ভারতের নতুন সংসদ ভবন নিয়ে বিতর্ক

গত কয়েকবছর ধরে সেন্ট্রাল ভিস্তা প্রকল্পের মাধ্যমে এই সংসদ ভবন তৈরি করা হয়েছে। ভারতের পুরনো পার্লামেন্ট ভবনটিকে জাদুঘরে পরিণত করা হবে। আর নতুন পার্লামেন্ট বসবে নতুন এই ভবনে। শুধু তা-ই নয়, এই ভবনের সঙ্গে যে রাস্তা যুক্ত করা হচ্ছে, সেখানে থাকবে সরকারি দপ্তর এবং প্রধানমন্ত্রীর বাড়ি। রাষ্ট্রপতি ভবন থেকে শুরু করে এই সেন্ট্রাল ভিস্তা প্রকল্প সমস্ত সরকারি দপ্তর এবং ভবনকে যুক্ত করবে।

কিন্তু নতুন এই ভবনের উদ্বোধন নিয়েও শুরু হয়েছে বিতর্ক। বিরোধীদের অভিযোগ, করোনার সময় যখন মানুষের চিকিৎসার জন্য সরকারের অর্থ খরচ করার কথা ছিল, তখন সে কাজ না করে সেন্ট্রাল ভিস্তা প্রকল্পের জন্য অর্থ বাঁচানো হয়েছে। সেখানে অর্থ বরাদ্দ করা হয়েছে। কয়েক হাজার কোটি টাকার এই প্রকল্প নিয়ে গত কয়েকবছর ধরেই তীব্র বিতর্ক এবং সমালোচনা চলছে। করোনার সময়েও এই প্রকল্পের কাজ বন্ধ হয়নি বলে কোনো কোনো পক্ষের দাবি।

এ কারণে, ভারতের ২০টি বিরোধী দল এই প্রকল্পের উদ্বোধন বয়কট করেছে। তার মধ্যে কংগ্রেস, তৃণমূল কংগ্রেস, আম আদমি পার্টি, সমাজবাদী পার্টির মতো প্রথম সারির বিরোধী দলগুলি আছে।

অভিযোগ, এই সংসদ ভবন উদ্বোধনে রাষ্ট্রপতি দ্রৌপদী মুর্মূকেও ডাকা হয়নি। দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এই ভবনের উদ্বোধন করেন। বিরোধী দলগুলি এই সিদ্ধান্তেরও বিরোধিতা করছে। যদিও বিজেপির বক্তব্য, অনুষ্ঠান বয়কট করে বিরোধীরা আসলে ভারতের গণতন্ত্র এবং সংবিধানের অবমাননা করছেন।

সরকারপক্ষ অবশ্য জানিয়েছে, ধুমধাম করেই এই প্রকল্পের উদ্বোধন হয়েছে। ভারতের ইতিহাস মাথায় রেখে সাজানো হয়েছে পুরো ভবনটি। আগের পার্লামেন্ট ভবনের চেয়ে আকারে এবং আয়তনে এই ভবন অনেক বড়। অত্যাধুনিক ব্যবস্থাপনা আছে এর ভেতর। এই ভবনের উদ্বোধন উপলক্ষে একটি নতুন কয়েন বা পয়সার উন্মোচন করা হচ্ছে। সরকারের তরফে জানানো হয়েছে ৭৫ টাকার কয়েনের উদ্বোধন হয় এদিন। সূত্র: ডিডাব্লিউ, পিটিআই

অর্থসূচক/এএইচআর

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.