গ্রাহককে ৬ মাস পর পর লেনেদন বিবরণী পাঠাতে কঠোর নির্দেশ

জাল-জালিয়াতি রোধে ৬ মাস পর পর গ্রাহককে লেনদেন বিবরণী (Bank Statement) ও স্থিতি নিশ্চিতকরণ সার্টিফিকেট পাঠাতে ব্যাংকগুলোকে ফের নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। হিসাবের বিবরণী ও স্থিতি সার্টিফিকেট ই-মেইল, ডাক অথবা কুরিয়ারে পাঠাতে হবে। পাশাপাশি গ্রাহকের মোবাইল ফোনে এসএমএস পাঠিয়ে তা জানিয়ে দিতে হবে।

আজ মঙ্গলবার (৭ জুন) বাংলাদেশ ব্যাংকের ব্যাংকিং প্রবিধি ও নীতি বিভাগ এ সংক্রান্ত একটি নির্দেশনা জারি করেছে।

নতুন নির্দেশনা মতে, হিসাবের বিবরণী ই-মেইল, ডাক ও কুরিয়ারে পাঠাবে ব্যাংক। আর গ্রাহকের হিসাবে লেনদেনের তথ্য তাৎক্ষণিকভাবে মোবাইল বার্তা দিয়ে জানাতে হবে। ব্যাংকগুলোকে এ সেবার জন্য চার্জ না নিতে বলেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশনায় বলা হয়েছে, ব্যাংকের আমানত ও ঋণ হিসাবধারী প্রত্যেক গ্রাহককে অর্ধ-বার্ষিক ও বার্ষিক ভিত্তিতে অর্থাৎ বছরে দুবার ‘লেনদেন বিবরণী’ ও ‘স্থিতি নিশ্চিতকরণ সনদ’ ই-মেইল/ডাক/কুরিয়ার যোগে আবশ্যিকভাবে প্রেরণের ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। এতদ্ব্যতীত কোনো ধরনের চার্জ আদায় ব্যতিরেকে এসএমএসের মাধ্যমে ‘লেনদেন বিবরণী’ ও ‘স্থিতি নিশ্চিতকরণ সনদ’ প্রেরণের বিষয়টি গ্রাহককে অবহিত করতে হবে। তবে গ্রাহক সশরীরে ব্যাংক সংশ্লিষ্ট শাখায় গমনপূর্বক উক্ত বিবরণী/সনদ সংগ্রহ করতে পারবেন। উভয়ক্ষেত্রে কোনোরূপ চার্জ বা ফি আদায় করা যাবে না।

নির্দেশনায় আরও বলা হয়েছে, হিসাব খোলার ফরমে গ্রাহক কর্তৃক প্রদত্ত মেইলিং ঠিকানা ও মোবাইল নম্বরের সঠিকতা যাচাই করতে হবে এবং ন্যূনতম বার্ষিক ভিত্তিতে তা হালনাগাদ করতে হবে। হিসাব সম্পর্কিত প্রতিটি লেনদেন তাৎক্ষণিকভাবে গ্রাহককে এসএমএসের মাধ্যমে অবহিতকরণের ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। ব্যাংকের নিজস্ব ইন্টারনেট ব্যাংকিং এবং মোবাইল অ্যাপসের মাধ্যমে গ্রাহককে তথ্য ও সেবা প্রদান করা যাবে। তবে তথ্য সরবরাহের ক্ষেত্রে ব্যাংকের নিজস্ব ইন্টারনেট ব্যাংকিং এবং মোবাইল অ্যাপস ব্যতীত সোশ্যাল মিডিয়াসহ অন্য কোনো মাধ্যম ব্যবহার হতে বিরত থাকতে হবে। তাছাড়া গ্রাহককে প্রেরিত ‘লেনদেন বিবরণী’ ও ‘স্থিতি নিশ্চিতকরণ সনদ’ এর অনুলিপি হার্ডকপির পরিবর্তে ইলেকট্রনিক পদ্ধতিতে সংরক্ষণ করা যাবে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশনায় বলা হয়েছে, অর্ধবার্ষিক ভিত্তিতে গ্রাহকের কাছে হিসাববিবরণী পাঠানোর বিষয়ে ২০০১ সালে নির্দেশ দেওয়া হয়। একই বিষয়ে ২০১৩ আবারও ব্যাংকগুলোকে নির্দেশ দেয় বাংলাদেশ ব্যাংক। এরপর ২০২১ সালেও একই ধরনের নির্দেশনা দেওয়া হয়। কিন্তু তা  সত্ত্বেও গ্রাহকের চাহিদা মোতাবেক “লেনদেন বিবরণী” ও “স্থিতি নিশ্চিতকরণ সনদ” গ্রাহককে প্রদান করা হচ্ছে না। এর প্রেক্ষিতে আজ পুনরায় ব্যাংকগুলোকে এই বিষয়ে নির্দেশ দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

 

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
মন্তব্য
Loading...