অপপ্রচারের বিরুদ্ধে সচেতন হওয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা দেশের ব্যাপক উন্নয়নের পরও দেশে-বিদেশে অপপ্রচার চালাচ্ছে এমন লোকজনের বিরুদ্ধে দলের নেতা-কর্মীদের সচেতন হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘এত উন্নয়নের পরও কিছু মানুষ বিদেশে ও দেশে বসে অপপ্রচার করছে। এদের বিরুদ্ধে সচেতন হতে হবে, অপপ্রচারের জবাব দিতে হবে।’

শুক্রবার বিকেলে তাঁর সরকারি বাসভবন গণভবনে আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকের সভাপতিত্বকালে দেওয়া প্রারম্ভিক ভাষণে এসব কথা বলেন তিনি।

আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, বিএনপি-জামায়াতের অপকর্মের কথাগুলো তাঁর দলের নেতা-কর্মীদের জনগণকে অন্তত স্মরণ করিয়ে দেওয়া উচিত, তাদের অত্যাচারের কথা আবারও তুলে ধরা উচিত, কেননা দেশের মানুষ অতীত ভুলে যায়। উন্নয়নশীল দেশ কেন হলাম সেজন্যও দেশের কিছু মানুষ অপপ্রচার করে। এরা কারা, এদের উদ্দেশ্যটা কী?

প্রধানমন্ত্রী গোপন ষড়যন্ত্রের ইঙ্গিত তুলে ধরে বলেন, তথাকথিত বুদ্ধিজীবী শ্রেণির একটি অংশ মিটিং করছেন কি করে আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় না রাখা যায়, কারণ হয়তো এটাই যে, আওয়ামী লীগ দেশের উন্নয়ন করেছে। তিনি বলেন, ‘জনগণের শক্তিই আওয়ামী লীগের শক্তি। আমরা জনগণের সেবায় পরিকল্পিতভাবে কাজ করে যাচ্ছি বলেই দেশের উন্নয়ন হচ্ছে।’

সরকারপ্রধান বলেন, বাংলাদেশ এখন বিশ্বে মর্যাদাপূর্ণ অবস্থানে পৌঁছে গেছে। আমরা জনগণের কল্যাণে কাজ করছি। উন্নয়নের ছোঁয়া গ্রাম পর্যন্ত পৌঁছে গেছে। সব শ্রেণি- পেশার মানুষ উন্নয়নের ছোঁয়া পেয়েছে। তিনি প্রশ্ন তোলেন, ‘বিএনপিকে কোন আশায় মানুষ ভোট দেবে? পলাতক আসামি যে দল চালায় তাদের কী আশায় ভোট দেবে?’

তারেক রহমানকে উদ্দেশ করে তিনি বলেন, ‘এরা দেশের গরিবের টাকা লুট করে বিদেশে পাচার করেছে। বিদেশে বসে আরাম আয়েশে আছে। এই আয়ের উৎস কী?’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, এত গাড়ি-বাড়ি, ড্রাইভার, শান-শওকত কোথা থেকে আসে? বাংলাদেশের মানুষের টাকা লুট করেই তো তারা বিত্তশালী। নইলে জিয়াউর রহমান মারা যাওয়ার পর তো দেখাল তার কাছে ভাঙা স্যুটকেস আর ছেড়া গেঞ্জি ছাড়া কিছুই নেই। তিনি ইউটিউব চ্যানেলে তাদের সেই সময়কার ভিডিওগুলোও দেখার পরামর্শ দেন।

শেখ হাসিনা দেশের সুবিধাভোগী স্বার্থান্বেষী মহলের সমালোচনা করে বলেন, কিছু মানুষ আছে যারা হাজার অপরাধকারীকে অপরাধী হিসেবে দেখে না। দুর্নীতির বিরুদ্ধে কথা বললেও তারা দুর্নীতির জন্য সাজাপ্রাপ্তদের পক্ষ নেয়, জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে কথা বললেও সন্ত্রাসী ও জঙ্গিবাদের মদদতাতাদের বিরুদ্ধে কথা বলে না। যারা হাজার হাজার কোটি টাকা বিদেশে পাচার করেছে, এতিমের টাকা আত্মসাৎ করে সাজাপ্রাপ্ত হয়েছে এদের জন্য তারা মায়াকান্না করে। দেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্টের অপচেষ্টাকারী চক্রকেও তদন্তে তাঁর সরকার চিহ্নিত করেছে উল্লেখ করে বিচারাধীন বিষয় হওয়ায় এ বিষয়ে আর বেশি কিছু বলতে রাজি হননি প্রধানমন্ত্রী।

‘খালেদা জিয়ার টার্গেট সবসময় তিনি’- এ কথা উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘খালেদা জিয়া ঘোষণা দিয়েছিলেন, আমি প্রধানমন্ত্রী কেন বিরোধীদলীয় নেতাও হতে পারব না, শত বছরেও ক্ষমতায় আসতে পারব না। এসব ঘোষণার পরই গ্রেনেড হামলা হয়েছিল।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা সামরিক শাসক জিয়াউর রহমান, তাঁর স্ত্রী খালেদা জিয়া ও আরেক সামরিক শাসক এইচ এম এরশাদ ক্ষমতায় থেকে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে যারা পরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছিল তাদের পুরস্কৃত করেছিল। যা তাদের জড়িত থাকারই সাক্ষ্য বহন করে।

