কর্পোরেট কর ও বিদেশ থেকে টাকা ফেরাতে সামান্য পরিবর্তন

২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেট পাস

আগামী ২০২২-২৩ অর্থবছরের জন্য অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের প্রস্তাবিত ৬ লাখ ৭৮ হাজার ৬৪ কোটি টাকার বাজেট জাতীয় সংসদে পাস হয়েছে। এর মধ্য দিয়ে শুক্রবার থেকে এ বাজেট বাস্তবায়ন শুরু হবে। যা বাস্তবায়ন করতে গিয়ে বছরজুড়েই সরকারকে ২ লাখ ৪৫ হাজার ৬৪ কোটি টাকার ঘাটতি হিসাবের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হবে।

বৃহস্পতিবার (৩০ জুন) জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বাজেট সমাপনী অধিবেশনে সংসদ সদস্যদের সর্বসম্মত কণ্ঠভোটে ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেট পাস হয়।

এই বাজেট কার্যকরের ফলে বাড়তি আয়ের লক্ষ্য অর্জনে একদিকে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) যেমন নতুন উদ্যমে মাঠে নামবে, অন্যদিকে করদাতাদের ওপর বাড়তি করারোপের একটা চাপও তৈরি হবে। যে কারণে কোনো ক্ষেত্রে পণ্য ও সেবা ক্রয়ে বাড়তি অর্থ গুনতে হবে, আবার সেটি কোনো কোনো ক্ষেত্রে আগের চেয়ে কম দামেও পাওয়ার পথ তৈরি হবে।

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল গত ৯ জুন সংসদে এই বাজেট উপস্থাপন করেন। এরপর অধিবেশনজুড়ে সংসদ সদস্যরা প্রস্তাবিত বাজেটের ওপর নানা বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন। করোনা মহামারির গত দুই বছর পর সংসদ সদস্যদের স্বশরীরে উপস্থিতি এবং প্রস্তাবিত বাজেটের ওপর দীর্ঘ আলোচনা এবারই প্রথম।

প্রস্তাবিত বাজেটে পাচার হওয়া স্থাবর ও অস্থাবর সম্পদ দেশে আনার ক্ষেত্রে যে সুযোগ রাখা হয়েছিল তা বাতিল করা হয়েছে। তবে কেউ ঘোষণা দিয়ে নগদ অর্থ আনতে পারবে। সেক্ষেত্রে সাড়ে ৭ শতাংশ কর দিয়ে তা আনার সুযোগ রাখা হয়েছে। একইসঙ্গে কম হারে করপোরেট কর সুবিধা পাওয়ার ক্ষেত্রেও সংশোধন আনা হয়েছে। যেসব কোম্পানি বছরে ৩৬ লাখ টাকার বেশি ব্যাংকের মাধ্যমে লেনদেন করবে তারা কম হারে করপোরেট কর পরিশোধের সুবিধা পাবে। প্রস্তাবিত বাজেটে এই সীমা ছিল বছরে ১২ লাখ টাকা।

এছাড়া সব সেবার ক্ষেত্রে ই-টিআইএন (করদাতা শরাক্তকরণ নম্বর) যুক্ত করে রিটার্ন দাখিলের যে বাধ্যবাধকতা ছিল তাতেও ছাড় দেওয়া হয়েছে। কেবল ব্যক্তি-শ্রেণির করদাতাদের জন্য রিটার্ন দাখিল বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। এর আগে বাজেট উপস্থাপনের পর গত ১৩ জুন বিদায়ী ২০২১-২২ অর্থবছরের সম্পূরক বাজেট সংসদে পাস হয়।

এদিকে অর্থমন্ত্রীর প্রস্তাবিত বাজেটের ওপর প্রায় মাসব্যাপী আলোচনা হলেও শেষ পর্যন্ত ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেটে ব্যয়ের আকারসহ অন্যান্য মৌলিক ইস্যুতেগুলোতে কোনো পরিবর্তন আনা হয়নি। ফলে বাজেটের সমাপনী অধিবেশনেও ৬ লাখ ৭৮ হাজার ৬৪ কোটি টাকার ব্যয়ের বাজেট জাতীয় সংসদে পাস হয়েছে। এর মধ্যে পরিচালনসহ অন্যান্য খাতে ব্যয় করা হবে মোট ৪ লাখ ৩১ হাজার ৯৯৮ কোটি টাকা এবং বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে ব্যয় করা হবে ২ লাখ ৪৬ হাজার ৬৬ কোটি টাকা।

