শেষ পর্যন্ত নিলামে বিক্রি হলো মাত্র ৫টি গাড়ি

নিলামে ১১২টি বিলাসবহুল গাড়ির জন্য প্রায় ১৭ কোটি টাকা প্রস্তাব করা হয়েছিল। কিন্তু ক্রেতার রিজার্ভ মূল্যের ৬০ শতাংশেরও কম মূল্য প্রস্তাব করায় নিলামকারী বা বন্দর কর্তৃপক্ষ আইনগত বাধ্যবাধকতার কারণে অবশিষ্ট ১০৭টি গাড়ি এখন বিক্রি করতে পারবে না । তাই এসব গাড়ি স্ক্র্যাপ করা ছাড়া এখন আর কোনো উপায় নেই।

বন্দর ইয়ার্ডে ৮ বছর ধরে পরে থাকা এই গাড়িগুলোর বাজার মূল্য প্রায় ২১ মিলিয়ন ডলার বা ১৮০ কোটি টাকা। এছাড়াও সঠিক সময়ে নিলাম না হওয়ায় ইঞ্জিন, ব্যাটারি, চাকা এবং অন্যান্য যন্ত্রাংশ ক্ষতিগ্রস্ত এবং বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই অচল হয়ে পড়েছে। টাকা খরচ করে পাঁচ দফায় বিভিন্ন পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দেওয়ার পরও বিক্রি হচ্ছে না গাড়িগুলো। এর জন্য কাস্টমসের অদক্ষতাকে দায়ী করছেন বিশেষজ্ঞরা।

চট্টগ্রাম কাস্টমস হাউস, তার পঞ্চমবারের প্রচেষ্টায়, কার্নেট ডি প্যাসেজ নামে একটি শুল্কমুক্ত সুবিধা সহ আমদানি করা ১১২টি বিলাসবহুল গাড়ির মধ্যে মাত্র ৫টি বিক্রি করতে সক্ষম হয়েছে।

অন্যদিকে, গত মাসে সর্বশেষ নিলাম থেকে, কাস্টমস কর্তৃপক্ষ জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) কাছে যানবাহনের জন্য দরপত্রের অনুমোদন চেয়েছে।

নিলামে ১১২টি বিলাসবহুল গাড়ির জন্য প্রায় ১৭ কোটি টাকা প্রস্তাব করা হয়েছিল। কিন্তু নিলামকারী আইনগত বাধ্যবাধকতার কারণে অবশিষ্ট ১০৭টি গাড়ি এখন বিক্রি করতে পারবে না কারণ ক্রেতারা রিজার্ভ মূল্যের ৬০% এর কম প্রস্তাব করেছে। তাই এসব গাড়ি স্ক্র্যাপ করা ছাড়া এখন আর কোনো উপায় নেই। রিজার্ভ মূল্য হল একটি সর্বনিম্ন মূল্য যা একজন বিক্রেতা ক্রেতার কাছ থেকে গ্রহণ করতে ইচ্ছুক।

২১ মিলিয়ন ডলার বা ১৮০ কোটি টাকা মূল্যের বিলাসবহুল গাড়িগুলি পৃথক কন্টেইনারে আট বছর ধরে পরে আছে চট্টগ্রাম বন্দর ইয়ার্ডে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, কাস্টমসের অদক্ষতার কারণে সময়মতো যানবাহন নিলাম না হওয়ায় ইয়ার্ডে জায়গা দখলের কারণে শুধু কাস্টমসই আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়েনি, বন্দরের স্বাভাবিক কার্যক্রমও ব্যাহত হয়েছে, যার প্রভাব পড়ছে দেশের সামগ্রিক অর্থনীতিতে।

বন্দর সূত্রে জানা গেছে, চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ গত আট বছরে বন্দর এলাকায় অন্তত ৩৩,৫০০ কনটেইনার হ্যান্ডেল করতে পারত, যেগুলো বিলাসবহুল গাড়িসহ ১১২টি কনটেইনার দখল করে আছে। এতে বন্দরের রাজস্ব আয় হতো প্রায় ৩৭ কোটি টাকা এবং একই সঙ্গে বন্দরে হ্যান্ডলিং কার্যক্রমও বৃদ্ধি পেত।

এদিকে কাস্টমসের এই অদক্ষ ব্যবস্থাপনার কারণে দেশের এত গুরুত্বপূর্ণ শুল্ক স্টেশনে পার্কিং করা গাড়ির সংখ্যা নজিরবিহীন বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।সেজন্য চট্টগ্রাম কাস্টমস হাউসকে আরও আধুনিকায়নের আওতায় আনতে হবে। এসব বিষয়ে কাস্টমসকে আরও দক্ষ করার পরামর্শ দিয়েছেন তারা।

চট্টগ্রাম বন্দরের ৪৯,০১৮ টিইইউ (২০ ফুট সমতুল্য ইউনিট) কন্টেইনার রাখার ক্ষমতা রয়েছে। বন্দরটি বছরে প্রায় ৩ মিলিয়নেরও বেশি কনটেইনার ব্যাবস্থাপনা করছে।

অর্থসূচক/এমআর

 

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
মন্তব্য
Loading...