অ্যাপলকে হটিয়ে আরামকো বিশ্বের সবচেয়ে দামি কোম্পানি

জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধির প্রবল বাতাস লেগেছে সৌদি আরবের জাতীয় তেল কোম্পানি সৌদি আরামকোর গায়ে। দমকা বাতাসে সম্পদ মূল্যের দিক থেকে বিশ্বে সবার উপরে উঠে এসেছে কোম্পানিটি। গায়ে লেগেছে সবচেয়ে দামি কোম্পানির তকমা। প্রযুক্তি কোম্পানি অ্যাপলকে সরি দিয়ে বিশ্বের সবচেয়ে দামি কোম্পানি এখন ‘সৌদি আরামকো’।

খবর সিএনএন, সিএনবিসি ও সৌদি গেজেটের।

খবর অনুসারে, শেয়ারের সর্বশেষ মূল্যের ভিত্তিতে সৌদি আরামকোর বাজারমূলধন (Market Capital) দাঁড়িয়েছে ২ দশমিক ৪২ ট্রিলিয়ন। অন্যদিকে অ্যাপলের বাজারমূলধন দাঁড়িয়েছে ২ দশমিক ৩৭ ট্রিলিয়ন ডলার। বুধবারের (১১ মে) বাজারদরের ভিত্তিতে এই মূলধন হিসাব করা হয়েছে।

উল্লেখ, বাজার মূলধন হচ্ছে-একটি কোম্পানি ইস্যুকৃত সব শেয়ারের বাজারমূল্য। একটি কোম্পানির শেয়ারের বাজারমূল্য দিয়ে কোম্পানির মোট শেয়ারকে গুণ করলে ওই কোম্পানির বাজারমূলধন পাওয়া যায়। এটিকে কোম্পানির নিট মূল্য (Net Worth) হিসেবেও বিবেচনা করা হয়। এই এই নিট মূল্যের আলোকে নির্ধারণ করা হয় কোন কোম্পানি কতটা দামি।

করোনাভাইরাসের প্রকোপ কমে যাওয়ার পর একদিকে বিশ্বে  জ্বালানী তেলের চাহিদা হঠাৎ অনেক বেড়ে গেছে। অন্যদিকে রাশিয়া- ইউক্রেন যুদ্ধ পরিস্থিতির কারণে কমে গেছে জ্বালানি তেলের যোগান। এই বিপরীতমুখী চাপে তরতরিয়ে বেড়েছে জ্বালানী তেলের দাম। আর তাতেই জমজমাট হয়ে উঠেছে বিশ্বের সবচেয়ে বড় তেল উৎপাদন ও বিপনন কোম্পানি সৌদি আরামকোর ব্যবসা।

তেলের চাহিদা ও দাম বৃদ্ধির কারণে সৌদি আরামকোর মুনাফাও বাড়ছে। গত মার্চ প্রান্তিক শেষে কোম্পানিটি জানিয়েছে, সর্বশেষ বছরে তাদের নিট মুনাফা হয়েছে আগের বছরের দ্বিগুণ।

কোম্পানির আয় বাড়ার কারণে বাড়ছে সৌদি আরামকোর শেয়ারের চাহিদা। তাতে কোম্পানিটির শেয়ারের দাম এখন তুঙ্গে। চলতি বছরে কোম্পানিটির শেয়ারের দাম বেড়েছে ২৭ শতাংশ।

অন্যদিকে যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে প্রযুক্তির কোম্পানিগুলোর শেয়ারে যে বুদ্বুদ তৈরি হয়েছিল, তাতে ধীরে ধীরে মিইয়ে আসতে শুরু করেছে। অন্যদিকে চীনে নতুন করে করোনাভাইরাসের প্রকোপ দেখা দেওয়ায় কোম্পানিটির চিনা প্রকল্পে উৎপাদন ব্যাহত হচ্ছে। তাতে অ্যাপল পণ্যের সরবরাহে বড় ধরনের সমস্যা হতে পারে। সব মিলিয়ে অ্যাপলের শেয়ারে কালো মেঘের ছায়া দেখা যাচ্ছে। গত চার মাসে এর শেয়ারের দাম কমেছে ২০ শতাংশ।

সৌদি আরামকোর শেয়ারের দর বৃদ্ধির বিপরীতে অ্যাপলের শেয়ারের দরপতনে কোম্পানি দুটির বাজারমূলধনের পরিমাণে পরিবর্তন এসেছে। কমেছে অ্যাপলের বাজারমূলধন। অন্যদিকে সৌদি আরামকোর বাজারমূলধন বেড়ে গেছে।

সাম্প্রতি বিশ্ব পরিস্থিতির কারণে বিনিয়োগকারীরা প্রযুক্তি কোম্পানিসহ শিল্প ও সেবা খাতের কোম্পানির শেয়ার বিক্রি করে দিয়ে নিরাপদ অবস্থানে চলে যাচ্ছেন। অন্যদিকে জ্বালানী খাতের কোম্পানিগুলোর মুনাফা আরও বাড়বে এমন আশায় ঝুঁকছেন এসব কোম্পানির শেয়ারে।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
মন্তব্য
Loading...