সুন্দরবনে পর্যটকবাহী লঞ্চ চলাচলে নিষেধাজ্ঞা

সুন্দরবনে পর্যটকবাহী লঞ্চ চলাচলে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ)। গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় খুলনা নদীবন্দরের বন্দর ও পরিবহন বিভাগের উপপরিচালক মো. আবদুর রাজ্জাক স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে নিষেধাজ্ঞার ঘোষণা দেওয়া হয়েছে।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, করোনাভাইরাসের নতুন ধরন অমিক্রনের সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় খুলনা থেকে সুন্দরবন ভ্রমণ, শিক্ষাসফর, বনভোজন, নৌভ্রমণ ও নৌবিহারে পর্যটকবাহী নৌযান ও লঞ্চগুলো চলাচল সাময়িকভাবে বন্ধ ঘোষণা করা হলো। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত এই নিষেধাজ্ঞা বলবৎ থাকবে।

আবদুর রাজ্জাক জানান, ১০ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী বিআইডব্লিউটিএর প্রধান কার্যালয়ের নির্দেশে এ নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার থেকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত এই নিষেধাজ্ঞা কার্যকর থাকবে।

তবে বিআইডব্লিউটিএর হঠাৎ এমন সিদ্ধান্তে স্থানীয় ট্যুর অপারেটররা বিপাকে পড়েছেন। ভ্রমণের মৌসুমে এই নিষেধাজ্ঞার কারণে তারা আর্থিক ক্ষতির আশঙ্কা করছেন। ট্যুর অপারেটররা বলছেন, তাদের সঙ্গে আলোচনা না করেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এখনো কোনো পর্যটনকেন্দ্র বন্ধ ঘোষণা করা হয়নি। কিছু কিছু ক্ষেত্রে যাত্রী সীমিত করে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। কিন্তু সেগুলো না করে সরাসরি সুন্দরবনের পর্যটকবাহী নৌযান চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

সুন্দরবন ট্যুরিজমের মালিক মো. এনামুল হক বলেন, সাধারণত সাপ্তাহিক ছুটির দিনগুলোতে আগে থেকেই নৌযান বুকিং দেওয়া হয়। যারা বৃহস্পতিবার রাতে সুন্দরবনে যাবেন, তারা ইতিমধ্যে বিভিন্ন জায়গা থেকে খুলনার উদ্দেশে বেরিয়ে পড়েছেন। হঠাৎ এই নিষেধাজ্ঞা জারির পর ট্যুরিস্ট অপারেটরদের মধ্যে একধরনের বিভ্রান্তি সৃষ্টি হয়েছে।

সুন্দরবনে ট্যুর অপারেটরদের সংগঠন ট্যুরিস্ট অপারেটর অ্যাসোসিয়েশন অব সুন্দরবনের সাধারণ সম্পাদক নাজমুল আজম বলেন, আগামী ফেব্রুয়ারির শেষ পর্যন্ত সব ট্যুর অপারেটরের নৌযান বুকিং দেওয়া আছে। অধিকাংশ ট্যুর অপারেটর অগ্রিম টাকা নিয়ে খরচও করে ফেলেছেন। এমন পরিস্থিতিতে তারা কী করবেন, সেটা কেউ বুঝে উঠতে পারছেন না।

নাজমুল আজম বলেন, অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে বিআইডব্লিউটিএর প্রধান কার্যালয়ের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছে। ভ্রমণের ব্যাপারে সরকার এখনো নিষেধাজ্ঞা দেয়নি, সেটা বিআইডব্লিউটিএর কর্মকর্তাদের বোঝানো হয়েছে। অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে নিষেধাজ্ঞা বাতিল চেয়ে বিআইডব্লিউটিএতে একটি চিঠি দেওয়া হয়েছে।

অর্থসূচক/এমএস

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
মন্তব্য
Loading...