৭১ টিভির বিরুদ্ধে মুশফিকের লিগ্যাল নোটিশ

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজের দ্বিতীয় টেস্টে ‘অবস্ট্রাক্টিং দ্য ফিল্ড’ আউট হয়েছিলেন মুশফিকুর রহিম। যা নিয়ে ‘মিরপুর টেস্টে স্পট ফিক্সিংয়ের গন্ধ! সন্দেহ সিনিয়র ক্রিকেটারের দিকে!’ শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয় ৭১ টেলিভিশনের নিয়মিত অনুষ্ঠান খেলাযোগের ফেসবুক পেজ ও ইউটিউবে। মনগড়া, অসত্য, উদ্দেশ্য-প্রণোদিত তথ্য পরিবেশন করার অভিযোগে ৭১ টেলিভিশনের বিরুদ্ধে লিগ্যাল নোটিশ পাঠিয়েছেন মুশফিক।

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে দিয়ে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মুশফিকের পক্ষের আইনজীবী ব্যারিস্টার শিহাব উদ্দিন খান। প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, অপূরনীয় সুনামহানি হাওয়ার প্রেক্ষিতে ৭১ টেলিভিশনের হেড অফ নিউজ, ক্রীড়া সম্পাদক ও সংশ্লিষ্ট প্রতিবেদকের কাছে কিছু বিষয়ের নিষ্পত্তি চেয়ে আইনি নোটিশ পাঠানো হয়েছে। ইমেইলের মাধ্যমে নোটিশ পাঠিয়েছেন মুশফিকের আইনজীবী।

যেখানে আইনি নোটিশে চারটি বিষয়ে ৪৮ ঘন্টার মধ্যে নিষ্পত্তি চাওয়া হয়েছে-

১. অতি সত্ত্বর ইউটিউবসহ অন্যান্য প্লাটফর্ম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম থেকে অসত্য ও মনগড়া প্রতিবেদনটি সরিয়ে ফেলতে ও সরিয়ে ফেলার ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে।

২. ভুল ও অসত্য এবং মানহানিকর তথ্য সম্বলিত প্রতিবেদনের জন্য ৭১ টেলিভিশনকে নি:শর্ত ক্ষমা প্রার্থনাসহ তাদের টিভি চ্যানেলে এই সংক্রান্ত প্রতিবেদন প্রচার করতে বলা হয়েছে ।

৩. ৭১ টেলিভিশনকে সংবাদ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে তাদের এই মনগড়া, ভুল প্রতিবেদনের জন্য নি:শর্ত ক্ষমা চাইতে বলা হয়েছে।

৪. সংশ্লিষ্ট প্রতিবেদক সাইফুল রূপককে ভবিষ্যতে এমন অসত্য ও মনগড়া প্রতিবেদন না করার বিষয়ে সতর্ক করা হয়েছে মর্মে মুশফিকুর রহিমের নিকট লিখিত ভাবে ৭১ টেলিভিশন কর্তৃপক্ষকে জানাতে বলা হয়েছে ।

নোটিশে উক্ত প্রতিবেদন দন্ডবিধির ৫০০ ধারায় মানহানির অপরাধ ও সাইবার নিরাপত্তা আইন, ২০২৩ এর ২৫(১)(ক), ২৫(২) এবং ২৯ ধারায় সাইবার বুলিং এর অপরাধ উল্লেখ করে প্রতিকার না পেলে ফৌজদারি ও ক্ষতিপূরণ আদায়ের দেওয়ানী আদালতে আইনি ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলা হয়েছে।

ঘটনাটি ঘটে দ্বিতীয় টেস্টের প্রথম দিন বাংলাদেশের ব্যাটিং ইনিংসের ৪১তম ওভারে কাইল জেমিসনের উইকেটের ওপর করা ডেলিভারিতে ব্যাকফুটে খেলেছিলেন মুশফিক। বল ব্যাটে লাগার পর মাটিতে পরে লাফিয়ে উঠে। বল স্টাম্পের দিকে ধেয়ে না আসলেও হঠাৎই বলটি হাত দিয়ে সরিয়ে দেন মুশফিক। স্টাম্পে লাগতে পারে ভেবে খানিকটা ইচ্ছাকৃতভাবেই বলটি সরিয়ে দেন তিনি। বাংলাদেশের এই ক্রিকেটারের এমন কাণ্ডে আবেদন করেন জেমিসন।

তাকে সঙ্গ দেন নিউজিল্যান্ডের বাকি ফিল্ডাররাও। পরবর্তীতে তৃতীয় আম্পায়ার ভিডিও দেখে মুশফিককে আউট ঘোষণা করেন। তাতে করে বাংলাদেশের প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ‘অবস্ট্রাকটিং দ্য ফিল্ড’ আউট হয়েছেন তিনি। মুশফিকের এমন আউটে হতাশা প্রকাশ করেছেন ধারাভাষ্য কক্ষে থাকা তামিম ইকবাল। অভিজ্ঞ একজন ক্রিকেটারের কাছ থেকে এমন কিছু মেনেই নিতে পারছিলেন না তিনি।

এমনকি মুশফিকের এমন আউটের পেছনে কোনো অজুহাতও দাঁড় করানোর পক্ষে নন তামিম। হতাশা প্রকাশ করেছিলেন আতহার আলী খানও। প্রথম দিনের খেলা শেষে সংবাদ সম্মেলনে এসে মেহেদী হাসান মিরাজ জানিয়েছিলেন, এটি মুশফিকের ইচ্ছের বিরুদ্ধে এবং খেলার ‘ফ্লোতে’ হয়ে গিয়েছিল।

অর্থসূচক/এএইচআর

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.