নেতৃত্বের অভিষেকে দল জেতালেন হোপ

ওয়ানডে নেতৃত্বের অভিষেকে অপরাজিত সেঞ্চুরি হাঁকালেন শাই হোপ। টেম্বা বাভুমা এর জবাব দিয়েছেন ক্যারিয়ার সেরা ইনিংস খেলে। তবুও শেষ হাসি হাসল ক্যারিবিয়ানরা। ইস্ট লন্ডনের বাফেলো পার্কে সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডেতে সাউথ আফ্রিকাকে ৪৮ রানে হারাল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। এই জয়ে তিন ম্যাচ সিরিজে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে থাকল ক্যারিবিয়ানরা।

কাগজে-কলমে হোপের নেতৃত্বের অভিষেক ছিল এই সিরিজটির প্রথম ম্যাচ। যে ম্যাচটি পরিত্যক্ত হয়েছিল বৃষ্টির কারণে। আর তাই দ্বিতীয় ওয়ানডেতেই নেতৃত্বের অভিষেক হয় হোপের। আর এই ম্যাচে চার নম্বরে নেমে ১১৫ বলে সাতটি ছক্কা ও পাঁচটি চারে ১২৮ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলেন হোপ।

সাউথ আফ্রিকার বিপক্ষে এই সংস্করণে নিজেদের সর্বোচ্চ ৩৩৫ রান তোলে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। শুরুটা অবশ্য দারুণ করে তারা। উদ্বোধনী জুটিতেই ৬৭ রান তোলেন বেন্ডন কিং এবং কাইল মায়ার্স। ২৬ বলে ৩৬ রান তুলে ফিরে যান মায়ার্স। রানের খাতা খোলার আগেই বিদায় নেন শামারহ ব্রুকস। দুজনকেই ফেরান জেরাল্ড কোয়েটজে। পরের ওভারে ফিরে যান ২৯ বলে ৩০ রান করা কিংও। বিজর্ন ফরচুনের বলে বোল্ড হন তিনি।

তারপর নিকোলাস পুরান এবং রভম্যান পাওয়েলের সঙ্গে পৃথক দুটি জুটিতে দলের রান বাড়াতে থাকেন হোপ। পুরানের সঙ্গে ৮৬ রানের জুটি গড়েন তিনি, যেখানে ৪১ বলে ৩৯ রান তোলেন পুরান। আর পাওয়েলের সঙ্গে জুটিতে ৮০ রান তোলেন তিনি, যেখানে পাওয়েল করেন ৪৯ বলে ৪৬ রান। এই দুই জুটিই মূলত ইনিংসের সুর ভিত গড়ে দেয়। ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে কোয়েটজে তিনটি উইকেট নেন। দুটি করে উইকেট নেন ফরচুন এবং তাবরাইজ শামসি।

লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে কুইন্টন ডি ককের ঝড়ো ইনিংসের পর বাভুমার ব্যাটে ২৮তম ওভারে দুইশ ছুঁয়ে ফেলে সাউথ আফ্রিকা। এরপরই হারায় পথ। ৮৭ রানের মধ্যে শেষ ৭ উইকেট হারিয়ে ২৮৭ রানে থমকে যায় স্বাগতিকরা! রান তাড়ায় মাত্র ৮.৪ ওভারের মধ্যে ডি ককের উইকেট হারিয়ে ৭৬ রান তোলে সাউথ আফ্রিকা। ২৬ বলে ৫ চার ও ৩ ছক্কায় ডি কক করেন ৪৮ রান। প্রোটিয়াদের ইনিংসের বাকিটা শুধুমাত্রই বাভুমার। যোগ্য সঙ্গ কারও কাছ থেকেই তিনি পাননি।

নবম উইকেট হিসেবে মাঠ ছাড়ার আগে ১১৮ বলে ১১টি চার ও সাতটি ছক্কায় ১৪৪ রান করেন। ওয়ানডেতে এটাই তার সর্বোচ্চ রানের ইনিংস। সাউথ আফ্রিকা থামে ২৮৭ রান করে। ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে তিনটি করে উইকেট নেন আলজারি জোসেফ এবং আকিল হোসেইন।

অর্থসূচক/এএইচআর

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.