ঘরে বসে নিশ্চিন্তে কোরবানি হবে বেঙ্গল মিটে

বরাবরের মতো এবারও কোরবানিতে গ্রাহকদের দুঃশ্চিন্তা লাঘব করতে কার্যক্রম হাতে নিয়েছে বেঙ্গল মিট। আসন্ন ঈদ-উল আযহা ২০২৪ উপলক্ষে প্রতিষ্ঠানটি এবছর ১০ম বারের মতো অনলাইন কোরবানি হাট চালু করল।

কার্যক্রমের অংশ হিসেবে গ্রাহকের অর্ডার করা গরু, ছাগল এবং ভেড়াকে ইসলামী ফাউন্ডেশনের প্রতিনিধির তত্ত্বাবধানে কোরবানি সম্পন্ন করে এবং কোল্ড চেইন বজায় রেখে ডেলিভারি করা হবে।
হাটে যাওয়া, উন্মুক্ত জায়গায় কোরবানি ও মাংস প্রসেসিং এর দুশ্চিন্তা এড়াতে ক্রেতাদের চাহিদার কথা মাথায় রেখে বেঙ্গল মিট প্রতি বছর এ আয়োজন করে থাকে। qurbani.bengalmeat.com এই পোর্টাল থেকে গরু বাছাই, অনলাইন পেমেন্ট, মিট প্রসেসিং এবং ডেলিভারি অপশন – এই সবকিছু করার ব্যবস্থা রয়েছে।

ঢাকায় বেঙ্গল মিটের প্রধান কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে অনলাইন কোরবানির দশম বছরের আয়োজন তুলে ধরেন বেঙ্গল মিটের কর্মকর্তারা। এই সময় উপস্থিত ছিলেন প্রোজেক্ট ম্যানেজার মোহাম্মদ হাসান ইফতেখার, প্রোজেক্ট ম্যানেজার মোহাম্মদ রাকিবুল ইসলাম, হেড অব রিটেল সেলস মোহাম্মদ হারেস এবং হেড অব মার্কেটিং শেখ ইমরান আজিজ।

হেড অব মার্কেটিং শেখ ইমরান আজিজ বলেন, “মুসলমানদের ধর্মীয় ভাবনার বিষয়টি মাথায় রেখে ও গ্রাহকদের সর্বোচ্চ সুবিধা দিতে এবারো পুরো কার্যক্রম পরিকল্পনা করা হয়েছে। বেংগল মিটের নিজস্ব খামার এবং চুক্তিবদ্ধ খামারিদের থেকে সোর্সিং করে নিশ্চিন্ত করা হয় রোগমুক্ত গরু, ছাগল এবং ভেড়া, এবং পরম যত্নে লালিত পালিত প্রাণীগুলো ইসলামিক ফাউন্ডেশন এর প্রতিনিধির তত্ত্বাবধানে কোরবানি সম্পন্ন করে বিশ্বমানের সার্টিফাইড মিট প্রসেসিং স্ট্যান্ডার্ড ও যথাযথ কোল্ড চেইন বজায় রেখে ডেলিভারি সব মিলিয়ে বেঙ্গল মিট নিশ্চিত করে সম্পূর্ণ হালাল ও নিরাপদ কোরবানি। গত বছর এর ন্যায় এ বছরও বেঙ্গল মিটে থাকছে অর্গানিক গ্রাস-ফেড গরু যা শুধুমাত্র প্রাকৃতিক ঘাস খাওয়ানো গবাদি পশু এবং লিন মিটের জন্য আদর্শ”।

তিনি আরও বলেন “গত নয় বছর ধরে ইউজার এক্সপেরিয়েন্স হিসেবে সবচাইতে ‘নিরাপদ ও হালাল’কোরবানি প্লাটফর্ম হিসেবে বিবেচত হচ্ছে বেঙ্গল মিট। যারা একবার এই সার্ভিস নিয়েছে তাদের অধিকাংশই প্রতিবারই বেঙ্গল মিট থেকে কোরবানি সার্ভিস নিয়ে থাকে”।

অর্থসূচক/

  
    

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.