ভারত-পাকিস্তানের গ্রুপে বাংলাদেশ?

২০২৫ সালে পাকিস্তানে হতে যাওয়া চ্যাম্পিয়নস ট্রফির এখনও চূড়ান্ত সূচি প্রকাশ করেনি ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি)। তবে সংবাদমাধ্যমের হাত ধরে সামনে এসেছে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের (পিসিবি) প্রস্তাবিত খসড়া সূচি। যেখানে ভারত ও পাকিস্তানের গ্রুপে রাখা হয়েছে বাংলাদেশকে।

সবশেষ ২০১৭ সালে ইংল্যান্ডের মাটিতে অনুষ্ঠিত হয়েছিল চ্যাম্পিয়নস ট্রফির সবশেষ আসর। সেবার ভারতকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল পাকিস্তান। ৮ বছর পর সেই পাকিস্তানেই হতে যাচ্ছে ৫০ ওভারের এই টুর্নামেন্টটি। যদিও পাকিস্তানের মাটিতে টুর্নামেন্ট হওয়ায় শঙ্কার শেষ নেই। বিশেষ করে ভারতকে নিয়ে এখনও শঙ্কা বয়ে বেড়াচ্ছে ক্রিকেটমহলে।

সরকারের সবুজ সংকেত পেলেই কেবল পাকিস্তানের মাটিতে চ্যাম্পিয়নস ট্রফি খেলতে যাবেন রোহিত শর্মা-বিরাট কোহলিরা। টুর্নামেন্টে অংশ নিলে নিজেদের সবগুলো ম্যাচই ভারত খেলবে লাহোরের গাদ্দাফি স্টেডিয়ামে। যার প্রস্তাবিত খসড়া সূচি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ফাইনালের দিন আইসিসির কাছে জমা দিয়েছে পাকিস্তান।

পিসিবি চেয়ারম্যান মহসিন নাকভির প্রস্তাবিত খসড়া সূচি অনুযায়ী, ‘এ’গ্রুপে রয়েছে ভারত। যেখানে তাদের সঙ্গী স্বাগতিক পাকিস্তান, বাংলাদেশ এবং নিউজিল্যান্ড। ‘বি’ গ্রুপে লড়াই করবে অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ড, আফগানিস্তান এবং সাউথ আফ্রিকা। ধারণা করা হচ্ছে ১৯ ফেব্রুয়ারি থেকে মাঠে গড়াতে পারে চ্যাম্পিয়নস ট্রফির এবারের আসর।

১৫ ম্যাচের টুর্নামেন্টের ফাইনাল হতে পারে ৯ মার্চ। তিনটি ভেন্যুতে হতে যাওয়া চ্যাম্পিয়নস ট্রফির ৭ ম্যাচ লাহোর, তিনটি করাচি এবং ৫টি হতে পারে রাওয়ালপিন্ডিতে। আপাতত করাচিতে একটি এবং রাওয়ালপিন্ডিতে রাখা হয়েছে অন্য সেমিফাইনালের ম্যাচ। তবে ভারত সেরা চারে উঠলে একটি ম্যাচ হবে লাহোরে।

ভারত যদি পাকিস্তানের মাটিতে খেলতে না যায় সেক্ষেত্রে বদলে যেতে পারে পুরো পরিকল্পনা। যার সবশেষ উদাহরণ ২০২৩ এশিয়া কাপ। আয়োজক পাকিস্তান হলেও সেবার ভারতের ম্যাচগুলো হয়েছিল শ্রীলঙ্কার মাটিতে। সরকারের কাছে সবুজ সংকেত না পেলে এবারও দেখে যেতে পারে এমন কিছুই। যদিও আইসিসি কিংবা পিসিবির পক্ষ থেকে বিকল্প কোন কিছুর আভাস দেয়া হয়নি।

অর্থসূচক/এএইচআর

  
    

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.