টিভি সম্প্রচার বন্ধের কর্মসূচি থেকে সরে এলো কোয়াব

সারাদেশে টিভি সম্প্রচার চার ঘণ্টা বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত স্থগিত করেছে ক্যাবল অপারেটরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (কোয়াব)। তথ্য প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ আলী আরাফাতের আশ্বাসে ঘোষিত টিভি সেবা বন্ধের সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসেছে সংগঠনটি।

সোমবার (১১ মার্চ) কোয়াব সভাপতি এ বি এম সাইফুল হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ মোশারফ আলী চঞ্চলের সই করা বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়, ক্যাবল টিভি ব্যবসার নানান সমস্যা সমাধানের বিষয়ে ইতিবাচক কোনো পদক্ষেপ না নেওয়ার প্রতিবাদে আগামী ১১ মার্চ সন্ধ্যা ৬টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত সারাদেশে প্রতীকী ধর্মঘট হিসেবে ক্যাবল টিভি সেবা বন্ধ রাখার কর্মসূচি স্থগিত ঘোষণা করা হলো। তথ্য প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ আলী আরাফাত সমস্যা সমাধানের আশ্বাস দেওয়ায় কর্মসূচি স্থগিতের সিদ্ধান্ত নিয়েছে কোয়াব।

গত ৩ মার্চ ঢাকা লেডিস ক্লাবে কোয়াবের বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) শেষে দাবি বাস্তবায়ন না হলে ১১ মার্চ দেশে ব্ল্যাক আউটের হুঁশিয়ারি দিয়েছিল সংস্থাটি। সে অনুযায়ী শনিবার (৯ মার্চ) রাতে কোয়াব সভাপতি জানিয়েছিলেন ১১ মার্চ তারা টিভি সেবা বন্ধ রাখার কর্মসূচি করবে।

ওইদিন সাইফুল হোসেন বলেন, পে-চ্যানেল বিল ও অন্য খরচ দিয়ে টিকে থাকা দায় হয়ে পড়েছে। বিটিভির কোনো তৎপরতা নেই। বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি) ম্যাজিস্ট্রেসি করছে। ব্যবসার সমস্যা দেখছে না।

তিনি আরও বলেন, পাইরেসি পে-চ্যানেল বন্ধ ও ওটিটিতে লাইভ চ্যানেল বন্ধ করতে হবে, খাত ডিজিটালাইজেশনে সরকারের ব্যবস্থা নিতে হবে ও বিটিভিকে ম্যাজিস্ট্রেসি পুনরায় ফিরিয়ে দিতে হবে। এসব দাবি আগামী সাতদিনের মধ্যে বাস্তবায়ন না হলে ১১ মার্চ সন্ধ্যা ৬-১০টা পর্যন্ত প্রতীকী ধর্মঘট হিসেবে দেশে ব্ল্যাক আউট বা সব সম্প্রচার বন্ধ রাখা হবে।

তবে প্রতিমন্ত্রীর আশ্বাসে সেই সিদ্ধান্ত থেকে অবশেষে সরে এলেন কোয়াব নেতারা।

অর্থসূচক/এমএস

  
    

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.