নিয়ম লঙ্ঘন করে সদ্য বিদায়ী এমডিকে আইএফআইসি’র উপদেষ্টা নিয়োগ

দেশের পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ব্যাংক খাতের প্রতিষ্ঠান আইএফআইসি ব্যাংকের ক্ষেত্রে মানা হয়নি খোদ বাংলাদেশ ব্যাংকের নিয়ম। আর নিজেদের নিয়ম নিজেরাই ভেঙ্গেছে আর্থিক খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি। নিয়ম লঙ্ঘন করে বেসরকারি খাতের এ ব্যাংকটিতে উপদেষ্টা হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে সদ্য বিদায়ী ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মোহাম্মাদ শাহ আলম সরোয়ারকে।

মোহাম্মদ শাহ আলম সারোয়ারকে নিয়োগের বিষয়টি বাংলাদেশ ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট নীতিমালার সঙ্গে সাংঘর্ষিক। বাংলাদেশ ব্যাংকের নীতিমালা বলছে, কোনো ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ও পরের দুই ধাপের কর্মকর্তাদের চাকরি শেষ হওয়ার পাঁচ বছরের মধ্যে একই ব্যাংকে উপদেষ্টা বা পরামর্শক নিযুক্ত করা যাবে না।

অথচ বেসরকারি খাতের আইএফআইসি ব্যাংকের সদ্য সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মাদ শাহ আলম সরোয়ারের চাকরি শেষ হওয়ার কয়ক দিনের মধ্যে ব্যাংকটির উপদেষ্টা হিসেবে নিয়োগের অনুমোদন দিয়েছে আর্থিক খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ ব্যাংক।

এবিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তা বলেন, বিশেষ বিবেচনায় তাকে নিয়োগ দেওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

এদিকে ২০২১ সালের ২১ মে ব্যাংকের পরিচালক, চুক্তিভিত্তিক উপদেষ্টা ও পরামর্শক নিযুক্তির বিধি বিধান প্রসঙ্গে একটি প্রজ্ঞাপন জারি করে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। যেখানে বলা হয়েছে, ব্যাংক-কোম্পানির পরিচালনা ও ব্যবস্থাপনায় নিরপেক্ষতা, পেশাগত মান ও সুশাসন নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ব্যাংক কোম্পানী আইন, ১৯৯১ এর ১৫(৯) ধারায় ব্যাংক-কোম্পানীর সাথে অতীত, বর্তমান বা ভবিষ্যৎ স্বার্থ সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি স্বতন্ত্র পরিচালক নিয়োগের যোগ্য হবেন না মর্মে বাধ্যবাধকতা আরোপ করা হয়েছে। আইনের ওই বিধান অনুযায়ী ব্যাংক- কোম্পানীর সাবেক পরিচালক বা ব্যবস্থাপনা পরিচালক বা অন্য কোনো কর্মকর্তা নিয়মিত বা চুক্তি ভিত্তিক ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদে স্বতন্ত্র পরিচালক হিসেবে নিযুক্ত হতে পারেন না।

নীতিমালায় আরও বলা হয়, ব্যাংক কোম্পানী আইন, ১৯৯১ এর ১৫ (৯) ধারার উদ্দেশ্য অনুযায়ী ব্যাংক-কোম্পানীর পরিচালনা ও ব্যবস্থাপনায় নিরপেক্ষতা, পেশাগত মান ও সুশাসন নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ব্যাংক-কোম্পানীর পরিচালক, চুক্তিভিত্তিক উপদেষ্টা বা পরামর্শক নিয়োগের ক্ষেত্রে কিছু নির্দেশনা অনুসরণ করতে হবে। ব্যাংক-কোম্পানীর সাবেক পরিচালক, ব্যবস্থাপনা পরিচালক বা প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা বা প্রধান নির্বাহীর নিচের অব্যবহিত দুই স্তর পর্যন্ত কর্মকর্তা অবসর বা অব্যাহতি বা চুক্তির মেয়াদ শেষ হওয়ার পর পাঁচ বছর অতিক্রান্ত না হওয়া পর্যন্ত একই ব্যাংকের উপদেষ্টা বা পরামর্শক হিসেবে নিযুক্ত হতে পারবেন না। নিয়মিত বা চুক্তিভিত্তিক কর্মকর্তা অবসর বা অব্যাহতি বা চুক্তির মেয়াদ শেষ হওয়ার পর কখনোই একই ব্যাংকের পরিচালক হিসেবে নিযুক্ত হওয়ার যোগ্য হবেন না।

কিন্তু সেই নীতিমালা উপেক্ষা করে আইএফআইসি ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মাদ শাহ আলম সরোয়ারের মেয়াদ শেষ হওয়ার কয়েক দিনের মাথায় আবারও তাকে একই ব্যাংকের উপদেষ্টা হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।

