দক্ষিণ কোরিয়ার সামরিক প্যারেডে মার্কিন সেনা

উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে ক্রমবর্ধমান উত্তেজনার পরিপ্রেক্ষিতে নিজেদের সামরিক শক্তি দেখালো দক্ষিণ কোরিয়া। সিওল জানিয়েছে, উত্তর কোরিয়া যদি কোনোভাবে পরমাণু অস্ত্র ব্যবহার করে, তাহলে তার যোগ্য জবাব দেওয়া হবে।

সাধারণত এই ধরনের সামরিক প্যারেড করে না দক্ষিণ কোরিয়া। তবে মঙ্গলবার দেশের সেনাবাহিনীর ৭৫তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে এই প্যারেড হয়েছে। চার হাজার সেনা সিওলে মার্চ করেছেন। প্যারেডে কামান, ড্রোন, ব্যালেস্টিক মিসাইলের মতো অস্ত্রসম্ভার দেখানো হয়েছে।

উত্তর কোরিয়া যখন তাদের পরমাণু অস্ত্রসম্ভার বাড়াচ্ছে ও রাশিয়ার সঙ্গে আরো ঘনিষ্ঠ হচ্ছে, সেসময় এই প্যারেড বাড়তি গুরুত্ব পাচ্ছে। ২০১৩ সালের পর আবার দক্ষিণ কোরিয়ায় এরকম সামরিক প্যারেড হলো।

এই প্যারেডে তিনশ জন মার্কিন সেনাও অংশ নিয়েছিল। দক্ষিণ কোরিয়ার সঙ্গে আমেরিকার সম্পর্ক কতটা গভীর ও দায়বদ্ধ তা দেখানোর জন্যই প্যারেডে মার্কিন সেনা অংশ নেয় বলে জানিয়েছেন দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট ইয়ুন সুক ইয়েওল।

তিনি বলেছেন, উত্তর করিয়া যদি পরমাণু অস্ত্র ব্যবহারের চেষ্টা করে, তাহলে দক্ষিণ কোরিয়া ও আমেরিকা মিলে প্রতিক্রিয়া জানাবে, যার ফলে উত্তর কোরিয়ার শাসকদের পতন হবে।

পিয়ংইয়ং এই বছর একের পর এক মিসাইল পরীক্ষা করেছে ও করছে। তাদের দাবি, পশ্চিমা দেশের কাছ থেকে বিপদের আশঙ্কার পরিপ্রেক্ষিতে তারা এই পরীক্ষা করছে। সম্প্রতি উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন রাশিয়া গিয়ে প্রেসিডেন্ট পুটিনের সঙ্গে বৈঠক করেছেন। তিনি রাশিয়ার কাছ থেকে উন্নত সামরিক প্রযুক্তি চেয়েছেন। সূত্র: ডিডাব্লিউ

অর্থসূচক/এএইচআর

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.