গ্রামীণফোনের এজিএম, ২৫০% লভ্যাংশ অনুমোদন

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত গ্রামীণফোন লিমিটেডের ২৫তম বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) আজ মঙ্গলবার (২৫ এপ্রিল) ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

 গ্রামীণফোনের কোম্পানি সচিব এস এম ইমদাদুল হকের পরিচালনায় ভার্চুয়াল এজিএমে অংশ নেন গ্রামীণফোনের বোর্ড চেয়ারম্যান ইয়র্গেন সি. অ্যারেন্টজ রোস্ট্রাপ ও প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী ইয়াসির আজমানসহ বোর্ড সদস্য এবং প্রতিষ্ঠানটির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ।

গ্রামীণফোনের বোর্ড চেয়ারম্যান ইয়র্গেন সি. অ্যারেন্টজ রোস্ট্রাপ বলেন, “২০২১ সাল আমাদের জন্য বেশ শিক্ষণীয় এক বছর ছিলো। পুরো বছর জুড়েই কোভিড-১৯ এর নতুন ভ্যারিয়েন্ট উদ্ভূত নানা চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় আমাদের টিম বেশ দৃঢ় ও প্রতিশ্রুতিবদ্ধ ছিলো; তাই তারা গ্রাহকদের ক্রমবর্ধমান কানেক্টিভিটি সল্যুশনের চাহিদা পূরণে সক্ষম হয়েছে। প্রতিকূল সময় সত্ত্বেও, টেকনোলজি সার্ভিস প্রোভাইডার ও ডিজিটাল বাংলাদেশের কানেক্টিভিটি পার্টনার হিসেবে আমরা বিপুল পরিমাণ বিনিয়োগ, পণ্য ও সেবার ক্ষেত্রে উদ্ভাবন এবং কমিউনিটিকে সহায়তা করার জন্য প্রয়োজনীয় নানা পদক্ষেপ গ্রহণ করেছি। প্রত্যাশিত প্রবৃদ্ধি অর্জনের জন্য আমরা নেটওয়ার্ক ও তরঙ্গের ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য পরিমাণ বিনিয়োগ করেছি এবং অত্যাধুনিক ও ভবিষ্যৎ উপযোগী সক্ষমতাসম্পন্ন নেটওয়ার্ক অপারেটিং পার্টনার অন্তর্ভুক্তিতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণে সচেষ্ট রয়েছি। সবসময় গ্রামীণফোনের সাথে থাকার জন্য সকল পার্টনার, কর্মী ও গ্রাহকদের প্রতি আমরা কৃতজ্ঞ। এক সাথে আমরা সবকিছু সম্ভব করতে পারবো।”

গ্রামীণফোনের প্রধান নির্বাহী ইয়াসির আজমান বলেন, “বাংলাদেশের স্ব-নির্ভর ডিজিটাল অর্থনীতির দেশে পরিণত হওয়ার লক্ষ্যপূরণে ভবিষ্যত প্রবৃদ্ধি, ভবিষ্যত উপযোগী সক্ষমতা তৈরি, পরিচালন মডেল  ও অর্থপূর্ণ সামাজিক প্রভাব তৈরিতে ২০২১ সাল আমাদের জন্য ছিলো ভিত্তিস্বরূপ। নেটওয়ার্ক ও অভিজ্ঞতার মান বৃদ্ধির ফলে গ্রাহক সংখ্যা ও সেবার ব্যবহার বৃদ্ধির কারণে ২০২১ সালে প্রবৃদ্ধির গতিশীলতাসহ আমরা ইতিবাচক অর্থনৈতিক ফলাফল অর্জন করতে পেরেছি।  গ্রাহক, অংশীজন ও শেয়ারহোল্ডারদের জীবনে ভ্যালু তৈরির মাধ্যমে আগামী দিনগুলোতে সমাজে ইতিবাচক ভূমিকা রাখতে ডিজিটাল বাংলাদেশের কানেক্টিভিটি পার্টনার হিসেবে কাজ করতে আমরা প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।”

গ্রামীণফোনের পরিচালনা পর্ষদ ২০২১ সালের জন্য পরিশোধিত মূলধনের ১২৫ শতাংশ হারে (অর্থাৎ, ১০ টাকার শেয়ারে ১২.৫০ টাকা প্রতি শেয়ার) চূড়ান্ত নগদ লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। এর ফলে, এ নগদ লভ্যাংশের পরে পরিশোধিত মূলধনের মোট লভ্যাংশের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ২৫০ শতাংশ, যার মধ্যে রয়েছে পূর্ববর্তী ১২৫ শতাংশ অন্তর্বর্তীকালীন নগদ লভ্যাংশ, যা ২০২১ সালে কর পরবর্তী মুনাফার   ৯৮.৯১ শতাংশ।

উন্নত কাভারেজ ও গ্রাহকদের প্রয়োজন অনুযায়ী উদ্যোগে গ্রহণে গ্রামীণফোন এর পরিকল্পনা বাস্তবায়নে কার্যক্রমগত দক্ষতা এবং সঠিক কৌশল নির্ধারণে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। গ্রাহকদের সেরা কানেক্টিভিটি অভিজ্ঞতা ও দেশের ধারাবাহিক প্রবৃদ্ধিকে এগিয়ে নিতে টেক সার্ভিস লিডার গ্রামীণফোন বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কর্তৃক আয়োজিত ফাইভজি’র তরঙ্গ নিলামে অংশ নিয়ে ২.৬ গিগাহার্টজ ব্যান্ডে  সর্বোচ্চ বরাদ্দকৃত ৬০ মেগাহার্টজ  তরঙ্গ ক্রয় করে। এছাড়াও, ডিজিটাল রূপান্তর ও পরিবেশ সুরক্ষার বিষয়টি বিবেচনা করে গত ২৫ এপ্রিল গ্রামীণফোন গ্রাহকদের জন্য  ই-সিম নিয়ে এসেছে। যাত্রা শুরুর পর থেকে বাংলাদেশের অর্থনীতিতে ইতিবাচক অবদান রেখে গ্রামীণফোন এর পথচলার ২৫ বছর সম্পন্ন করেছে। এখন প্রতিষ্ঠানটি সামনের দিনগুলোতে দেশের মানুষের জীবনে ইতিবাচক ভূমিকা রাখতে তাদের ধারাবাহিক প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখার প্রয়াসে কাজ করছে। কারণ, গ্রামীণফোন বিশ্বাস করে, ডিজিটাল কানেক্টিভিটির মাধ্যমে সামনে এগিয়ে যাওয়ার এখনই সময়।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
মন্তব্য
Loading...