এবার অর্থমন্ত্রীর প্রস্তাবিত বাজেটে মূল লক্ষ্য হলো করোনার অভিঘাত পেরিয়ে দেশকে উন্নয়নের ধারায় প্রত্যাবর্তন। সেই লক্ষ্যে এই বাজেটের মূল নজর হচ্ছে অর্থনীতির সব খাতে সক্ষমতার উন্নয়ন। এ জন্য এই বাজেটে আয়ের চেয়ে বেশি ব্যয় করার লক্ষ্য নির্ধারণ করে সামগ্রিক ঘাটতির পরিমাণ বাড়ানো হয়েছে। অর্থাৎ ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেটে ঘাটতি রাখা হয়েছে ২ লাখ ৪৫ হাজার ৬৪ কোটি টাকা, যা মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) ৫ দশমিক ৬ শতাংশের সমান।

ঘাটতির মধ্যে অনুদানসহ বৈদেশিক উৎস থেকে সংগ্রহ করা হবে ৯৮ হাজার ৭২৯ কোটি টাকা। আর অভ্যন্তরীণ উৎস থেকে নেয়া হবে ১ লাখ ৪৬ হাজার ৩৩৫ কোটি টাকা, যেখানে ব্যাংক খাত থেকে নেয়া হবে ১ লাখ ৬ হাজার ৩৩৪ কোটি টাকা। ঘাটতির অংক ছাড়া বাকিটা আসবে রাজস্ব আয় করার মাধ্যমে। এর লক্ষ্যে রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা দেয়া হয়েছে ৪ লাখ ৩৩ হাজার কোটি টাকা। এর মধ্যে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) সংগ্রহ করা কর রাজস্বের মাধ্যমে আয় করা হবে ৩ লাখ ৭০ হাজার কোটি টাকা। এই আয় আসবে মূলত আয়কর, ভ্যাট এবং আমদানি ও রপ্তানি শুল্ক থেকে। এনবিআর বহির্ভূত কর থেকে আসবে ১৮ হাজার কোটি টাকা আর কর ছাড়া প্রাপ্তি ধরা হয়েছে ৪৫ হাজার কোটি টাকা।

অন্যদিকে ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধ পরিস্থিতিতে ভোক্তাকে মূল্যস্ফীতি থেকে সুরক্ষা দেয়ার লক্ষ্য রয়েছে এই বাজেটে। এ জন্য অর্থমন্ত্রী আগামী বছরজুড়ে দেশের মূল্যস্ফীতিকে ৫ দশমিক ৬ শতাংশের মধ্যে রাখার লক্ষ্য নিয়ে তার আর্থিক ব্যবস্থাপনা পরিচালনা করবেন বলে জানিয়েছেন তিনি।

পরিচালন ও উন্নয়ন বাজেটের আওতায় কোন খাতে সম্পদের কী পরিমাণ ব্যয় করবেন সেটিও স্পষ্ট করেছেন অর্থমন্ত্রী মুস্তফা কামাল। এর মধ্যে সামাজিক নিরাপত্তা ও কল্যাণে মোট সম্পদের ৫ দশমিক ৫ শতাংশ, কৃষিতে ৬ দশমিক ২ শতাংশ, স্বাস্থ্যে ৫ দশমিক ৪ শতাংশ, জ্বালানি ও বিদ্যুতে ৩ দশমিক ৮ শতাংশ, সুদ পরিশোধে ১১ দশমিক ৯ শতাংশ, শিক্ষা ও প্রযুক্তিতে ১৪ দশমিক ৭ শতাংশ, পরিবহন ও যোগাযোগে ১২ শতাংশ, স্থানীয় সরকার ও পল্লী উন্নয়নে ৬ দশমিক ৬ শতাংশ ও জনপ্রশাসন ব্যয়ে ১৯ দশমিক ৯ শতাংশ। এছাড়া জনশৃংখলা ও নিরাপত্তাখাতে ৪ দশমিক ৬ শতাংশ, গৃহায়নে ১ শতাংশ, বিনোদন ও সংস্কৃতি এবং ধর্মে শূন্য দশমিক ৮ শতাংশ, শিল্প ও অর্থনৈতিক সার্ভিসে শূন্য দশমিক ৬ শতাংশ এবং বিবিধ খাতে ১ দশমিক ১ শতাংশ ব্যয় করার ছক তৈরি করেছেন অর্থমন্ত্রী।

 

অর্থসূচক/এএইচআর

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
মন্তব্য
Loading...