চট্টগ্রাম টেস্টে খেলবেন সাকিব

কদিন আগেই করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন সাকিব আল হাসান। এর ফলে তাকে ছাড়াই চট্টগ্রাম টেস্টে খেলার প্রস্তুতি নিচ্ছিল বাংলাদেশ। যদিও ১৩ মে তিনি কোভিড-১৯ পরীক্ষায় নেগেটিভ হয়েছেন। ১৩ মে চট্টগ্রামে দলের সঙ্গে যোগ দেন সাকিব। যদিও সেদিনই প্রথম টেস্টে সাকিবের খেলার সম্ভাবনা নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করেন বাংলাদেশ দলের প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গো। ১৪ মে সকালে দলের সঙ্গে অনুশীলন সারেন সাকিব।

অনুশীলনে নিজেকে খেলার মতো ফিট মনে করেছেন বাংলাদেশ দলের এই প্রাণভোমরা। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে মাঠে নামার আগের দিন মুমিনুল বলেন, ‘দেখে তো মনে হল ফিট আছেন। খেলবেন ইনশাআল্লাহ্‌। অনুশীলনে বেশ ভালোই দেখলাম। কোচ তো বলেই দিয়েছেন ফিট হলে খেলবেন। দেখে মনে হল উনি ফিট।’

চট্টগ্রাম টেস্টে সাকিবের খেলার বিষয়টি সম্পূর্ণ নির্ভর করছিল তার ফিটনেসের ওপর। তাই শনিবার তাকে খুব কাছ থেকে পর্যবেক্ষণ করেন দলের কোচিং স্টাফরা। আগের দিনই ডমিঙ্গো ইঙ্গিত দিয়েছিলেন, ফিটনেসে ‘পাশ’ না করলে এই টেস্টে খেলবেন না সাকিব।

১৩ মে ডমিঙ্গো বলেছিলেন, ‘নিশ্চিতভাবেই তার ফিটনেস পরীক্ষা করতে হবে। কোভিড থেকে সেরে উঠেছে মাত্র এবং খুব বেশি ক্রিকেট কিন্তু খেলেনি। সে অবশ্যই আমাদের জন্য বড় খেলোয়াড়, যে দলে ভারসাম্য নিয়ে আসে। তাকে আগামীকাল আমরা দেখব। দুই তিন-সপ্তাহেরও বেশি সময় হয়ে গেছে ও ব্যাটিং বা বোলিং কিছু করেনি। হঠাৎ করে এসে পাঁচ দিনের টেস্ট ম্যাচ খেলা কঠিন এবং পারিপার্শ্বিক অনেক কিছু চিন্তা করতে হবে। আমরা তাকে আগামীকাল পরীক্ষা করে দেখব।’

পরিবারের সঙ্গে সময় কাটাতে যুক্তরাষ্ট্রে থাকা সাকিব বাড়তি ছুটি নিয়েছিলেন ২ দিনের। সেই ছুটি শেষে গত ১০ মে দেশে ফিরে দলের সঙ্গে যোগ দেয়ার কথা ছিল তার। কিন্তু দেশে ফেরার পর করোনা পরীক্ষায় পজিটিভ হয়েছিলেন তিনি।

অর্থসূচক/এএইচআর

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
মন্তব্য
Loading...