জিডিপির লক্ষ্যমাত্রা অর্জন চ্যালেঞ্জিংঃ আইসিএবি

0
168
Mahmudul Hasan Khasru (2)
এক্সপো গ্রুপের নির্বাহী পরিচালক এবং গ্রুপটির সহযোগী আইটি প্রতিষ্ঠান ইনফোফোর্ট লিমিটেডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মাহমুদুল হাসান খসরু। ছবি: মহুবার রহমান

পেশাদার হিসাববিদদের সংগঠন দ্যা ইনস্টিটিউট অব চার্টার্ড অ্যাকাউন্টেন্টস বাংলাদেশ (আইসিএবি) আগামী ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটকে স্বাগত জানিয়েছে। সংগঠনটি মনে করছে, করপোরেট কর হার হ্রাস, দেশীয় শিল্পকে নীতিসুবিধা দেওয়া এবং দক্ষ মানবসম্পদ গড়ে তোলার নানা ইতিবাচক বিষয় আছে বাজেট প্রস্তাবনায়। তবে সরকারের রাজস্ব আয় ও জিডিপির ৭.২ প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা অর্জন বেশ চ্যালেঞ্জিং হবে।

আজ বৃহস্পতিবার (৩ জুন) অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল জাতীয় সংসদে আগামী অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট উত্থাপনের পর এক তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় আইসিএবির সভাপতি মাহমুদউল হাসান খসরু এফসিএ এসব বিষয় তুলে ধরেছেন।

বাজেট নিয়ে সংক্ষিপ্ত মন্তব্যসমূহঃ

বাজেট সংক্রান্ত প্রতিক্রিয়ায় আইসিএবি সভাপতি বলেন, আমরা বিশ্বাস করি যে ডকুমেন্ট ভেরিফিকেশন সিস্টেম (ডিভিএস) বাস্তবায়নে এনবিআর এবং আইসিএবির যৌথ উদ্যোগ লক্ষ্যবস্তু আয় অর্জনে সহায়তা করবে। আমরা আরও বিশ্বাস করি যে এই উদ্যোগটি আর্থিক ক্ষেত্রে স্বচ্ছতা এবং জবাবদিহিতা আনবে। আমরা অর্থমন্ত্রীকে তার বাজেট বক্তৃতায় এই উল্লেখযোগ্য বিষয়টি সন্নিবেশ করানোর জন্য ধন্যবাদ জানাই।

আমরা প্রশংসা করি যে প্রস্তাবিত বাজেটে দক্ষতা বিকাশ, হালকা প্রকৌশলখাতে ছাড়, কৃষিভিত্তিক শিল্পকে ছাড় এবং মেইড ইন বাংলাদেশের নতুন ধারণাকে আলোকিত করার মাধ্যমে কর্মসংস্থান সৃষ্টির দিকে দৃষ্টি নিবদ্ধ করেছে।

কর প্রশাসনে শিক্ষা, গবেষণা ও উন্নয়ন ও অটোমেশনে আরও বাজেট বরাদ্দ প্রত্যাশিত। চলমান COVID-19 এর কারণে দারিদ্র্য স্তরের নিচে নেমে আসা লোকের যথেষ্ট পরিমাণ বিবেচনা করে সামাজিক সুরক্ষা নেটের জন্য বাজেট বরাদ্দ অপ্রতুল বলে মনে হচ্ছে।

আইসিএবি স্বাগত জানিয়েছে:

– কর্পোরেট করের হার ২.৫% হ্রাস এবং ওয়ান পার্সন কোম্পানিতে (ওপিসি) উপর ২৫% কর নির্ধারণ;

– Industrial স্থানীয় শিল্পায়নের জন্য অর্থাৎ বাংলাদেশে তৈরি, মোটরগাড়ি (২০ বছর), গৃহ সরঞ্জাম (১০ বছর), হালকা প্রকৌশল (১০ বছর) এর জন্য কর ছাড়ের প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে;

– আপস্কিল প্রশিক্ষণ ও বিকাশের জন্য ১০ বছরের কর ছাড়ের প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে;

-মহিলা এসএমই উদ্যোক্তার জন্য ৭, ০০,০০০ আয় কর অব্যহতি রয়েছে।;

– কমপক্ষে ১০০ জন ট্রান্সডেন্ডারদের নিয়োগের ক্ষেত্রে ৫% করের ছাড় এর মাধ্যমে উৎসাহ প্রাদন ।

ফিনান্স অ্যাক্টে থাকা দরকার ছিল :

· বিদ্যমান মহামারী পরিস্থিতি বিবেচনা করে স্বতন্ত্র করদাতার বোঝা হ্রাস করা উচিত;

· উৎস কর ছাড়ের প্রস্তাবিত বৃদ্ধি পণ্য সরবরাহকারী এবং অবকাঠামো সংস্থার উপর বিরূপ প্রভাব ফেলবে;

– বড় শহরগুলির বাইরের হাসপাতালে কর ছাড় দেওয়া হয়েছে তবে ২৫০ শয্যা হাসপাতালের ক্ষেত্রে পূর্বশর্ত হ্রাস করা দরকার;

আমরা ভ্যাট এবং পরিপূরক শুল্ক আইনগুলিতে নিম্নলিখিত পরিবর্তনগুলির প্রশংসা করি:

– বাংলাদেশ থেকে বিদেশে প্রদত্ত পরিষসেবা শূন্য হারে ভ্যাট প্রয়োগের জন্য রফতানি হিসাবে বিবেচিত হবে;

· অ্যাডভান্স ট্যাক্সকে কাঁচামাল আমদানির ক্ষেত্রে ৪% থেকে কমিয়ে ৩% করার প্রস্তাব করা হয়েছে যা উৎপাদন শিল্পকে সহায়তা করবে;

– বকেয়া ভ্যাটের উপর মাসিক ২% হারে সুদের হার ১% হ্রাস করার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে;

– ভ্যাট নিরীক্ষণের উদ্দেশ্যে সীমাবদ্ধ সংস্থাগুলির দ্বারা বার্ষিক আর্থিক বিবরণী বাধ্যতামূলক জমা দেওয়ার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে;

-আমরা শুল্ক আইনগুলিতে প্রস্তাবিত নিম্নলিখিত পরিবর্তনগুলির প্রশংসা করি:

– ১২ নটিক্যাল মাইল বিদ্যমান কাস্টমসের জল ২৪ নটিক্যাল মাইল অবধি প্রসারিত হয়েছে;

-চার্টার্ড হিসাবরক্ষকরা কাস্টমস অফিসার / আপিল কর্তৃপক্ষের কাছে অনুমোদিত প্রতিনিধি হিসাবে উপস্থিত হওয়ার জন্য যোগ্য হতে পারবেন।

আইসিএবি মনে করে, প্রস্তাবিত বাজেট ব্যবসায় বান্ধব এবং লক্ষ্যমাত্রাভিত্তিক জিডিপি প্রবৃদ্ধি অর্জনে অর্থনীতিকে ট্র্যাকের উপর ফেলে বর্তমান মহামারী পরিস্থিতি কাটিয়ে উঠতে সহায়তা করবে।