২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত, মৃত্যু ও সংক্রমণ হার কমেছে

অর্থসূচক ডেস্ক

0
119
ফাইল ছবি

করোনা মহামারির তাণ্ডবে টালমাটাল বিশ্ব। বর্তমানে বাংলাদেশসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে চলছে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ। এর মধ্যে এপ্রিল মাসে দেশে হঠাৎ করেই করোনা রোগী শনাক্ত ও মৃত্যুতে ব্যাপক উল্লম্ফন হয়। মাঝে কিছুদিন শনাক্ত ও মৃত্যু কমলেও আবারও ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে করোনা। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে নতুন রোগী শনাক্ত ও মৃত্যু কমেছে। একইসঙ্গে কমেছে সংক্রমণ হার।

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ১১ হাজার ৫৭৯ জন নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে। ১২ জুলাই দেশে করোনা শনাক্ত হয় ১৩ হাজার ৭৬৮ জনের, যা একদিনে এ যাবতকালের সর্বোচ্চ শনাক্তের রেকর্ড।

আগের সাত দিনে দেশে যথাক্রমে ১৩৩২১, ১১৫৭৮, ৮৪৮৯, ১২১৪৮, ১২২৩৬, ১২৩৮৩ ও ১২১৯৮ জন রোগী শনাক্ত হয়।

সর্বশেষ তথ্য অনুসারে দেশে নভেল করোনা ভাইরাসে (কোভিড-১৯) মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১১ লাখ ২৮ হাজার ৮৮৯ জনে।

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ৩৯ হাজার ৫১০টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্ত হার ২৯ দশমিক ৩১ শতাংশ। এর আগের ২৪ ঘণ্টায় শনাক্তের হার ছিল ২৯ দশমিক ৫৯ শতাংশ।

এর আগের ২৪ ঘণ্টায় নমুনা পরীক্ষা করা হয় ৪৫ হাজার ১২টি। এ নিয়ে মোট নমুনা পরীক্ষার করা হয়েছে ৭৩ লাখ ৩৯ হাজার ৯০৯ জনের। মোট পরীক্ষার তুলনায় শনাক্তের হার ১৫ দশমিক ৩৮ শতাংশ।

আজ মঙ্গলবার (২০ জুলাই) বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।


একনজরে দেশের করোনার চিত্র

নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন: ১১৫৭৯ জন

মোট আক্রান্তের সংখ্যা: ১১২৮৮৮৯ জন

২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে: ২০০ জনের

মোট মৃত্যু হয়েছে: ১৮৩২৫ জনের

২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন: ৯৯৯৭ জন

মোট সুস্থ হয়েছেন: ৯৫১৩৪০ জন


গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ২০০ জন মারা গেছেন। গতকাল সোমবার (১৯ জুলাই) দেশে করোনায় ২৩১ জনের মৃত্যু হয়, যা একদিনে এযাবৎ কালের সর্বোচ্চ মৃত্যু। এর আগে ১১ জুলাই করোনায় মারা যান ২৩০ জন।

গত সাত দিনে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন যথাক্রমে ২৩১, ২২৫, ২০৪, ১৮৭, ২২৬, ২১০ ও ২০৩ জন।

সর্বশেষ তথ্য অনুসারে দেশে করোনায় মোট মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৮ হাজার ৩২৫ জনে। মোট শনাক্তকৃত রোগীর বিপরীতে মৃত্যুর হার এক দশমিক ৬২ শতাংশ।

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে আরও ৯ হাজার ৯৯৭ জন সুস্থ হয়েছেন বলে জানানো হয়েছে। দেশে এখন পর্যন্ত করোনা থেকে মোট সুস্থ হয়েছেন নয় লাখ ৫১ হাজার ৩৪০ জন। মোট শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৮৪ দশমিক ২৭ শতাংশ।

অর্থসূচক/কেএসআর