স্বর্ণের দামে রেকর্ড

দেশের বাজারে মাত্র ৪ দিনের ব্যবধানে আবারও বেড়েছে স্বর্ণের দাম। এবারের বর্ধিত দাম দেশের ইতিহাসে রেকর্ড তৈরি করেছে। সবচেয়ে ভালো মানের স্বর্ণের দাম ভরিতে ৪ হাজার ১৯৯ টাকা বাড়িয়ে ৮২ হাজার ৪৬৪ টাকা নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছে। অন্য মানের স্বর্ণের দামও প্রায় একই হারে বেড়েছে। দেশের ইতিহাসে কখনোই স্বর্ণের দাম এতো বেশি বাড়েনি।

শনিবার (২১ মে) বাজুসের মূল্য নির্ধারণ ও মূল্য পর্যবেক্ষণ স্থায়ী কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান এনামুল হক ভূইয়া লিটন স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানিয়েছে বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি (বাজুস)। অগামীকাল রোববার থেকে নতুন দাম কার্যকর করা হবে বলে বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

আন্তর্জাতিক বাজারে দাম বাড়ায় দেশের বাজারে স্বর্ণের দাম বাড়ানো হয়েছে বলে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে।

এর আগে, গত মঙ্গলবার (১৭ মে) স্বর্ণের দাম বাড়ানোর ঘোষণা দেয় বাজুস। যা ১৮ মে থেকে কার্যকর হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, আন্তর্জাতিক বাজারে মার্কিন ডলার ও অন্যান্য মুদ্রার দাম অস্বাভাবিক হারে বেড়েছে। এছাড়া আন্তর্জাতিক বাজার ও স্থানীয় বুলিয়ন মার্কেটেও স্বর্ণের দাম বেড়েছে। এই অবস্থায় ২১ মে বাংলাদেশ জুয়েলার্স অ্যাসোসিয়েশন –বাজুস স্ট্যান্ডিং কমিটি অন প্রাইসিং এন্ড প্রাইস মনিটরিং এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় এনে সর্বসম্মতিক্রমে আগামীকাল থেকে দেশের বাজারে স্বর্ণের দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

 

বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী, আগামীকাল রোববার থেকে সবচেয়ে ভালো মানের ২২ ক্যারেটের প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ৮২ হাজার ৪৬৪ টাকা। যা আজ পর্যন্ত ৭৮ হাজার ২৬৫ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে। একইভাবে ২১ ক্যারেটের স্বর্ণের দাম চার হাজার ২৪ টাকা বাড়িয়ে ৭৮ হাজার ৭৩২ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। যা আজ পর্যন্ত ৭৪ হাজার ৭০৮ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে। ১৮ ক্যারেটের স্বর্ণের দাম তিন হাজার ৫০০ টাকা বেড়ে প্রতি ভরি দাঁড়িয়েছে ৬৭ হাজার ৫৩৫ কোটি টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। যা আজ পর্যন্ত ৬৪ হাজার ৩৫ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে। এবং সনাতন পদ্ধতির প্রতি ভরির দাম দুই হাজার ৮৫৮ টাকা বাড়িয়ে ৫৬ হাজার ২২০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। যা আজ পর্যন্ত ৫৩ হাজার ৩৬২ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে।

তবে রুপার দাম অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে। ক্যাটাগরি অনুযায়ী, ২২ ক্যারেটের প্রতি ভরি রুপার মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে এক হাজার ৫১৬ টাকা। ২১ ক্যারেটের রুপার দাম এক হাজার ৪৩৫ টাকা, ১৮ ক্যারেটের এক হাজার ২২৫ টাকা এবং সনাতন পদ্ধতির রুপার দাম ৯৩৩ টাকায় অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে।

তথ্য বিশ্লেষণে দেখা যায়, রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের ধাক্কায় বিশ্ববাজারে স্বর্ণের দাম বেড়ে যাওয়ায় গত ৮ মার্চ দেশের বাজারে ভালো মানের স্বর্ণের দাম ভরিতে ১ হাজার ৫০ টাকা বাড়িয়ে ৭৯ হাজার ৩১৫ টাকা নির্ধারণ করেছিল বাজুস। তার চার দিন আগে ৪ মার্চ বাড়ানো হয়েছিল ভরিতে ৩ হাজার ২৬৫ টাকা।

এরপর বিশ্ববাজারে স্বর্ণের দাম কমতে শুরু করায় গত ১৫ মার্চ দেশের বাজারে ভরিতে ১ হাজার ১৬৬ টাকা কমানোর ঘোষণা দেয় বাজুস। ২১ মার্চ কমানো হয় ভরিতে আরও ১ হাজার ৫০ টাকা।

কিন্তু বিশ্ববাজারে দাম বাড়ায় গত ১১ এপ্রিল সবচেয়ে ভালো মানের স্বর্ণের দাম ভরিতে ১ হাজার ৭৫০ টাকা বাড়িয়ে ৭৮ হাজার ৮৪৯ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছিল।

এরপর আন্তর্জাতিক বাজারে দাম কমায় ২৫ এপ্রিল প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম ১ হাজার ১৬৬ টাকা কমানো হয়। এরপর গত ১০ মে একই পরিমাণ দাম কমানো হয়েছিল।

পরপর দুই দফায় ভরিতে ২ হাজার ৩৩২ টাকা কমানোর পর গত ১৭ মে আবার স্বর্ণের দাম বাড়ানো হয়েছে ১ হাজার ৭৫০ টাকা। সবশেষ ২১ মে সর্বোচ্চ ৪ হাজার ১৯৯ টাকা দাম বাড়ানো হয়েছে। সব মিলিয়ে এবারের দাম বৃদ্ধিও ফলে স্বর্ণের দামে রেকর্ড হয়েছে। এর আগে কখনোই দেশের ইতিহাসে এতো বেশি দাম নির্ধারণ করতে দেখা যায়নি।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
মন্তব্য
Loading...