রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আগুন: নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৭

0
267

কক্সবাজারের উখিয়ার বালুখালি রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় তিন শিশুসহ নিহতের সংখ্যা বেড়ে সাতজনে দাঁড়িয়েছে। এছাড়া প্রায় ১০ হাজার ঘর পুড়ে গেছে। একই সঙ্গে কয়েক শ দোকান ভস্মীভূত হয়েছে।

গতকাল ২২ মার্চ দুপুরে উখিয়ার বালুখালী ৮-ডব্লিউ নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। মুহূর্তের মধ্যেই তা চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে। এক পর্যায়ে আগুন ভয়াবহ রূপ নেয়। আগুনে ক্যাম্পের ৮, ৯, ১০ ও ১১ নম্বর ব্লক সম্পূর্ণ পুড়ে গেছে। বালুখালী ক্যাম্পের বেশ কিছু এনজিও অফিস এবং এপিবিএনের একটি ব্যারাকও ভস্মীভূত হয়েছে।

অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় রোহিঙ্গা ক্যাম্পের হাজার হাজার বাসিন্দা আশ্রয় হারিয়ে এক কাপড়ে কক্সবাজার-টেকনাফ মহাসড়কে আশ্রয় নিয়েছে। আশ্রয়হারা মানুষ তাদের ক্যাম্পের ঝুপড়ির সব মালপত্র হারিয়েছে। সন্তান-সন্ততিসহ স্বজনের খোঁজ না পেয়ে রোহিঙ্গা অনেক নারী-শিশুর আর্তনাদ চলছে মহাসড়কে।

উখিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) গতকাল রাতে বলেন, ‘আগুনে অন্তত ৯ হাজার রোহিঙ্গা পরিবার আশ্রয় হারিয়েছে। একই সঙ্গে স্থানীয়দের শতাধিক ঘর পুড়ে গেছে। আগুন নিয়ন্ত্রণে এলেও গোটা এলাকা আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী কর্ডন করে রেখেছে। ফলে আমরা এখন পর্যন্ত আগুনে ক্ষয়ক্ষতি ও হতাহত হওয়ার সঠিক চিত্র পাচ্ছি না। তবে আগুনে প্রাণহানির যথেষ্ট আশঙ্কাই রয়েছে।’

অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত কিভাবে, সে ব্যাপারে সঠিক তথ্য জানা যায়নি। এ বিষয়ে স্থানীয় লোকজনের মুখে নানা রকম তথ্য রয়েছে। এ নিয়ে রোহিঙ্গারা একে অন্যকে দোষারোপ করছে। বালুখালী এলাকার লোকজন জানায়, রোহিঙ্গা ক্যাম্পটিতে একসঙ্গে কয়েকটি স্থান থেকে আগুন লাগে। কিছু রোহিঙ্গা দাহ্য পদার্থ নিয়ে আগুন লাগিয়েছে-এমন গুজব ছড়িয়েছে। ক্যাম্পটিতে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষার দায়িত্বে থাকা ১৬ নম্বর আর্মড ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন) সদস্যরা ঘটনার সময় ছয়-সাতজন রোহিঙ্গাকে আটকও করেছেন বলে খবর এসেছে।

অর্থসূচক/এএইচআর