দেশ ও দেশের বাইরে জিহাদে প্রস্তুত ছিলেন নাবিলা: সিটিটিসি

নিজস্ব প্রতিবেদক

0
224

নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন আনসার আল ইসলামের প্রশিক্ষিত এক নারী সদস্যকে গ্রেফতার করেছে পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিট। জোবায়দা সিদ্দিকা নাবিলা নামে ওই নারী সদস্য উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থী ছিলেন।

সিটিটিসির দাবি, গ্রেফতার নাবিলা জঙ্গি সংগঠন আনসার আল ইসলামের প্রথম প্রশিক্ষিত নারী সদস্য। এর আগে এই সংগঠনের কোনো প্রশিক্ষিত নারী সদস্য আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে গ্রেফতার হয়নি।

নাবিলা আনসার আল ইসলামের হয়ে মিডিয়া শাখা অর্থাৎ জঙ্গিবাদের প্রচার প্রচারণার দায়িত্ব পালন করতেন। তবে তার সামরিক শাখার সঙ্গে যোগাযোগ ছিল। তিনি সংগঠনের একজন প্রশিক্ষিত সদস্য। দেশ ও দেশের বাইরে যে কোনো সময় জিহাদ করার জন্য তিনি প্রস্তুত ছিলেন। সেই লক্ষ্যেই নিজেকে মানসিকভাবে প্রস্তুত করতে সহিংস বিভিন্ন ভিডিও দেখতেন ও শেয়ার করতেন।

আজ রোববার (২৯ আগস্ট) দুপুরে রাজধানীর মিন্টো রোডে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান সিটিটিসি ইউনিটের প্রধান অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার মো. আসাদুজ্জামান।

তিনি বলেন, নাবিলা ২০২০ সালের প্রথম দিকে নাম-পরিচয় গোপন করে ছদ্মনামে একটি ফেইক ফেসবুক অ্যাকাউন্ট খোলেন। একসময় ফেসবুকে আনসার আল ইসলামের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজ ‘তিতুমীর মিডিয়া’র খোঁজ পান। তখন তিনি এই পেজে যুক্ত হয়ে আনসার আল ইসলামের বিভিন্ন উগ্রবাদী ভিডিও ও অডিও আর্টিকেল সম্পর্কে জ্ঞান লাভ করেন এবং তাদের মতাদর্শকে লালন করেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে তার ‘তিতুমীর মিডিয়া’র পেজের অ্যাডমিনের সঙ্গে যোগাযোগ হয়। পরে ওই পেজের অ্যাডমিন উগ্রবাদী জিহাদি কনটেন্ট সংবলিত আনসার আল ইসলামের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটের লিংক তাকে পাঠান। এরপর ওই নারী আনসার আল ইসলামের সব অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে ও তাদের উগ্রবাদী মতাদর্শ কঠোরভাবে লালন করেন। তাদের মতাদর্শ সবার সঙ্গে ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য অনলাইন মিডিয়া প্লাটফর্ম বেছে নেন নাবিলা। এরই ধারাবাহিকতায় সে ফেসবুক, টেলিগ্রাম ও ‘Chirpwire’ নামের অনলাইন প্লাটফর্মগুলোতে বিভিন্ন ছদ্মনামে একাধিক অ্যাকাউন্ট খোলেন।

আসাদুজ্জামান বলেন, প্রাথমিক তদন্তে জঙ্গিবাদী প্রচারণার জন্য দুটি ফেইক ফেসবুক অ্যাকাউন্ট, একটি ‘Chirpwire’ ও চারটি টেলিগ্রাম অ্যাকাউন্টের তথ্য পাওয়া যায় নাবিলার। তিনি ফেসবুকে ফেইক অ্যাকাউন্ট দিয়ে ব্যাপকহারে আনসার আল ইসলামের উগ্রবাদী সহিংস মতাদর্শ প্রচার, বিভিন্ন উগ্রবাদী প্রচারণাকারী আইডির সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ এবং নানা কর্মপরিকল্পনা নিয়ে আলোচনা করতেন। নাবিলা আনসার আল ইসলামের মতাদর্শ প্রচারের জন্য ব্যাপকভাবে টেলিগ্রাম মাধ্যম ব্যবহার করতেন। টেলিগ্রাম ব্যবহার করে চারটি অ্যাকাউন্ট এবং সেই টেলিগ্রাম অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে ১৫টির বেশি চ্যানেল ব্যবহার করতেন জঙ্গি প্রচারণায়।

