একই ফার্মে তিন বছরের বেশি রপ্তানি ভর্তুকির নিরীক্ষা নয়

রপ্তানি ভর্তুকির আবেদনপত্র নিরীক্ষার জন্য একাদিক্রমে তিন বছরের জন্য নিয়োজিত নিরীক্ষা ফার্মকে পরবর্তী তিন বছরের জন্য একই ব্যাংকে রপ্তানি ভর্তুকির নিরীক্ষায় নিয়োগ না করার নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

সোমবার (৮ জুলাই) বাংলাদেশ ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রা নীতি বিভাগ এ সংক্রান্ত সার্কুলার জারি করেছে। সার্কুলারটি দেশের সব তফসিলি ব্যাংকের প্রধান নির্বাহীদের কাছে পাঠানো হয়েছে।

সার্কুলারে বলা হয়েছে, ব্যাংকের হিসাব নিরীক্ষায় কিংবা নগদ সহায়তা বা রপ্তানি ভর্তুকির কেস নিরীক্ষার জন্য একাধারে তিন বছরের জন্য নিয়োজিত কোনো নিরীক্ষা ফার্ম পরবর্তী তিন বছরের জন্য একই ব্যাংকে নিরীক্ষার জন্য যোগ্য হিসেবে বিবেচিত হবে না।

এতে বলা হয়, চলতি ২০২৪-২৫ অর্থবছরের নগদ সহায়তা বা রপ্তানি ভর্তুকির আবেদনপত্র নিরীক্ষার লক্ষ্যে ব্যাংকের হিসাব নিরীক্ষায় নিয়োজিত নিরীক্ষা ফার্মের সমসংখ্যক নিরীক্ষা ফার্ম নিয়োগ করা যাবে। নিয়োজিত নিরীক্ষা ফার্মের অতিরিক্ত নিরীক্ষা ফার্ম নিয়োগের প্রয়োজন হলে সে বিষয়ের যৌক্তিকতা, সংশ্লিষ্ট ফার্মের মাধ্যমে বিগত সময়ে ব্যাংকটিতে নিয়োজিত থাকার তথ্য, নগদ সহায়তার কেসের সংখ্যা ও প্রয়োজনীয় প্রাসঙ্গিক তথ্যসহ নিরীক্ষা ফার্মের সংখ্যা উল্লেখ করে বাংলাদেশ ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রা নীতি বিভাগে আবেদন করতে হবে।

আরও বলা হয়, নিরীক্ষা ফার্ম নিয়োগের আগে সংশ্লিষ্ট ফার্ম (সিএ/সিএমএ) ফাইনান্সিয়াল রিপোর্টিং কাউন্সিল এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রকাশিত সর্বশেষ তালিকায় অন্তর্ভুক্ত রয়েছে কি না তা যাচাই করতে হবে। নিরীক্ষা ফার্ম নিয়োগের ক্ষেত্রে নিয়োগকারী ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদ বা স্থানীয় সর্বোচ্চ পর্যায়ের অনুমোদন থাকতে হবে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সার্কুলারে বলা হয়, ফাইনান্সিয়াল রিপোর্টিং আইন, ২০১৫ এবং এ আইনের আওতায় জারি করা ফাইনান্সিয়াল রিপোর্টিং কাউন্সিল (নিরীক্ষক ও নিরীক্ষা ফার্ম তালিকাভুক্তি) বিধিমালা, ২০২২-এর তফসিল-১, অংশ-ঙ, অনুচ্ছেদ ৪ এর নির্দেশনাসহ তদ্বিষয়ে অন্যান্য নির্দেশনা পরিপালন করতে হবে।

অর্থসূচক/এমএইচ/এমএস

  
    

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.