ফ্লাইট মেন্যুতে আরও ভেগান রেসিপি যুক্ত করছে এমিরেটস

বিশ্বব্যাপী ফ্লাইট গুলোতে নিরামিষ খাবারের চাহিদা বৃদ্ধির পরিপ্রেক্ষিতে চলতি বছরে নিজস্ব ফ্লাইট এবং লাউঞ্জ সমূহের মেন্যুতে বেশ কিছু নতুন ভেগান ডিশ যুক্ত করতে যাচ্ছে এমিরেটস এয়ারলাইন। গত এক বছরে এমিরেটস ফ্লাইটে ভেগান ডিশের চাহিদা ৪০ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। বর্তমানে এয়ারলাইনটি উদ্ভিদ ভিত্তিক তিন শতাধীক রেসিপি অফার করছে।

এমিরেটস বেশ কিছু নতুন ভেগান মেইন কোর্স এবং স্ন্যাকস অফার করতে যাচ্ছে। ভেগান স্ন্যাকসের মধ্যে থাকবে ফ্রুটস মাফিন এবং ভেগান পিৎজা। এছাড়াও পাওয়া যাবে মুখরোচক চকলেট পীকান কেক, পিস্টাসিও রেসবেরি এবং রেসবেরি টংকা কেক।

২০২৩ সালে এমিরেটস তার বিশ্বব্যাপী নেটওয়ার্কে ৪ লক্ষ ৫০ হাজারের অধিক উদ্ভিত ভিত্তিক মীল পরিবেশন করেছে, যার সংখ্যা ২০২২ সালে ছিল ২৮০,০০০।

ভেগান মীলের জন্য যেকোন শ্রেণীর যাত্রীদের ফ্লাইটের ২৪ ঘন্টা পূর্বে বুক করতে হয়। তবে, প্রথম শ্রেণীতে এবং লাউঞ্জে সরাসরি অর্ডার করেও ভেগান মীল পাওয়া সম্ভব।

ভেগান মীল তৈরির জন্য এমিরেটস সারা বিশ্বের বিভিন্ন স্থান থেকে উন্নত মানের উপকরণ সংগ্রহ করে থাকে। উদাহরণ স্বরূপ, ক্যালিফোর্নিয়ার বীয়ন্ড মিট থেকে উদ্ভিদ ভিত্তিক প্রোটিন সংগ্রহ করা হয়। সয়াবিন প্রোটিন নেয়া হয় সিঙ্গাপুর এবং দুবাই ভিত্তিক আর্লিন থেকে। জাপান থেকে নেয়া হয় টফু, ফ্রান্সের লিনলাট থেকে সংগৃহীত হয় ডার্ক ভেগান চকলেট, জার্মানির মেইস্টার মার্কেন থেকে আসে ভেগান মার্গারিন, থাইল্যান্ডের পান্তাই সরবরাহ করে ভেগান কারি পেস্ট, ইটালি সরবরাহ করে কৈটা এমন্ড। সংযুক্ত আরব আমীরাতের বিখ্যাত বুস্টানিকা থেকে সংগ্রহ করা হয় তাজা কেইল এবং লেটুস।

১৯৯০ সাল থেকে এমিরেটস তাদের ফ্লাইটে ভেগান মীল সরবরাহ করে আসছে। বিগত বছরগুলোতে এই মীলের চাহিদা সারা বিশ্বেই ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং যুক্তরাষ্ট্র, অস্ট্রেলিয়া, নির্দিষ্ট ইউরোপীয় ও এশীয় রুটে এগুলোর জনপ্রিয়তা অপেক্ষাকৃত দ্রুত বৃদ্ধি পাচ্ছে।

 

অর্থসূচক/ এইচএআই

  
    

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.