যুক্তরাজ্যে নিষিদ্ধ হতে পারে সিগারেট

যুক্তরাজ্যে সিগারেট নিষিদ্ধের কথা চলছে। যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাক পরবর্তী প্রজন্মকে সিগারেট থেকে দূরে রাখতেই মূলত এমন পদক্ষেপের পরিকল্পনা করছেন।

ব্রিটিশ সরকারের বিভিন্ন সূত্রের বরাত দিয়ে শুক্রবার ব্রিটিশ গণমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ানের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে।

গত বছর নিউজিল্যান্ড ধূমপান-বিরোধী নতুন আইন ঘোষণা করেছে। সেখানে ২০০৯ সালের ১ জানুয়ারি বা তার পরে জন্মগ্রহণকারী যে কারো কাছে তামাক বিক্রি নিষিদ্ধ করা হয়েছে। ব্রিটিশ সরকার অনুরূপ আইন তৈরি করার কথা ভাবছে।

ধূমপানের হার কমাতে ইতোমধ্যেই বিভিন্ন পদক্ষেপও নেওয়া হয়েছে। বিনামূল্যে ভ্যাপ কিট বিতরণ এবং গর্ভবতী নারীদের ধূমপান থেকে বিরত রাখতে ভাউচার স্কিম দেওয়াসহ নানা পদক্ষেপ নেওয়া হবে বলে জানানো হয়েছে।

ব্রিটিশ সরকারের এক মুখপাত্র বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেন, আমরা চাই আরও বেশি মানুষ ধূমপান ছেড়ে দিক। ২০৩০ সালের মধ্যে ধূমপানমুক্ত দেশ হওয়ার স্বপ্ন দেখছে যুক্তরাজ্য।

দ্য গার্ডিয়ানের প্রতিবেদনের বিষয়ে ওই মুখপাত্র কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি। ব্রিটেনে আগামী বছর জাতীয় নির্বাচন হতে পারে এবং বিবেচনাধীন এসব নীতিগুলো নির্বাচনের আগে ঋষি সুনাকের দলের নতুন ভোক্তা-কেন্দ্রিক উদ্যোগের অংশ বলেও উল্লেখ করা হয়েছে।

গত মে মাসে খুচরা বিক্রেতারা শিশুদের হাতে বিনামূল্যে ই-সিগারেট দিলে তা কঠোর হাতে দমন করা হবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছিলো ব্রিটিশ সরকার।

এছাড়া গত জুলাই মাসে পরিবেশগত ও স্বাস্থ্য উভয় ঝুঁকি বিবেচনায় নিয়ে ২০২৪ সালের মধ্যে একক-ব্যবহারযোগ্য ভ্যাপ বিক্রি নিষিদ্ধ করার জন্য সরকারেরর প্রতি আহ্বান জানায় ইংল্যান্ড এবং ওয়েলসের বিভিন্ন কাউন্সিল।

 

অর্থসূচক/ এইচএআই

 

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.