তিনি আরও বলেন, এসব চ্যানেলে নাবিলা আনসার আল ইসলামের বিভিন্ন উগ্রবাদী সহিংস ভিডিও, অডিও, ছবি ও ফাইল শেয়ার করতেন। তার নিজের সবগুলো টেলিগ্রাম চ্যানেল মিলে আনুমানিক ২৫ হাজার সাবস্ক্রাইবার আছে, যারা নিয়মিত তার চ্যানেলগুলো অনুসরণ করে। গ্রেফতার নাবিলা তার টেলিগ্রাম চ্যানেলগুলোতে ‘জিহাদ কেন প্রয়োজন’, Kitabul Jihad, ‘একাকী শিকারি লন উলফ’, ‘স্নিপার সেলগুলোতে গোয়েন্দাদের অনুপ্রবেশ ও প্রতিরোধের উপায়’, ‘নীরবে হত্যার কৌশল’, ‘পুলিশ শরীয়তের শত্রু’, Lone_wolf-balakot-media-hq’, ‘আল আনসার ম্যাগাজিন ইস্যু’, ‘জিহাদের সাধারণ দিক নির্দেশনা’, ‘তাগুতের শাসন থেকে মুক্তির ঘোষণা’ ছাড়া আরও অসংখ্য উগ্রবাদী সহিংস জিহাদি প্রচারণার বই বিভিন্ন সময় আপলোড করতেন।

সিটিটিসি প্রধান আরও বলেন, নাবিলা নিজে আনসার আল ইসলামের বিভিন্ন অফিসিয়াল ও আন-অফিসিয়াল চ্যানেলে যুক্ত ছিলেন। সেই চ্যানেলে আইডি ও আগ্নেয়াস্ত্র তৈরি করা এবং বিভিন্ন হামলায় কৌশলগত বিষয়ে ভিডিও এবং ফাইল শেয়ার করতেন। এই নারী আনসার আল ইসলামের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট থেকে ‘Chirpwire’-এ অ্যাকাউন্ট খোলার নির্দেশনা পেয়ে সেখানেও অ্যাকাউন্ট খুলে উগ্রবাদী প্রচারণা চালাতেন। জিহাদের ময়দানে অংশগ্রহণের জন্য নিজেকে মানসিকভাবে প্রস্তুত করেন নাবিলা। এমনকি সাম্প্রতিক সময়ে তার বিয়ের কথাবার্তা চললে তিনি ছেলেপক্ষকে জানান, জিহাদের ময়দানে ডাক এলে তিনি সামনের সারিতে থাকবেন। এমনকি শহীদি মৃত্যু এলেও পিছু হটবেন না এবং ছেলে (পাত্র) এরূপ মতাদর্শের না হলে সে বিয়ে করবেন না।

এর আগে আনসার আল ইসলামের কোনো নারী সদস্য গ্রেফতার হয়েছে কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে আসাদুজ্জামান বলেন, আনসার আল ইসলামের কোনো নারী সদস্য গ্রেফতার হওয়ার তথ্য আমাদের কাছে নেই। নিষিদ্ধ সংগঠনটির এই প্রথম কোনো নারী সদস্যকে গ্রেফতার করেছে সিটিটিসি। আনসার আল ইসলামের সর্বোচ্চ পর্যায়ের সঙ্গে তার যোগাযোগ ছিল।

মেয়ের নিষিদ্ধ সংগঠনে জড়িয়ে পড়া নিয়ে গ্রেফতার নাবিলার পরিবারের ভূমিকা কী ছিল, এমন প্রশ্নে আসাদুজ্জামান বলেন, পরিবার চেষ্টা করেছিল তাকে জঙ্গিবাদ থেকে দূরে সরিয়ে আনতে। কিন্তু পারেনি। পরিবারের অমতেই তিনি এক আত্মীয়ের বাড়িতে বেড়ানোর কথা বলে বেরিয়ে পড়েন।

যেকোনো জায়গায়, যেকোনো দেশে জিহাদ করার প্রস্তুতি ছিল নাবিলার- সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এমন তথ্যও জানান সিটিটিসিপ্রধান।

অর্থসূচক/কেএসআর