শেয়ারট্রিপ-মনিটর এয়ারলাইন অফ দা ইয়ার’র ফলাফল ঘোষণা

নিয়মিত আকাশ ভ্রমণকারীদের মতামত জরিপের ভিত্তিতে দুবাইভিত্তিক এমিরেটস বছরের সেরা এয়ারলাইন এবং ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স সেরা ডমেস্টিক এয়ারলাইন নির্বাচিত হয়েছে। বুধবার (২০ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর ইন্টারকন্টিনেন্টাল হোটেলে আয়োজিত এক জাঁকজমকপূর্ণ অনুষ্ঠানে শেয়ারট্রিপ-মনিটর এয়ারলাইন অফ দা ইয়ার ২০২৩ এর ফলাফল ঘোষণা করা হয়।

কাতার এয়ারওয়েজ এবছরের সেরা কার্গো এয়ারলাইন এবং ভিস্তারা সেরা আঞ্চলিক এয়ারলাইনের সম্মাননা লাভ করে। চলতি বছরের জুলাই ও আগস্ট মাসে অনলাইনে পরিচালিত মতামত জরিপে ৩,৩০০ এর অধিক নিয়মিত আকাশ ভ্রমণকারী অংশগ্রহণ করেন।

বেসামরিক বিমান চলাচল ও পর্যটন বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মোঃ মাহবুব আলী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বিভিন্ন ক্যাটাগরীতে বিজয়ী এয়ারলাইনগুলোর প্রতিনিধিদের হাতে ট্রফি তুলে দেন।

জাপানের আন্তর্জাতিক সহযোগিতা এজেন্সী ‘জাইকা’ বাংলাদেশের এভিয়েশন সেক্টরের উন্নয়নে তাদের গুরুত্বপূর্ন অবদান ও সহায়তার জন্য জুরি’র বিশেষ সাইটেশন অ্যাওয়ার্ড লাভ করে।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল এম. মফিদুর রহমান, বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ এন্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের চেয়ারম্যান এবং জুরি কমিটির চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম, বাংলাদেশ মনিটর সম্পাদক কাজী ওয়াহিদুল আলম, শেয়ারট্রিপের সহ-প্রতিষ্ঠাতা এবং প্রধান নির্বাহী সাদিয়া হক, ইস্টার্ন ব্যাংকের কমিউনিকেশন্স ও এক্সটার্নাল অ্যাফেয়ার্স বিভাগ প্রধান জিয়াউল করিম, ইন্টারকন্টিনেন্টাল ঢাকার মহাব্যবস্থাপক অশ্বনী নায়ার, এবং স্যাবার বাংলাদেশের প্রধান নির্বাহী মোঃ সাইফুল হক।

বাংলাদেশে কার্যক্রম পরিচালনাকারী এয়ারলাইনগুলোকে পরিসেবার ১৬টি ক্যাটাগরীতে পুরস্কার প্রদান করা হয়। প্রাপ্ত ভোটের ভিত্তিতে এয়ারলাইনগুলো প্রতি ক্যাটাগরীতে স্বর্ণ, রৌপ্য ও ব্রোঞ্জ অ্যাওয়ার্ড লাভ করে।

সর্বোচ্চ সংখ্যক স্বর্ণ ট্রফি জিতে নেয় এমিরেটস এয়ারলাইন। যেসকল ক্যাটাগরীতে এয়ারলাইনটি স্বর্ণ ট্রফি পেয়েছে, সেগুলো হলো- সেরা বিজনেস শ্রেণী, সেরা ইনফ্লাইট বিনোদন, সেরা লয়্যালটি প্রোগ্রাম, সেরা দূরপাল্লার এয়ারলাইন, এবং সেরা এয়ারলাইন।

জাতীয় বিমান সংস্থা ‘বিমান’ সেরা ইকোনমি শ্রেণী, এবং ইকোনমি শ্রেণীতে সেরা খাবার ক্যাটাগরীতে স্বর্ণ ট্রফি লাভ করে।

কাতার এয়ারওয়েজ বছরের সেরা কার্গো এয়ারলাইন নির্বাচিত হওয়া ছাড়াও বিজিনেস শ্রেণীতে সেরা খাবারের জন্য স্বর্ণ ট্রফি জিতে নেয়।

সেরা আঞ্চলিক এয়ারলাইন ক্যাটাগরীতে স্বর্ণ ট্রফি লাভ করেছে ভিস্তারা, এবং সেরা বাজেট এয়ারলাইন ক্যাটাগরীতে স্বর্ণট্রফি লাভ করে ইন্ডিগো।

সেরা ডমেস্টিক এয়ারলাইন ক্যাটাগরী ছাড়াও ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স সেরা গ্রাহক বান্ধব এয়ারলাইন (ডমেস্টিক) ক্যাটাগরীতে স্বর্ন ট্রফি লাভ করে। সেরা অনটাইম পারফর্মেন্স (ডমেস্টিক) ক্যাটাগরীতে নভোএয়ার স্বর্ণ ট্রফি জিতে নেয়।

অন্যদিকে, দেশের নবীনতম অভ্যন্তরীণ এয়ারলাইন ‘এয়ার এস্ট্রা’ সেরা ইনফ্লাইট সার্ভিস (ডমেস্টিক) ক্যাটগরীতে স্বর্ণ ট্রফি লাভ করে।

দেশের ভিতর সেরা এয়ারপোর্ট লাউঞ্জ ক্যাটাগরীতে স্বর্ণ ট্রফি লাভ করে সিটি ব্যাংক- অ্যামেক্স লাউঞ্জ। ইবিএল স্কাইলাউঞ্জ রৌপ্য ও বলাকা লাউঞ্জ ব্রোঞ্জ ট্রফি জিতে নেয়।

এবারের এয়ারলাইন অফ দা ইয়ারে বিচারকের ভূমিকা পালন করেন বিভিন্ন সেক্টরের প্রতিনিধিত্বকারী স্বনামধন্য ব্যাক্তিবর্গ। ১১ সদস্যের এই বিচারক প্যানেল প্রাপ্ত ভোট পর্যালোচনা ও যাচাই-বাছাইয়ের পর বিজয়ীদের নির্বাচিত করে।

দেশের শীর্ষস্থানীয় ভ্রমণ বিষয়ক প্রকাশনা বাংলাদেশ মনিটর ২০০৭ সালে এয়ারলাইন অফ দা ইয়ার পুরষ্কারের প্রবর্তন করে। এবারের আসরটি ছিল দশম। এবারের আয়োজনে টাইটেল স্পন্সর হিসেবে দায়িত্ব পালন করে দেশের শীর্ষস্থানীয় অনলাইন ট্রাভেল এজেন্সী শেয়ারট্রিপ। ইস্টার্ন ব্যাংক পিএলসি (ইবিএল) ব্যাংকিং পার্টনার, ইন্টারকন্টিনেন্টাল ঢাকা- হসপিটালিটি পার্টনার এবং শীর্ষস্থানীয় জিডিএস প্রতিষ্ঠানে স্যাবার বাংলাদেশ- টেকনোলজি পার্টনার হিসেবে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা প্রদান করে।

 

অর্থসূচক/ এইচএআই

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.