ব্যাংকের কোটি টাকার হিসাবে ভাটা পড়েছে

বিশ্ব অর্থনীতিতে টালমাটাল অবস্থা বিরাজ করছে। একদিকে করোনার রেশ অন্যদিকে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাব। এসবের ঘা পড়েছে দেশের অর্থনীতিতেও। এমন পরিস্থিতির মধ্যে চলতি ২০২২-২৩ অর্থ বছরের প্রথম প্রান্তিকে ব্যাংকের কোটি টাকার হিসাবে ভাটা পড়েছে। তিন মাসের ব্যবধানে দেশে কোটিপতি কমেছে ১ হাজার ৯৩৭ জন।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ হালনাগাদ প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা যায়।

তথ্য অনুযায়ী, সদ্য বিদায়ী বছর জুন শেষে দেশের ব্যাংকগুলোতে কোটিপতি আমানতকারীর সংখ্যা ছিলো এক লাখ ৮ হাজার ৪৫৭ জন। আর সেপ্টেম্বর শেষে কোটিপতির পরিমাণ কমে দাঁড়িয়েছে এক লাখ ৬ হাজার ৫২০ জন। অর্থাৎ মাত্র তিন মাসের ব্যবধানে দেশে কোটিপতি কমেছে ১ হাজার ৯৩৭ জন।

জানা যায়, গত বছরের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ব্যাংকিং খাতে মোট আমানতকারীর সংখ্যা দাঁড়ায় ১৩ কোটি ৩৪ লাখ ৩৬ হাজার ৮৮টি। যাদের হিসাবে জমা ছিল ১৫ লাখ ৭৬ হাজার ৩৭০ কোটি টাকা। একই বছরের জুন পর্যন্ত আমানতকারীর সংখ্যা ছিল ১২ কোটি ৯৫ লাখ ১৪ হাজার ৫১৩টি। যাদের হিসাবে জমা ছিল ১৫ লাখ ৭৩ হাজার ৮২৩ কোটি টাকা। এর মধ্যে এক লাখ ৬ হাজার ৫২০টি হিসেবে কোটি টাকার উপরে রাখা রয়েছে। ২০২১ সালের ডিসেম্বর প্রান্তিকে এর সংখ্যা ছিল এক লাখ এক হাজার ৯৭৬টিতে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদন অনুযায়ী, ১০টি ক্যাটাগরিতে কোটিপতি আমানতকারীদের হিসাব করেছে আর্থিক খাতের নিয়ন্ত্রণ সংস্থা বাংলাদেশ ব্যাংক। এর মধ্যে গত ৩০ জুনে ৫০ কোটি টাকার বেশি হিসাবধারী ছিল ১ হাজার ৮০৫ জন। গত ৩০ সেপ্টেম্বর তা কমে হয়েছে ১ হাজার ৬৬০ জনে। আলোচ্য সময়ে ৫০ কোটি টাকার বেশি আমানতকারীর কমেছে ১৪৫ জন। এর মধ্যে একই ব্যক্তির একাধিক হিসাবও রয়েছে। ওইসব হিসাবে গত ৩০ জুনে আমানত ছিল ২ কোটি ৬৩ হাজার টাকা। এখন তা কমে ২ লাখে দাড়িয়েছে। ৪০ থেকে ৫০ কোটি টাকার আমানতকারীদের হিসাব গত ৩০ জুন ছিল ৬২১টি। গত ৩০ জুনে তা কমে দাড়িয়েছে ৫২৩টি। এ খাতে হিসাব কমেছে ৯৮টি। ৩৫ থেকে ৪০ কোটি টাকার হিসাব গত ৩০ জুন ছিল ৩০৭টি। ৩০ সেপ্টেম্বরে তা বেড়ে দাড়িয়েছে ৩১৯টিতে। এ সময়ে হিসাব বেড়েছে ৭টি। ৩০ থেকে ৩৫ কোটি টাকার হিসাব ৩০ জুনে ছিল ৫০২টি। সেপ্টেম্বরে তা কমে দাঁড়িয়েছে ৪৫৮টি।

অর্থাৎ আলোচ্য সময়ে হিসাব কমেছে ৫৬টি। ২৫ থেকে ৩০ কোটি টাকার হিসাব কমেছে ২৩টি। গত জুনে ছিল ৮৮৩টি। সেপ্টেম্বরে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৮৬০টি। ২০ থেকে ২৫ কোটি টাকার হিসাব আলোচ্য সময়ে ১ হাজার ১৫১টি থেকে কমে ১ হাজার ১৪৭টি হয়েছে। আলোচ্য সময়ে হিসাব কমেছে ৪টি। ১ কোটি থেকে ২০ কোটি টাকার আমানতকারীর সংখ্যাও কমেছে।

 

অর্থসূচক/এমএইচ/এএইচআর

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.