কানাডিয়ান বিনিয়োগ বাড়াতে বাণিজ্যমন্ত্রীর আহ্বান

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বাংলাদেশের শিক্ষা খাতে কানাডিয়ান বিনিয়োগ ও কারিগরি সহযোগিতা
বাড়ানোর আহ্বান জানিয়েছেন। এসময় কানাডা সরকারের প্রতিনিধি জানায়, বাংলাদেশের বিষয়ে কানাডা বেশ আগ্রহী।

কানাডার সাসকাটসিওয়া প্রভিন্স সরকারের ট্রেড অ্যান্ড এক্সপোর্ট ডেভেলপমেন্ট মিনিস্টার জেরিমে হেরিসন এবং কৃষিমন্ত্রী ডেভিড মেরিটের সঙ্গে আনুষ্ঠানিক বৈঠকের সময় তিনি এ আহ্বান জানান। আজ শনিবার ( ০৬ নভেম্বর) বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

টিপু মুনশি বলেন, ‘বাংলাদেশের অনেক ছাত্রছাত্রী কানাডায় শিক্ষা গ্রহণ করছেন। এই শিক্ষা কার্যক্রম আরও সহজ করতে কানাডা বাংলাদেশেই শিক্ষা ও কারিগরি সহযোগিতা বৃদ্ধি করতে পারে। কৃষিক্ষেত্রেও কানাডা গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখতে পারে।’

এ সময় দুই দেশের সম্পর্ক এবং দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য উন্নয়নের সম্ভাবনার কথা উল্লেখ করে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘কানাডা বাংলাদেশের বন্ধুরাষ্ট্র। উভয় দেশের ব্যবসা-বাণিজ্য এবং অর্থনৈতিক সম্পর্ক দীর্ঘদিনের। উভয় দেশের ব্যবসা-বাণিজ্য এবং বিনিয়োগ বৃদ্ধির প্রচুর সুযোগ রয়েছে। বাংলাদেশ এখন বিনিয়োগের জন্য আকর্ষণীয় লাভজনক স্থান। সরকার দেশি-বিদেশি বিনিয়োগকারীদের জন্য প্যাকেজ সুযোগ-সুবিধা দিচ্ছে।’

তিনি জানান, ‘বিনিয়োগের আনুষ্ঠানিকতা সহজ করা হয়েছে। ওয়ান স্টপ সার্ভিসের মাধ্যমে বিনিয়োগকারীদের সেবা দেয়া হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্যোগে দেশের গুরুত্বপূর্ণ স্থানে এক শ স্পেশাল ইকোনমিক জোন গড়ে তোলার কাজ দ্রুত এগিয়ে চলছে। ইতোমধ্যে বেশ কয়েকটিতে কার্যক্রম শুরু হয়েছে। এসব ইকোনমিক জোনে পৃথিবীর অনেক দেশ ইতোমধ্যে বিনিয়োগ করেছে। অনেক দেশের প্রতিষ্ঠান বিনিয়োগের জন্য এগিয়ে এসেছে। কানাডার বিনিয়োগকারীরা বাংলাদেশে বিনিয়োগ করলে লাভবান হবেন এবং সরকার প্রয়োজনীয় সব ধরনের সহযোগিতা করবে বলে কানাডার মন্ত্রীদের আশ্বস্ত করেন টিপু মুনশি।’

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশ সরকারের বিনিয়োগবান্ধব নীতি দেশি-বিদেশি বিনিয়োগকারীদের আকৃষ্ট করতে সক্ষম হয়েছে। কানাডার বিনিয়োগ এবং প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে উভয় দেশের ব্যবসা-বাণিজ্য বাড়ানো সম্ভব।’

বৈঠকে কানাডার প্রতিনিধিদল বাংলাদেশের উন্নয়নের প্রশংসা করেন। তারা বলেন, বাংলাদেশের বিনিয়োগ নীতি এবং পরিবেশ বেশ ভালো। বাংলাদেশের সঙ্গে কানাডা ব্যবসা-বাণিজ্য এবং বিনিয়োগ বৃদ্ধির চেষ্টা করছে। বাংলাদেশের বিষয়ে কানাডা বেশ আগ্রহী।

বৈঠকে অন্যান্যের মধ্যে সাসকাটসিওয়া প্রভিন্স সরকারের ডেপুটি ট্রেড অ্যান্ড এক্সপোর্ট ডেভেলপমেন্ট মিনিস্টা জোডি ব্যাংক, গ্লোবাল ইনস্টিটিউট অফ ফুড সিকিউরিটির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা স্টিফেন ভিসচার, বাণিজ্যমন্ত্রীর সফরসঙ্গী বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (রফতানি) মো. হাফিজুর রহমান, কানাডার ওটটাওয়া বাংলাদেশ হাইকমিশনের কাউন্সিলর (বাণিজ্য) সাকিল মাহমুদ এবং বাণিজ্যমন্ত্রীর সফরসঙ্গীরা উপস্থিত ছিলেন।