শেখ হাসিনা বলেন, খালেদা জিয়া, এরশাদ এবং জিয়াউর রহমান কীভাবে এই খুনিদের (বঙ্গবন্ধুর খুনিদের) মদদ দিয়েছে আমার মনে হয় এই কথাটা জাতির জানা উচিত। কারণ এই খুনিরা আমার ভাই ১০ বছরের ছোট রাসেলকেও ছাড়েনি বা চার বছরের শিশু সুকান্তকেও ছাড়েনি। যারা পরিকল্পিতভাবে এই হত্যাকাণ্ড করেছিল তাদেরকেই তারা পুরস্কৃত করেছিল।

পরবর্তী সময়ে আমরা বারবার দেখেছি যে, আঘাত তারা বারবার হেনেছে- উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এমনকি ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা, আইভি রহমানসহ আমাদের ২২ জন নেতাকর্মী শাহাদতবরণ করে। আর এখানেই থামেনি আমাদের বহু ছাত্রলীগের নেতাকর্মীসহ অনেকেই সেই সময় তাদের হাতে নিহত হয়। জাতির পিতাকে হত্যার পর তাঁর খুনিদের রক্ষায় তৎকালীন সরকার ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ জারি করেছিল এবং খুনিদের বিভিন্ন দূতাবাসে চাকরি দিয়ে পুরস্কৃত করেছিল বলেও জানান শেখ হাসিনা।

জাতির পিতার খুনিদের কীভাবে পুরস্কৃত করা হয়েছিল সেই কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, আমরা দেখেছি জিয়ার আমলে তাদের যেমন পুরস্কৃত করা হয়, এরশাদের আমলে তাদের রাজনীতি করার সুযোগ দেওয়া হয়; এমনকি রাষ্ট্রপতি প্রার্থী হওয়ার সুযোগ করে দেওয়া হয়েছিল কর্নেল ফারুককে। খালেদা জিয়া এসে তার থেকে আরও এক ধাপ উপরে উঠে খুনি রশীদকে ১৫ ফেব্রুয়ারির নির্বাচন, যেই নির্বাচন ভোটারবিহীন নির্বাচন, মানুষের কাছে গ্রহণযোগ্য ছিল না সেই নির্বাচনে ভোট চুরি করে কর্নেল রশীদকে এবং মেজর হুদাকে পার্লামেন্টে সদস্য করে এনে বসায় এবং কর্নেল রশীদকে বিরোধী দলের চেয়ারে বসায়।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতার আরেক খুনি মেজর পাশা বিদেশে জিয়াউর রহমানের দেওয়া একটা কূটনৈতিক দায়িত্বে ছিল। ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ সরকারে এসে ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ বাতিল করে জাতির পিতার হত্যার বিচার শুরু করলে পাশাকে চাকুরিচ্যুত করা হয়। পরে সে বিদেশেই থেকে যায় এবং সেখানে মারা যায়। ২০০১ সালে খালেদা জিয়া সরকারে এসে মেজর পাশার চাকুরিচ্যুত অবস্থার পরিবর্তন করে তাকে অবসর দেয় এবং অবসর দিয়ে তার সমস্ত টাকা, পয়সা, বেতনভাতা সব ফিরিয়ে দেয় এবং সেই মৃত ব্যক্তিকে পদোন্নতিও দেয়।

তিনি আরও বলেন, আরেক আসামি খায়রুজ্জামানের বিচার চলছিল এবং বিচারের রায় প্রদানের তারিখ ঘোষণা হয়েছিল সেই সময় খালেদা জিয়া ক্ষমতায় এসে তাকে দেশে ফিরিয়ে এনে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে চাকরি দেয়। এমনকি একটা দেশে তাকে রাষ্ট্রদূত হিসেবেও পদোন্নতি দিয়ে পাঠায়।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নির্মমভাবে হত্যা করার পর দেশের অরাজকতার সার্বিক চিত্র তুলে ধরে আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, ৭৫-এর পর বাংলাদেশে ১৯টা সামরিক ক্যু হয়। আর তার ফলাফল হয় সামরিক বাহিনীর অনেক সদস্য, অফিসার, সৈনিক তাদেরও নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছে। কারণ একেকটা ক্যু হয়েছে এবং সেই ক্যুর অপরাধ ধরে নিয়ে কোর্ট মার্শাল করা হয়েছে, ফায়ারিং স্কোয়াডে দেওয়া হয়েছে এবং ফাঁসি দিয়ে হত্যা করা হয়েছে।

সেই সময়ে যাদের নির্বিচারে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছিল তাদের স্বজনরা এখন সেসব হত্যাকাণ্ডের বিচার দাবি করছে উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, জিয়াউর রহমান ক্ষমতায় এসেই এই ঘটনাগুলো ঘটায়। কাজেই তাদের দাবি যে, এরও একটা তদন্ত হোক এবং সেই লাশগুলো তারা কেন পেল না। এটা বাংলাদেশের জন্য একটা দুর্ভাগ্যজনক বিষয় বলেও উল্লেখ করেন সরকারপ্রধান। বাসস

অর্থসূচক/এএইচআর

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •   
  •