বিশ্বকাপে সাকিবদের পরামর্শক শ্রীরাম

আসন্ন ভারত বিশ্বকাপে বাংলাদেশ দলের টেকনিক্যাল কনসালটেন্ট হিসেবে যোগ দেবেন শ্রীধরন শ্রীরাম। এক বিবৃতিতে এমনটা নিশ্চিত করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। ভারতে দলের সঙ্গে যোগ দেয়ার কথা রয়েছে শ্রীরামের।

বিশ্বকাপ শুরু হওয়ার আগে ভারতের গোয়াহাটিতে শ্রীলঙ্কা এবং ইংল্যান্ডের বিপক্ষে দুটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ। দলের সঙ্গে সেখানেই একত্রিত হওয়ার কথা শ্রীরামের।

এর আগে শ্রীরাম সংযুক্ত আরব আমিরাতে টি-টোয়েন্টি সংস্করণে অনুষ্ঠিত হওয়া এশিয়া কাপে দলের পরামর্শক ছিলেন। অস্ট্রেলিয়ায় অনুষ্ঠিত টি-টোয়েন্টিও বিশ্বকাপে একই ভূমিকায় ছিলেন তিনি। তবে সেই সময়ে তিনি মূলত বাংলাদেশ দলের হেড কোচের দায়িত্ব পালন করেছিলেন।

গত বছরের আগস্টে হেড কোচ রাসেল ডমিঙ্গোকে সরিয়ে বাংলাদেশের টি-টোয়েন্টি দলের টেকনিক্যাল কনসালটেন্ট হিসেবে দায়িত্ব দেয়া হয় শ্রীরামকে। চুক্তি ছিল অস্ট্রেলিয়া বিশ্বকাপ পর্যন্ত সাকিবদের সঙ্গে কাজ করবেন তিনি। যদিও তার অধীনে এশিয়া কাপে ভালো করতে পারেনি বাংলাদেশ। আফগানিস্তান ও শ্রীলঙ্কার কাছে হেরে গ্রুপ পর্ব থেকেই বাদ পড়ে সাকিবের দল। ভালো করতে পারেনি নিউজিল্যান্ডে অনুষ্ঠিত ত্রিদেশীয় সিরিজেও। যেখানে পাকিস্তান ও নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে চারটি ম্যাচেই হেরেছিল বাংলাদেশ। তবে খানিকটা উন্নতির ছাপ দেখা যায় বিশ্বকাপে। সেমিফাইনাল খেলতে না পারলেও সেই সম্ভাবনা জাগিয়েছিল তারা। নেদারল্যান্ডস ও জিম্বাবুয়েকে হারানোর পর ভারতের বিপক্ষেও জয়ের খুব কাছে ছিল বাংলাদেশ। শেষ দিকে মাত্র ৫ রানে হারতে হয়েছিল সাকিবদের।

বেশ কয়েক বছর ধরে কোচ হিসেবে কাজ করছেন শ্রীরাম। জাতীয় দল, বয়স ভিত্তিক কিংবা ফ্র্যাঞ্চাইজি সব জায়গাতেই কাজ করার অভিজ্ঞতা আছে তার। অস্ট্রেলিয়া দলে স্পিন কোচ হিসেবে কাজ করেছেন বেশ কিছু দিন। ২০১৫ সালে অস্ট্রেলিয়া ‘এ’ দলের ভারত সফরে কোচিং প্যানেলে ছিলেন তিনি।

২০১৫ সালে অস্ট্রেলিয়া দলের বাংলাদেশ সফরেও ছিলেন তিনি। ২০১৯ সালে অ্যাশেজ সিরিজেও অস্ট্রেলিয়ার কোচিং প্যানেলের অন্যতম সদস্য করা হয়েছিল তাকে। ২০১৯ সালে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর ব্যাটিং ও স্পিন কোচ হিসেবেও কাজ করেছেন শ্রীরাম। আন্তর্জাতিক অঙ্গনে ক্রিকেট খেলারও অভিজ্ঞতা আছে শ্রীরামের। ২০০০ থেকে ২০০৪ সাল পর্যন্ত ভারত জাতীয় দলে খেলেছেন তিনি। এই সময়ে ভারতের জার্সিতে ৮টি ওয়ানডে খেলেছেন। তামিলনাড়ূর এ ক্রিকেটারের ঘরোয়া রেকর্ডও খুবই সমৃদ্ধ। রঞ্জি ট্রফিতে এক মৌসুমে রেকর্ড ১০৭৫ রান করেছেন তিনি।

অর্থসূচক/এএইচআর

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.