৫১৩ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে ৬৭ শতাংশের বয়স ১৩ থেকে ১৯ বছর। ঢাকা বিভাগে আত্মহত্যা করেছে ১৪৯ জন শিক্ষার্থী। গত বছর আত্মহত্যা করা ৫১৩ জনের মধ্যে স্কুল শিক্ষার্থী ২২৭ জন (মোট শিক্ষার্থীর ৪৪ শতাংশ), কলেজ শিক্ষার্থী ১৪০ জন (২৭ শতাংশ), বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ৯৮ জন (১৯ শতাংশ) এবং মাদ্রাসা শিক্ষার্থী রয়েছেন ৪৮ জন (৯ শতাংশের বেশি)। এর মধ্যে পুরুষ শিক্ষার্থী ২০৪ জন (প্রায় ৪০ শতাংশ) এবং নারী শিক্ষার্থী ৩০৯ জন (৬০ শতাংশের বেশি)। ২০২২ সালে আত্মহত্যা করেন স্কুল, মাদ্রাসা, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫৩২ জন শিক্ষার্থী।

আত্মহত্যার কারণ বিশ্লেষণ করে সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, গত বছর শিক্ষার্থীদের আত্মহত্যার পেছনে সবচেয়ে বড় কারণ ছিল অভিমান। অভিমান থেকে ১৬৫ জন বা ৩২ শতাংশের বেশি আত্মহত্যা করেন। প্রেমঘটিত কারণে আত্মহত্যা করেন প্রায় ১৫ শতাংশ। এ ছাড়া মানসিক সমস্যায় জর্জরিত হয়ে প্রায় ১০ শতাংশ, পারিবারিক কলহ থেকে ৬ শতাংশ, পারিবারিক নির্যাতনের শিকার হয়ে এক শতাংশের বেশি, পড়াশোনার চাপের সম্মুখীন হয়ে প্রায় ৫ শতাংশ, পরীক্ষায় অকৃতকার্য হয়ে প্রায় ৪ শতাংশ, পাবলিক পরীক্ষায় কাঙ্ক্ষিত ফলাফল অর্জনে ব্যর্থ হয়ে প্রায় ২ শতাংশ, যৌন হয়রানির শিকার হয়ে প্রায় ৩ শতাংশ এবং অপমান বোধ করে আত্মহত্যা করেন প্রায় এক শতাংশ শিক্ষার্থী।

এতে আরও জানানো হয়, আত্মহত্যা করেছেন এমন ৯৮ জন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মধ্যে ১৯ জন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের। সবচেয়ে বেশি সংখ্যক ৫ জন করে শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে। এ ছাড়া জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ২৬ জন, কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ১ জন, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৪ জন, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ৭ জন, মেডিকেল কলেজের ৬ জন, নার্সিং ইনস্টিটিউটের ৫ জন, পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের ২ জন, প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩ জন, এবং অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের ১৫ জন শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছেন।

অর্থসূচক/এএইচআর

  
    

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.