‘পুঁজিবাজার ও বিমা খাত নানাভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে’

বাংলাদেশকে উচ্চ-মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত করতে কর-জিডিপি অনুপাত যথেষ্ট নয়। পুঁজিবাজার, বন্ড ও বিমাসহ আর্থিক খাত নানাভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। সব সূচকই আর্থিক খাতের নিম্নমুখী ইঙ্গিত দিচ্ছে বলে জানিয়েছেন পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর।

শনিবার (৯ ডিসেম্বর) রাজধানীর একটি হোটেলে তিন দিনের ‘বার্ষিক বিআইডিএস কনফারেন্স অন ডেভেলপমেন্ট’র শেষ দিনে ‘বৈশ্বিক ও অভ্যন্তরীণ অনিশ্চয়তার প্রেক্ষাপটে নীতিগত চ্যালেঞ্জ’ শীর্ষক অধিবেশনে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, নির্বাচনের পর রাজনৈতিক নেতাদের উচিত সংস্কার কর্মসূচি নিয়ে এগিয়ে যাওয়া। তারা যদি মনে করেন যে কোনোকিছু না করেই অর্থনীতি ঠিক করা যাবে, তাহলে আগামী দুই-তিন বছরের মধ্যে তা ভেঙে পড়ার আশঙ্কা দেখা দেবে।

বাংলাদেশ বর্তমানে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) ঋণ কর্মসূচি বাস্তবায়ন করছে। আহসান এইচ মনসুর এই কর্মসূচিকে সময়োপযোগী বলে অভিহিত করেছেন। তিনি মনে করেন, দেশের টাকার প্রয়োজন নেই। বরং আইএমএফ যে নীতিগত সংস্কারের কথা বলেছে, তা প্রয়োজন। দেশের উচিত নিজের স্বার্থে অর্থনীতির সংস্কার করা।

এদিন মুদ্রার ভাসমান বিনিময় হার চালুর সম্ভাবনা নাকচ করে দিয়েছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর। যদিও অনেক অর্থনীতিবিদ দীর্ঘদিন ধরে দেশের চলমান অর্থনৈতিক সংকট কাটাতে মুদ্রার বাজারভিত্তিক দাম নির্ধারণের পরামর্শ দিচ্ছেন।

‘মুদ্রার ভাসমান বিনিময় হার চালুর সম্ভাবনা নেই,’ উল্লেখ করে গভর্নর আব্দুর রউফ তালুকদার বলেন, ‘কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সঙ্গে কথা বলা অর্থনীতিবিদদের অধিকাংশই অবাধে মুদ্রার ভাসমান বিনিময় হার না করার পরামর্শ দিয়েছেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘মুদ্রার বিনিময় হার আরও বাজারভিত্তিক হবে। একটি ব্যান্ডের মাধ্যমে মুদ্রার দাম কম-বেশি করার অনুমতি দেওয়া হবে, যাতে এর বিনিময় হার প্রকৃত বিনিময় হারের কাছাকাছি থাকে।’

গভর্নর জানান, খেলাপি ঋণ (এনপিএল) কমাতে কেন্দ্রীয় ব্যাংক রোডম্যাপ তৈরি করেছে। এটি শিগগির বাস্তবায়িত হবে।

গভর্নরের মতে, মূল্যস্ফীতির ঊর্ধ্বগতি, মুদ্রার বিনিময় হারে অস্থিরতা ও উচ্চহারে খেলাপি ঋণ দেশের অর্থনীতির তিন প্রধান প্রতিবন্ধকতা।

আব্দুর রউফ তালুকদার আরও জানান, তিনি অনেক স্বনামধন্য অর্থনীতিবিদদের সঙ্গে দেশের চলমান অর্থনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করেছেন। এটি তাকে সমস্যাগুলো শনাক্ত করতে ও এসবের সমাধান খুঁজে পেতে সহায়তা করেছে।

তিনি বলেন, ক্রমবর্ধমান কৃষি উৎপাদন, পোশাক খাত ও রেমিট্যান্স প্রবাহ অর্থনীতিকে সচল রাখে এবং এগুলো সঠিক পথে আছে। দেশে কৃষি ও শিল্প উৎপাদনের প্রবৃদ্ধি ভালো এবং তৈরি পোশাক রপ্তানি ও রেমিট্যান্স প্রবাহ বাড়ছে।

অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর সাবেক অর্থনৈতিকবিষয়ক উপদেষ্টা মশিউর রহমান, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা রাশেদা কে চৌধুরী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক মাহবুব উল্লাহ, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্টার অব ক্লাইমেট চেঞ্জ অ্যান্ড এনভায়রনমেন্টাল রিসার্চের ইমেরিটাস অধ্যাপক আইনুন নিশাত, ঢাকা ট্রিবিউনের সম্পাদক জাফর সোবহান, বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রধান অর্থনীতিবিদ হাবিবুর রহমান ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সচিব শরিফা খান বক্তব্য রাখেন।

অর্থসূচক/এমএইচ/এমএস

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.