ওয়েবসাইট ও ফেসবুকে মু্দ্রানীতি প্রকাশ করবে কেন্দ্রীয় ব্যাংক

এবার মুদ্রানীতি প্রকাশের দীর্ঘদিনের সংস্কৃতি উপেক্ষা করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এতদিন সংবাদ সম্মেলন করে বছরে দুইবার মুদ্রানীতি প্রকাশ করতো বাংলাদেশ ব্যাংক। তবে ২০২৪-২৫ অর্থবছরের প্রথমার্ধের মূদ্রানীতি প্রকাশ করা হবে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ওয়েবসাইট ও ফেসবুকে।

বুধবার (১০ জুলাই) বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও ভারপ্রাপ্ত মুখপাত্র সাইফুল ইসলাম এমন তথ্য জানান।

জানা গেছে, মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে পুরোপুরি ব্যর্থ হয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। পাশাপাশি সংকটের মধ্যে থাকা দেশের অর্থনীতি ঠিক করার জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক যত উদ্যোগ গ্রহণ করে তার সব বিফলে গেছে। এসব কারণে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর আব্দুর রউফ তালুকদার প্রশ্নের মুখোমুখি হতে চাচ্ছেন না। এজন্যই মূলত সাংবাদিকদের এড়িয়ে ফেসবুক ও ওয়েবসাইটে মুদ্রানীতি ঘোষণা করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

এদিকে আজ কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সঙ্গে মুদ্রানীতি সংক্রান্ত স্টেকহোল্ডারদের সাথে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মূল্যস্ফীতির লাগাম টানতে গত বছর থেকে সংকোচনমূলক মুদ্রানীতির পথে হাঁটছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এর সঙ্গে এবার যুক্ত হয়েছে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) নীতি সুদহার আরো বাড়ানোর পরামর্শ। ঘোষণা হতে যাওয়া মুদ্রানীতিতে আবারও বাড়ানো হচ্ছে নীতি সুদহার।

উচ্চ মূল্যস্ফীতি, মার্কিন ডলারের পাশাপাশি স্থানীয় টাকার সংকট, বৈদেশিক লেনদেনে ভারসাম্যহীনতা এবং নিয়ন্ত্রণহীন ব্যাংক খাত—মোটাদাগে এই সবই হচ্ছে এখন দেশের আর্থিক খাতে প্রধান সমস্যা।

বিবিএসের তথ্য মতে, এখন মূল্যস্ফীতির হার প্রায় ১০ শতাংশের কাছাকাছি রয়েছে। মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণের কথা বলে ঋণের সুদহার বাড়ানো হয়েছিল। যদিও সুদহার বৃদ্ধির প্রভাব মূল্যস্ফীতিতে দেখা যায়নি।

জানা গেছে, আগের মুদ্রানীতিগুলোর মতো ২০২৪-২৫ অর্থবছরের প্রথমার্ধের জন্য ঘোষিত মুদ্রানীতিতেও সংকুলানমুখী ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকবে। এ ক্ষেত্রে সুদহার আরো বাড়ানোর ঘোষণা আসতে পারে। বাড়ানো হতে পারে নীতি সুদহার, রেপো, রিভার্স রেপোর মতো মুদ্রানীতির মৌলিক সুদ কাঠামোগুলোও।

এ ছাড়া ডলারের দর পুরোপুরি বাজারভিত্তিক করা হতে পারে। ডলারের বিনিময় হার নির্ধারণের ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল নির্দেশিত ‘ক্রলিং পেগ’ নীতি চালু করেছিল বাংলাদেশ ব্যাংক, তবে এতে লক্ষ্য অনুযায়ী সুফল পাওয়া যায়নি। এ জন্য আসন্ন মুদ্রানীতিতে ক্রলিং পেগ পদ্ধতি আগের মতোই রাখা হবে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

উচ্চ মূল্যস্ফীতির চাপ সামাল দেওয়ার কথা বলে জানুয়ারি মাসের মুদ্রানীতিতেও নীতি সুদহার বাড়ায় বাংলাদেশ ব্যাংক। ২৫ বেসিস পয়েন্ট বাড়িয়ে তা ৮ শতাংশে উন্নীত করা হয়। এরপর প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে আরো দুইবার নীতি সুদহার বাড়িয়েছে সংস্থাটি। বর্তমান নীতি সুদহার সাড়ে ৮ শতাংশ। নতুন মুদ্রানীতিতে এই হার ৯ শতাংশে উন্নীত করা হতে পারে।

অর্থসূচক/এমএইচ

  
    

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.