যুক্তরাষ্ট্রে চালকবিহীন গাড়িতে জনতার আগুন

গত শনিবার রাতে যুক্তরাষ্ট্রের সান ফ্রান্সিসকোতে ‘ওয়েমো’র একটি চালকবিহীন গাড়িতে জনতা আগুন ধরিয়ে দেয় বলে কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে৷ দেশটিতে চালকবিহীন গাড়িতে হওয়া এটিই সবচেয়ে বড় হামলা৷

মাইকেল ভ্যান্ডি নামের এক ব্যক্তি ঘটনাটির ভিডিও এক্স-এ প্রকাশ করেছেন৷ বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে তিনি বলেন, ঘটনার সময় লোকজন আতশবাজি পুড়িয়ে চীনা নববর্ষ উদযাপন করছিল৷ এই সময় এক ব্যক্তি গাড়ির হুডে উঠে কাচ ভেঙে ফেলেন৷

ভ্যান্ডির ভিডিওতে গাড়িটি আগুনে পুড়তে ও সেখান থেকে কালো ধোঁয়া বের হতে দেখা গেছে৷ ওয়েমো বলছে, গাড়ির ভেতরে কেউ একজন আতশবাজি ছুড়ে মারায় আগুন ধরে যায়৷

দমকল বিভাগও বলছে, আতশবাজির কারণে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে৷ গাড়িতে কোনো আরোহী ছিল না এবং কেউ আহত হয়নি৷

সান ফ্রান্সিসকোর পুলিশ বিভাগ বলছে, আগুনের কারণ জানতে তদন্ত চলছে৷ কাউকে আটক করা হয়েছে কিনা তা জানায়নি পুলিশ৷

জাগুয়ার আই-পেস মডেলের ইলেক্ট্রিক গাড়িতে ২৯টি ক্যামেরা ও সেন্সর আছে৷ গতবছর জেনারেল মোটর্স কোম্পানির চালকবিহীন গাড়ি ‘ক্রুজ’ একজন পথচারীকে টেনে নিয়ে গিয়েছিল৷ এরপর থেকে চালকবিহীন গাড়ির প্রতি মানুষের বৈরী আচরণ বাড়ছে৷

অতীতে সান ফ্রান্সিসকো ও অ্যারিজোনার ফিনিক্সে চালকবিহীন গাড়ির রাস্তা বন্ধ করে দেওয়া, গাড়ির ভেতরে ঢোকার চেষ্টা ও হুডে উঠে পড়ার ঘটনা ঘটেছে৷ সেন্সর যেন কাজ না করে সেজন্য কমলা রংয়ের ট্রাফিক কোণ দিয়ে গাড়ির সেন্সর ঢেকে দেওয়ার ভিডিও ভাইরাল হয়েছে৷

গত সপ্তাহে সান ফ্রান্সিসকোতে একটি ওয়েমো গাড়ি একজন সাইক্লিস্টের সঙ্গে ধাক্কা খেয়েছিল৷ এতে সামান্য আহত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে৷ ফিনিক্সে চালকবিহীন গাড়ি দিয়ে যাত্রী পরিবহণ সেবা চালু করেছে ওয়েমো৷ লস অ্যাঞ্জেলেস ও অস্টিনে সেবা চালুর চেষ্টা করছে তারা৷ সূত্র: ডিডাব্লিউ, রয়টার্স

অর্থসূচক/এএইচআর

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.