মালিকের ভেলকিতে পাকিস্তানের পাঁচে পাঁচ

ভারতকে ১০ উইকেটে হারিয়ে দিয়ে বিশ্বকাপ মিশন শুরু করেছিল পাকিস্তান। মাঝের সময়টায় নিউজিল্যান্ড, আফগানিস্তান, নামিবিয়াকে হারিয়ে নিশ্চিত করেছিল সেমিফাইনালের জায়গা। সুপার টুয়েলভের শেষ ম্যাচটা খানিকটা নিয়মরক্ষা হলেও স্কটল্যান্ডকে ছেড়ে কথা বলেনি বাবর আজমের দল। শোয়েব মালিকের বুড়ো হাড়ের ভেলকিতে ১৮৯ রানের বড় সংগ্রহ পাওয়ার পর স্কটিশ ব্যাটারদের মাত্র ১১৭ রানে আটকে দেয় পাকিস্তানের বোলাররা। সেমিফাইনালের আগে স্কটল্যান্ডকে ৭২ রানে হারিয়ে আত্মবিশ্বাস আরও খানিকটা তুঙ্গে তুলে রাখল বাবরের দল। তাতে এবারের আসরের সুপার টুয়েলভে একমাত্র দল হিসেবে পাঁচ ম্যাচের পাঁচটিতেই জয় পেল পাকিস্তান।

শারজাহ ক্রিকেট স্টেডিয়ামে আগে ব্যাটিং করে নির্ধারিত ২০ ওভারে মাত্র ৪ উইকেট হারিয়ে ১৮৯ রানের বড় পুঁজি পায় পাকিস্তান। সেই লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে রিচি বেরিংটন অপরাজিত ৫৪ রানের ইনিংস খেললেও ১১৭ রানের বেশি করতে পারেনি স্কটল্যান্ড। তাতে ৭২ রানের হার নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয় কাইল কোয়েটজারের দলের।

জয়ের জন্য ১৯০ রানের বড় লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে আশানুরূপ শুরু করতে পারেননি স্কটল্যান্ডের দুই ওপেনার কোয়েটজার ও জর্জ মানজি। পাওয়ার প্লের ৩ বল বাকি থাকতে ভাঙে উদ্বোধনী জুটি। কোয়েটজার ও মানজি মিলে ৫.৩ ওভার খেললেও প্রত্যাশিত রান তুলতে পারেননি। হাসান আলির বলে বোল্ড হয়ে কোয়েটজার ফিরলে ভাঙে ২৩ রানের জুটি।

তিনে নেমে সুবিধা করতে পারেননি ম্যাথু ক্রস। ৮ বলে ৫ রান করে রান আউটের শিকার হয়েছেন এই উইকেটরক্ষক ব্যাটার। ওপেনার মানজিও সাজঘরে ফেরেন দুই ওভার পরই। শাদাব খানের বলে হারিস রউফকে ক্যাচ দিয়ে প্যাভিলিয়নের দিকে হাঁটেন বাঁহাতি এই ব্যাটার। মানজির ৩১ বলে ১৭ রানের ইনিংস কেবলই দলের চাপ বাড়িয়েছে।

চারে নেমে অবশ্য দারুণ ব্যাটিং করেন বেরিংটন। ডাইলান বাজ, মাইকেল লিস্ক ও ক্রিস গ্রিভরা থিতু হতে না পারলেও এক প্রান্তে দাঁড়িয়ে খেলেছেন ৩৭ বলে অপরাজিত ৫৪ রানের ইনিংস। তবে বেরিংটনের হাফ সেঞ্চুরি যথেষ্ট ছিল না স্কটল্যান্ডের জয়ের জন্য। তাতে হার দিয়ে সুপার টুয়েলভ শেষ করতে হয়েছে স্কটিশদের। পাকিস্তানের হয়ে শাদাব দুটি উইকেট নিয়েছেন।

এর আগে টস জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুটা ভালো করতে পারেনি পাকিস্তান। পাওয়ার প্লে কোনো উইকেট না হারিয়ে ৩৫ রান তুলেন বাবর ও মোহাম্মদ রিজওয়ান। তবে পাওয়ার প্লের পরের ওভারেই হামজা তাহিরকে উইকেট দিয়েছেন ১৯ বলে ১৫ রান করা রিজওয়ান। এই উইকেটরক্ষক ব্যাটার বড় ইনিংস খেলতে না পারলেও হাফ সেঞ্চুরি করেছেন বাবর।

গ্রিভসের বলে আউট হওয়ার আগে পাকিস্তান অধিনায়কের ব্যাট থেকে এসেছে ৪৭ বলে ৬৬ রান। চারে নেমে ১৯ বলে ৩১ রানের গুরুত্বপূর্ণ ইনিংস খেলেছেন মোহাম্মদ হাফিজ। শেষ দিকে ৬টি ছক্কা ও একটি চারে মাত্র ১৮ বলে খেলেছেন অপরাজিত ৫৪ রানের ইনিংস। তাতে ১৮৯ রানের বড় সংগ্রহ দাঁড় করায় পাকিস্তান। স্কটল্যান্ডের হয়ে গ্রিভস দুটি উইকেট নিয়েছেন।

অর্থসূচক/এএইচআর

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •   
  •