বিরামপুরে ঈদের নামাজ পড়লেন ১৫ গ্রামের মানুষ

দিনাজপুরের বিরামপুরে সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে দুইটি ইউনিয়নের প্রায় ১৫টি গ্রামের মানুষ ঈদের নামাজ আদায় করেছেন আজ সোমবার (০২ মে)। জামাতে পুরুষের পাশাপাশি নারীরাও নামাজ আদায় করেন।

সোমবার সকাল ৮টায় উপজেলার জোতবানি ইউনিয়নের খয়েরবাড়ি-মির্জাপুর গ্রামের মসজিদে এবং ৮টা ১০মিনিটে আয়ড়া মাদরাসা মাঠে ঈদের জামাত দুটি অনুষ্ঠিত হয়। দুই জামাতে ১৫ গ্রামের প্রায় ১৫০ জন মুসল্লি নামাজ আদায় করেন।

খয়ের বাড়ি জামে মসজিদে মো. দেলোয়ার হোসেন কাজী এবং মাওলানা মাসুম পারভেজ আয়ড়া মাদরাসা মাঠের জামাতের ইমামতি করেন।

জানা গেছে, সময় হওয়ার আগেই দূর-দূরান্তের গ্রামগুলো থেকে কেউ ভ্যানে আবার কেউ সাইকেল বা মোটরসাইকেলে একত্রিত হচ্ছে। বিশৃঙ্খলা এড়াতে বিরামপুর থানা পুলিশের পক্ষ থেকেও নেওয়া হয় নিরাপত্তার ব্যবস্থা। নির্ধারিত সময় সকাল ৮টায় ওই এলাকার মসজিদে মো. দোলোয়ার হোসেন কাজির ইমামতিতে নামাজ শুরু হয়।

সৌদি আরবের সঙ্গে ঈদ উদযাপন করার বিষয়ে জানতে চাইলে খয়ের বাড়ি মসজিদের ইমাম মো. দোলোয়ার হোসেন কাজি বলেন, সৌদি আরবের সঙ্গে বাংলাদেশের সময়ের পার্থক্য মাত্র তিন ঘণ্টা। এই তিন ঘণ্টার ব্যবধানে দিনের পরিবর্তন হয় না। তাই এই নামাজ আদায় করা।

দেলোয়র হোসেন বলেন, ১৯৯৭ সাল থেকে এভাবে নামাজ আদায়ের পরিকল্পনা থাকলেও ২০১৩ সাল থেকে আমরা সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে নামাজ আদায় করছি। তবে গতবারের চেয়ে এবার মুসল্লির সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে।

বিরামপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুমনকুমার মহন্ত বলেন, বিরামপুর উপজেলায় জোতবানি এবং বিনাইল দুটি ইউনিয়নে সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে আগাম ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। এখানে যেকোনো প্রকার বিশৃঙ্খলা এড়াতে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
মন্তব্য
Loading...