এমপি আনারকে পরিকল্পিতভাবে খুন করা হয়েছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজিম আনারের মৃত্যু ঘিরে চলছে নানা আলোচনা। বিষয়টি নিয়ে কথা বলেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। তিনি বলেন, এমপি আনারকে পরিকল্পিতভাবে খুন করা হয়েছে।

বুধবার (২২ মে) ধানমন্ডির বাসভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ তথ্য জানান।

আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, ভারতীয় পুলিশ আমাদের জানিয়েছে, আনোয়ারুল আজিম খুন হয়েছেন। এটা সুনিশ্চিত। কারা খুন করেছে? এই খুনের মোটিভ কী? এগুলো খুঁজে বের করতে ভারতীয় পুলিশ কাজ করছে। বাংলাদেশে পুলিশও কাজ করছে। এ বিষয়ে ভারতীয় পুলিশের সঙ্গে বাংলাদেশ পুলিশ সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখছে।

তিনি আরও বলেন, ভারতীয় পুলিশের তথ্য অনুযায়ী আনোয়ারুল আজিম খুনের সঙ্গে যারা সম্পৃক্ত তাদের মধ্য থেকে ৩ অপরাধীকে আমাদের পুলিশ ধরেছে। আটক আসামিদের জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। ঘটনার তদন্ত চলছে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ঝিনাইদহ একটি সন্ত্রাসপ্রবণ এলাকা। আমাদের আনোয়ারুল আজিম এবারও সংসদ সদস্য হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেছিলেন। তিনি কলকাতায় চিকিৎসা করাতে যাওয়ার পরই ঘটনাটি ঘটে। খুব শিগগিরই খুনের মোটিভ খুঁজে বের করা হবে। ভারতীয় পুলিশ আমাদের সব ধরণের সহযোগিতা সরবরাহ করছে।

মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে কিনা? সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, মরদেহ এখনও আমাদের কাছে আসেনি বা পৌঁছায়নি। আমরা আরও কিছু তথ্য পেয়েছি। সেগুলো এখনও প্রকাশ করতে চাচ্ছি না। ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে আমরা এখন আর কিছু বলব না। তদন্ত শেষে বিস্তারিত জানানো হবে।

আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, আনোয়ারুল সাহেব কোথায় খুন হয়েছেন? কে কে খুন করেছে? কোন অস্ত্র দিয়ে খুন হয়েছেন? সব কিছুই তদন্ত শেষ হলে পরে জানানো হবে। এই ঘটনাটি ভারত-বাংলাদেশের পুলিশ তদন্ত করছে।

সংসদ সদস্যের হত্যার ঘটনায় বাংলাদেশ থেকে যে তিনজনকে আটক করা হয়েছে তারা কোথায়? জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, সন্দেহভাজন আটক তিনজন আমাদের পুলিশি হেফাজতে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। আমরা সুনিশ্চিত যারা এই খুনের সঙ্গে জড়িত তাদের উদ্দেশ্য কি ছিল। তা এখনই আমরা প্রকাশ করতে পারবো না।

এই হত্যাকাণ্ডের কারণে ভারত-বাংলাদেশের সম্পর্কে ছেদ পড়বে কিনা? সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্ক বন্ধুত্বপূর্ণ। তিনি কলকাতায় চিকিৎসা করাতে গিয়েছিলেন। সম্পর্কের ফাটল ধরবে এমন কোনো ঘটনা ঘটেনি। কারণ, আনোয়ারুল আজিম হত্যার ঘটনায় ভারতের কেউ জড়িত হননি। এখন পর্যন্ত আমাদের কাছে যা তথ্য রয়েছে- আমাদের দেশের মানুষই তাকে হত্যা করেছে।

আনারের শেষ মোবাইল লোকেশন মিলেছিল বিহারে। গত ১৪ মে থেকে তার ফোন বন্ধ হয়ে যায়। গত আটদিন ধরে নিখোঁজ থাকলেও তার ফোন থেকে পরিবারের সদস্যদের কাছে মেসেজ পাঠানো হয় যে তিনি নয়াদিল্লি চলে গেছেন।

পুলিশের বরাত দিয়ে কলকাতা-২৪ জানায়, ১৩ মে নিউটাউনের একটি বাড়িতে যান এমপি আনার। সেই বাড়িতেই খুন করা হয় তাকে।

কলকাতা-২৪ আরও জানায়, নিউটাউনে যে বাড়িতে তিনি গিয়েছিলেন সেটা একজন এক্সাইজ অফিসারের। ভাড়া নেওয়া বাড়িতে খুন করা হয়েছে এমপি আনারকে। খুনের দিন এই বাড়িতে নাকি নারীসহ একাধিক মানুষ ছিলেন। কিন্তু এমপির রহস্যজনক মৃত্যুর পর সবাই ভারত থেকে পালিয়ে গেছেন।

অর্থসূচক/এমএস

  
    

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.