আইএফআইসি ব্যাংক নিয়ে এর আগেও জলঘোলা কম হয়নি। সাম্প্রতিক সময়ে ‘আইএফআইসি আমার বন্ড’ নিয়েও ব্যাপক তোলপাড় হয়েছিলো। একটি প্রায় গ্রিনফিল্ড কোম্পানি জিরোকুপন বন্ড ছেড়ে এক হাজার কোটি টাকা তুলে নেয়। শ্রীপুর টাউনশিপ কোম্পানি এই বন্ড ইস্যু করে, বন্ডের নাম- আইএফআইসি গ্যারান্টেড শ্রীপুর টাউনশিপ জিরোকপন বন্ড। বন্ডের ইস্যুয়ার ও সুবিধাভোগী অন্য কোম্পানি হওয়া সত্ত্বেও আইএফআইসি ব্যাংক সাধারণ মানুষদের প্রলোভিত করতে প্রতারণার আশ্রয় নেয়। প্রচার-প্রচারণায় তারা বন্ডটিকে ‘আইএফআইসি আমার বন্ড’ নামে চালিয়ে দেয়। শুধু তা-ই নয়, বন্ডের কোনো প্রচার-প্রচারণার প্রয়োজন হলে তা ইস্যুয়ার কোম্পানির করার কথা থাকলেও, এক্ষেত্রে আইএফআইসি ব্যাংক এই দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নেয়। রিয়েল এস্টেট কোম্পানি শ্রীপুর টাউনশিপ লিমিটেড (এসটিএল)। আইএফআইসি’র চেয়ারম্যান সালমান এফ রহমান ও তার ছেলে আহমেদ শায়ান ফজলুর রহমানের স্বার্থসংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান। সালমান এফ রহমানের মালিকানাধীন বেক্সিমকো লিমিটেড ওই কোম্পানির সাথে মায়ানগর নামে একটি আবাসন প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে।

ব্যাংকটির সাবেক এমডি মোহাম্মাদ শাহ আলম সরোয়ার বিভিন্ন সময়ে বিতর্কের জন্ম দিয়েছেন। তিনি ২০১৯ সালের পুরো বছরের মধ্য ৪ মাসই কাটিয়েছিলেন বিদেশে। সেবছর এ প্রভাবশালী এমডি ২১ বার বিদেশ গিয়েছেন। একপর্যায়ে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ ব্যাংকের নজরে আসে বিষয়টি।

এমন পরিস্থিতির মধ্যে ২০২০ সালের ২৩ মার্চ ব্যাংকের কর্যক্রমে ক্ষতি হওয়া ও বিশৃঙ্খলা তৈরির শঙ্কায় ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকদের বিদেশ সফরের লাগাম টানতে একটি প্রজ্ঞাপন জারি করে বাংলাদেশ ব্যাংক। ওই প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, ‘সম্প্রতি পরিলক্ষিত হচ্ছে যে, কতিপয় ব্যাংক-কোম্পানির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা অফিস কিংবা ব্যক্তিগত ছুটিতে দীর্ঘদিনের জন্য বাংলাদেশের বাইরে অবস্থান করছেন। এতে ব্যাংকের কর্মকাণ্ডে গতিশীলতা হ্রাসের পাশাপাশি ব্যবস্থাপনা ও পরিচালনগত ঝুঁকিসহ আর্থিক ক্ষতির আশঙ্কা সৃষ্টি হচ্ছে।’

এদিকে ফেসভ্যালুর নিচে অবস্থান করছে আইএফআইসির শেয়ার দর। মঙ্গলবার (২৮ মে) ব্যাংকটির শেয়ারের লেনদেন শেষ হয়েছে ৯ টাকা ৯০ পয়সায়। যা আগের দিনের তুলনায় ৭ দশমিক ৬১ শতাংশ বেশি।

প্রথম প্রজন্মের ব্যাংক হিসেবে আইএফআইসি ব্যাংক দেশের পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয় ১৯৮৬ সালে। বর্তমানে ব্যাংকটির মোট শেয়ারের ৩২ দশমিক ৭৫ শতাংশই রাষ্ট্রীয় মালিকানায়। অবশিষ্ট শেয়ারের মধ্যে ৩৯ দশমিক ৭২ শতাংশ সাধারণ বিনিয়োগকারীদের, শূন্য দশমিক ৬৫ শতাংশ বিদেশি বিনিয়োগকারীদের, ২০ দশমিক ৭৪ শতাংশ প্রাতিষ্ঠানিক পর্যায়ে এবং উদ্যোক্তাদের কাছে রয়েছে ৬ দশমিক ১৪ শতাংশ।

অর্থসূচক/মো. সুলাইমান

  
    

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.