প্রথমবারের মতো মালদ্বীপের পথে উড়ল ইউএস-বাংলা

ঢাকা থেকে মালদ্বীপের রাজধানী মালেতে সরাসরি ফ্লাইট পরিচালনা শুরু করেছে বেসরকারি বিমানপরিবহন সংস্থা ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স। দশম আন্তর্জাতিক রুট হিসেবে ইউএস-বাংলার বিমান বহরে দক্ষিণ এশিয়ার অন্যতম গন্তব্য মালে অন্তর্ভুক্ত হলো। শুক্রবার (১৯ নভেম্বর) সকালে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের অভ্যন্তরীণ টার্মিনাল ভবনে ফিতা কেটে আনুষ্ঠানিকভাবে ফ্লাইটটির কার্যক্রম উদ্বোধন করা হয়।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বেসামরিক বিমান চলাচল ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী। বিশেষ অতিথি ছিলেন ওই মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মোকাম্মেল হোসেন, মালদ্বীপের হাইকমিশনার শীরুজিমাথ সামির ও বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের সদস্য (পরিচালন ও পরিকল্পনা) এয়ার কমোডর সাদিকুর রহমান চৌধুরী। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মামুন।

করোনাকালীন সব ধরনের স্বাস্থ্যবিধি মেনে দু-দেশের রাষ্ট্রীয় সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স ঢাকা থেকে মালে ফ্লাইট পরিচালনা শুরু করেছে। ১৬৪ আসনের বোয়িং ৭৩৭-৮০০ এয়ারক্রাফট দিয়ে উদ্বোধনী ফ্লাইট পরিচালনা করা হয়।

প্রাথমিকভাবে সপ্তাহে তিনদিন (মঙ্গল, শুক্র ও রোববার) ঢাকা থেকে সরাসরি মালে ফ্লাইট পরিচালিত হবে। ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের ফ্লাইট প্রতি মঙ্গলবার ঢাকা থেকে সকাল ১১টা ১০ মিনিটে মালের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাবে। স্থানীয় সময় দুপুর ২টা ৩৫ মিনিটে ফ্লাইটটি মালেতে অবতরণ করবে। একই দিন বিকাল ৩টা ৩৫ মিনিটে মালে থেকে উড্ডয়ন করে রাত ৮টা ৩৫ মিনিটে ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করবে।

এছাড়া প্রতি শুক্রবার ঢাকা থেকে সকাল ১০টা ৪৫ মিনিটে যাবে এবং স্থানীয় সময় দুপুর ২টা ১৫ মিনিটে মালেতে অবতরণ করবে। একই দিন বিকাল ৩টা ১৫ মিনিটে মালে থেকে ছেড়ে আসবে এবং রাত ৮টা ১৫ মিনিটে ঢাকায় অবতরণ করবে। এছাড়াও প্রতি রোববার ঢাকা থেকে সকাল ৯টা ৩০ মিনিটে উড্ডয়ন করে স্থানীয় সময় দুপুর ১২টা ৫০ মিনিটে মালেতে অবতরণ করবে। একই দিন দুপুর ১টা ৫৫ মিনিটে মালে থেকে উড্ডয়ন করে সন্ধ্যা ৬টা ৫৫ মিনিটে ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করবে।

প্রাথমিকভাবে ঢাকা-মালে রুটে সব প্রকার ট্যাক্স ও সারচার্জসহ ওয়ানওয়ের ন্যূনতম ভাড়া ২৯ হাজার ৫০৮ টাকা। এছাড়া রিটার্ন ভাড়া ৪৫ হাজার ৫৪৫ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে ।

এছাড়া মালদ্বীপ ভ্রমণে ইউএস-বাংলা হলিডে প্যাকেজও ঘোষণা করেছে। ইউএস – বাংলা এয়ারলাইন্সের বিমান বহরে চারটি বোয়িং ৭৩৭-৮০০ ও সাতটি ব্র্যান্ডনিউ এটিআর ৭২-৬০০ সহ মোট ১৪টি এয়ারক্রাফট রয়েছে। ভ্রমণ পিপাসু বাংলাদেশি পর্যটক ও মালদ্বীপে অবস্থানরত প্রবাসী বাংলাদেশিদের বহুদিনের প্রত্যাশা পূরণ করেছে দেশের বৃহৎ বেসরকারি এয়ারলাইন্স ইউএস-বাংলা।

ঢাকা-মালে রুটের ফ্লাইট উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বেসামরিক বিমান চলাচল ও পর্যটন মন্ত্রণালয় এবং বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা, বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি এয়ারলাইন্সের কর্মকর্তা, ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের কর্মকর্তারাসহ বিভিন্ন প্রিন্ট, ইলেকট্রনিক ও অনলাইন মিডিয়ার সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।

অর্থসূচক/এমএস