সমাপ্ত অর্থবছরের দশ মাসে বাণিজ্য ঘাটতি কমেছে ২১ শতাংশ

সদ্য সমাপ্ত ২০২৩-২৪ অর্থবছরের প্রথম দশ মাসে (জুলাই’২৩ -এপ্রিল২৪) বাণিজ্য ঘাটতি কমেছে ২০ দশমিক ৭৭ শতাংশ। বুধবার (৩ জুলাই) বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রকাশিত বৈদেশিক লেনদেনের সর্বশেষ হালনাগাদ প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে।

তথ্য অনুযায়ী, ২০২২-২৩ অর্থবছরে এই সময়ে বাণিজ্য ঘাটতি ছিল ২ হাজার ৩৬০ কোটি ডলার, যা এবার নেমে এসেছে ১ হাজার ৮৬৯ কোটি ডলারে।

এই দশ মাসে বাংলাদেশ থেকে পণ্য ও সেবা রপ্তানি হয়েছে ৩ হাজার ৩৬৭ কোটি ডলারের। এর বিপরীতে আমদানি হয়েছে ৫ হাজার ২৩৭ কোটি ডলারের।

করোনার পর চাপে পড়া অর্থনীতিতে বাণিজ্য ঘাটতি কমে আসার সঙ্গে সঙ্গে আরো বেশ কয়েকটি সূচক বাংলাদেশের জন্য স্বস্তিদায়ক।

এপ্রিল শেষে বৈদেশিক লেনদেনের চলতি হিসাব ভারসাম্য দাঁড়িয়েছে ঋণাত্বক ৫৭২ কোটি ডলারে, এক মাসে আগেও যা ছিল মাত্র ৪০৭ কোটি ডলার। ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রথম দশ মাস শেষে এ হিসাবে ঘাটতি ছিল ১ হাজার ১৮ কোটি ডলার।

চলতি হিসাবে ঘাটতি থাকা মানে নিয়মিত লেনদেনে ঋণ নিয়ে পূরণ করতে হয়। আর উদ্বৃত্ত থাকা মানে নিয়মিত লেনদেনে কোনো ঋণ করতে হয় না দেশকে।

এই সময়ে সার্বিক ভারসাম্যে (ওভারঅল ব্যালেন্স) ঘাটতিও কিছুটা কমেছে। জুলাই-এপ্রিলে এ হিসাবে ঘাটতি রয়েছে ৫৫৬ কোটি ডলারের। ২০২২-২৩ অর্থবছরের এপ্রিল শেষে ঘাটতি ছিল ৮৮০ কোটি ডলারের। এক বছরের ব্যবধানে সার্বিক ভারসাম্যর ঘাটতি কমেছে ৩২৪ কোটি ডলার বা ৩৬ দশমিক ৮১ শতাংশ।

একই সময়ে বাংলাদেশের সেবা খাতে আয় কমেছে। আলোচ্য এ সময়ে সেবা খাতে আয় হয়েছে ৫১৮ কোটি ডলার। আর এ খাতে ব্যয় হয়েছে ৮২৩ কোটি ডলার। অর্থাৎ সেবা খাতে এ সময় ঘাটতি দাঁড়িয়েছে ৩০৫ কোটি ডলারের।

সমাপ্ত অর্থবছরের প্রথম দশ মাসে নিট সরাসরি বৈদেশিক বিনিয়োগ (এফডিআই) এসেছে ৩৫৯ কোটি ডলার। আগের অর্থ বছরের এই সময়ে এসেছিলো ৩৭২ কোটি ডলার। অর্থাৎ আলোচ্য সময়ে এডিআই কিছুটা কমেছে।

অর্থসূচক/এমএস

  
    

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.