তিন সপ্তাহে ট্রুথ সোশ্যালের শেয়ার দর কমেছে ৫০ শতাংশ

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ট্রুথ সোশ্যালের মালিক কোম্পানি ট্রাম্প মিডিয়া অ্যান্ড টেকনোলজি গ্রুপ রীতিমতো ধুঁকছে। সব মিলিয়ে গত তিন সপ্তাহে ট্রুথ সোশ্যালের শেয়ারদর ৫০ শতাংশের বেশি কমেছে। সিএনএনের এক সংবাদে এমন তথ্য তুলে ধরা হয়।

গত মাসে ব্যবসায়িক নথিপত্রে তথ্য গোপনের অভিযোগে করা মামলায় দোষী সাব্যস্ত হন যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। ওই মামলার ৩৪টি অভিযোগের সব কটিতে তাঁকে দোষী সাব্যস্ত করা হয়। সেই ঘটনার পর ট্রুথ সোশ্যালের বাজারমূল্য প্রায় অর্ধেক কমে গিয়েছিল। গত শুক্রবার ট্রুথ সোশ্যালের শেয়ারমূল্য আরও ৫ শতাংশ কমেছে।

সিএনএনের সংবাদে বলা হয়েছে, শেয়ারের দাম কমে যাওয়ায় বিনিয়োগকারীরা আতঙ্কিত হয়ে শেয়ার ছেড়ে দিচ্ছেন। এতে ওই কোম্পানিতে থাকা ডোনাল্ড ট্রাম্পের শেয়ার দর প্রায় ৩০০ কোটি ডলার কমে গেছে। তিনি এই কোম্পানির চেয়ারম্যান।

কয়েক সপ্তাহ ধরে শেয়ারহোল্ডাররা ট্রাম্পের ট্রুথ সোশ্যাল কোম্পানির শেয়ার বিক্রি করছেন। সম্প্রতি ট্রাম্পের এক ঘোষণায় এই শেয়ার বিক্রি আরও বেড়ে যায়। সেটা হলো, কয়েক দিন আগে ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, নিয়ন্ত্রক সংস্থার এমন এক অনুমোদন তিনি পেয়েছেন, যার কারণে শেয়ারহোল্ডারদের বিনিয়োগ মূল্য কমে যেতে পারে।

এদিকে ক্ষতি শুধু শেয়ারমূল্যের ক্ষেত্রেই নয়। কোনো কোনো বিশেষজ্ঞ বলেছেন, ট্রাম্প মিডিয়া আরও ক্ষতির সম্মুখীন হতে পারে। ফ্লোরিডা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফাইন্যান্স বিভাগের শিক্ষক জে রিটার বলেছেন, ট্রাম্প মিডিয়া কোম্পানির শেয়ার অতি মূল্যায়িত।

সিএনএনের সংবাদে বলা হয়েছে, সম্প্রতি শেয়ারের দাম এত কমে যাওয়ার পরও ট্রাম্প মিডিয়ার বাজার মূলধন এখনো শতকোটি ডলারের ওপরে, যদিও এই কোম্পানি এখনো তেমন একটা রাজস্ব আয় করে না।

বছরের প্রথম প্রান্তিকে ট্রাম্প মিডিয়া মাত্র ৭ লাখ ৭০ হাজার ৫০০ ডলার রাজস্ব আয়ের তথ্য জানিয়েছে। এ নিয়ে টানা দ্বিতীয় প্রান্তিকে কোম্পানির রাজস্ব আয় ১ মিলিয়ন বা ১০ লাখ ডলারের নিচে থাকলো। শুধু তা–ই নয়, জনপ্রিয়তার দিক থেকেও ট্রুথ সোশ্যাল এখনো বলার মতো কিছু নয়। ফেসবুক, এক্স, রেডিট ও ইনস্টাগ্রামের থ্রেডসের সামনে এটি নগণ্য।

পুঁজিবাজার বিশ্লেষকরা ট্রাম্প মিডিয়াকে ভালো মৌলভিত্তির কোম্পানির কাতারে না ফেলে গুজবভিত্তিক কোম্পানির কাতারে ফেলতে চান। অর্থাৎ এমন কোম্পানি যে কোম্পানির শেয়ারের দাম মৌলভিত্তি নয়, বরং গুজবের ওপর নির্ভর করে।

জুন মাস এমনিতেই ট্রুথ সোশ্যালের জন্য ভালো যাচ্ছে না। এরপর যুক্তরাষ্ট্রের সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন কোম্পানির নিবন্ধন বিবৃতি অনুমোদন করলে পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়। এর মধ্য দিয়ে কোম্পানির প্রাথমিক শেয়ারহোল্ডারদের অতিরিক্ত শেয়ার কেনার যে ক্ষমতা দেওয়া হয়েছিল, তার অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

অর্থসূচক/এমএস

  
    

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.