উত্তেজনার মধ্যে কানাডার নাগরিকের সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করল ভারত

হরদীপ সিং নিজ্জার হত্যা মামলাকে ঘিরে জটিল হচ্ছে ভারত ও কানাডার সম্পর্ক৷ ভিসা নিষেধাজ্ঞা, কূটনীতিক ফেরত আনাসহ সব দিক দিয়েই কানাডাকে চাপে রাখার চেষ্টা করছে ভারত৷

তবে কানাডার দাবি, পর্যাপ্ত তথ্যপ্রমাণ নিয়েই তারা ভারতের বিরুদ্ধে অভিযোগ এনেছে৷ অবশ্য হত্যাকাণ্ডে ভারত কীভাবে জড়িত তা এখনো স্পষ্ট করেনি৷

হরদীপ সিং নিজ্জার ভারতে খালিস্তান প্রতিষ্ঠার পক্ষে কাজ করছেন এমন অভিযোগ তুলে ২০২০ সালে তাকে ‘সন্ত্রাসবাদী’ আখ্যা দেয় ভারত৷ খালিস্তান আন্দোলনের মূল দাবি, শিখদের জন্য স্বাধীন আবাসভূমি প্রতিষ্ঠা করতে হবে৷ ভারতের বাইরে সবচেয়ে বেশি শিখ ধর্মাবলম্বীদের বাস কানাডাতেই৷ প্রতি বছর অনেক ভারতীয় শিক্ষার্থীও উচ্চশিক্ষা লাভের জন্য কানাডায় যান৷ ভারত-কানাডার মধ্যে চলমান উত্তেজনা ভারতে বসবাসরত শিখ, কানাডায় বসবাসরত শিখ ছাড়া অনেক ভারতীয় এবং কানাডায় যেতে ইচ্ছুক ভারতীয়দের চিন্তায় ফেলেছে৷

ইতিমধ্যে ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কানাডায় বসবাসরত ভারতীয়দের সতর্ক করে বলেছে, কানাডায় সম্প্রতি ভারতবিরোধী কর্মকাণ্ড বাড়ছে, এই পরিস্থিতিতে সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে৷

এদিকে কানাডার নাগরিক আরেক শিখ নেতা ও আইনজীবী গুরপটওয়ান্ত সিং পান্নুর ভারতে থাকা সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করেছে ভারত সরকার৷ পান্নু সম্প্রতি এক ভিডিওতে কানাডায় বসবাসরত হিন্দুদের ভারতে ফিরে যেতে বলেন৷ তার মতে, ভারতীয়রা চরম মনোভাব নিয়ে ভারত কর্তৃপক্ষের সমর্থন করছেন৷ পরে ভারতের এক নিউজ চ্যানেলে তার একটি সাক্ষাৎকার সম্প্রচারিত হয়, সেখানেও তিনি একই বক্তব্য রাখেন৷

সাক্ষাৎকারটি প্রচারিত হবার পর ভারত সরকারের পক্ষ থেকে চ্যানেলটিকে সতর্ক করা হয় ও ভারতের গোয়েন্দা সংস্থা এনআইএ চণ্ডীগড়ে পান্নুর একটি বাড়ি বাজেয়াপ্ত করে৷

বর্তমানে নিউ ইয়র্কে অনুষ্ঠিত হচ্ছে জাতিসংঘের সাধারণ সম্মেলন৷ মঙ্গলবার সেখানে বক্তব্য রাখার কথা দুই দেশের প্রতিনিধিদের৷ সেখানেও উত্থাপিত হতে পারে বিষয়টি৷ কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোর ভারতের বিরুদ্ধে অভিযোগের সপক্ষে আন্তর্জাতিক মহলে এখনো সেভাবে সাড়া মেলেনি৷ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্যসহ পশ্চিমা দেশগুলি জানিয়েছে, তারা এ বিষয়ে উদ্বিগ্ন, ভারতকে সরাসরি দায়ী করে কেউই কিছু বলেনি৷ সূত্র: ডিডাব্লিউ, রয়টার্স, এএফপি, এপি

অর্থসূচক/এএইচআর

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.