ডিজেল, পেট্রোল, অকটেনের দাম বাড়ল

দেশের বাজারে জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর আশংকা শেষ পর্যন্ত সত্যি হয়েছে। ডিজেল, পেট্রোল ও অকটেনসহ সব ধরনের জ্বালানি তেলের দাম বাড়িয়েছে সরকার।

ডিজেলের দাম লিটারে ৩৪ টাকা, অকটেনের দাম লিটারে ৪৬ টাকা আর পেট্রলের দাম লিটারে ৪৪ টাকা বাড়ানো হয়েছে।

এখন এক লিটার ডিজেল ও কেরোসিন কিনতে ১১৪ টাকা লাগবে। এক লিটার অকটেনের জন্য দিতে হবে ১৩৫ টাকা। আর প্রতি লিটার পেট্রলের দাম হবে ১৩০ টাকা।

জ্বালানি তেলের নতুন দাম আজ রাত ১২টার পর থেকে কার্যকর হবে।

আজ শুক্রবার (৫ আগস্ট)  বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জ্বালানি তেলের নতুন এই দর জানানো হয়েছে।

জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির বিষয়ে এর আগে একাধিক দফায় আভাস দিয়েছেন প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু। তিনি বলেছেন, আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম বেড়ে যাওয়ায় সরকারকে বিপুল পরিমাণ ভর্তুকী দিতে হচ্ছে। লোকসান গুণতে হচ্ছে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশনকে। তাই শিগগিরই এই দাম সমন্বয় করা হবে। তবে তিনি প্রতিবারই বলেছেন, দাম এমনভাবে বাড়ানো হবে যাতে তা সবার জন্য সহনীয় হয়। কিন্তু যে হারে দাম বাড়ানো হয়েছে, তাতে কোনোভাবেই সেটি আর সহনীয় থাকছে না।

কেরোসিন ও ডিজেলের দাম ৪২ দশমিক ৫ শতাংশ,  অকটেনের ৫১ দশমিক ৬০ শতাংশ এবং পেট্রোলের ৫৪ দশমিক ৭৬ শতাংশ বাড়ানো হয়েছে।

এর আগে গত বছরের নভেম্বরে জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানো হয়েছিল। সে সময় ডিজেল ও কেরোসিনের দাম লিটারে ১৫ টাকা বাড়ানো হয়। তাতে দাম হয়েছিল ৮০ টাকা লিটার। তার আগে এই দুই জ্বালানি তেলের দাম ছিল লিটারে ৬৫ টাকা।

দাম বাড়ার কারণ ব্যাখ্যায় জ্বালানি মন্ত্রণালয়ের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ পেট্টোলিয়াম করপোরেশন (বিপিসি) বিগত ছয় মাসে (ফেব্রুয়ারি থেকে জুলাই ২০২২ পর্যন্ত) জ্বালানি তেল বিক্রিতে ৮ হাজার ১৪ কোটি টাকার বেশি লোকসান দিয়েছে। বর্তমানে আন্তর্জাতিক তেলের বাজার পরিস্থিতির কারণে বিপিসির আমদানি কার্যক্রম স্বাভাবিক রাখতে যৌক্তিক মূল্য সমন্বয় অপরিহার্য হয়ে পড়েছে।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
মন্তব্য
Loading...