সাবেক এসপি বাবুলের জামিন নামঞ্জুর

চট্টগ্রামের চাঞ্চল্যকর ঘটনা মিতু হত্যা মামলায় তার স্বামী পুলিশের সাবেক পুলিশ সুপার (এসপি) বাবুল আক্তারের জামিন আবেদন নামঞ্জুর করেছেন আদালত। বুধবার (১৮ আগস্ট) চট্টগ্রাম মহানগর দায়রা জজ শেখ আশফাকুর রহমানের আদালত শুনানি শেষে এ আদেশ দেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পাঁচলাইশ থানার আদালতের সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা (জিআরও) শাহীন ভূঁইয়া।

তিনি বলেন, ‘মিতু হত্যাকাণ্ডে দায়ের হওয়া নতুন মামলায় বাবুল আক্তারের আইনজীবী জজ কোর্টে জামিন আবেদন করেন। শুনানি শেষে আদালত নামঞ্জুর করেছেন।’

বাবুল আক্তারের আইনজীবী আজমল হুদা বলেন, ‘গত ১০ আগস্ট ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টে আমার মক্কেল বাবুল আক্তারের জামিন শুনানি হয়েছিল। আদালত জামিন নামঞ্জুর করলে ১৩ আগস্ট আবার জজ কোর্টে জামিন আবেদন করা হয়। সেই আবেদনের আজ (বুধবার) শুনানির জন্য ধার্য্য ছিল। আদালত শুনানি শেষে আবার জামিন নামঞ্জুর করেছেন। আমরা এখন হাইকোর্টে জামিন আবেদন করবো।’

জানা গেছে, ২০১৬ সালের ৫ জুন সকালে চট্টগ্রাম নগরীর নিজাম রোডে ছেলেকে স্কুলবাসে তুলে দিতে যাওয়ার পথে দুর্বৃত্তদের গুলি ও ছুরিকাঘাতে খুন হন মাহমুদা খানম মিতু। ওই সময় এ ঘটনা দেশজুড়ে ব্যাপক আলোচিত হয়। ঘটনার সময় মিতুর স্বামী পুলিশ সুপার বাবুল আক্তার অবস্থান করছিলেন ঢাকায়। ঘটনার পর চট্টগ্রামে ফিরে তৎকালীন পুলিশ সুপার ও মিতুর স্বামী বাবুল আক্তার পাঁচলাইশ থানায় অজ্ঞাতনামাদের আসামি করে একটি হত্যা মামলা করেন।

তবে বাবুল আক্তারের দায়ের করা মামলায় স্ত্রী হত্যাকাণ্ডে তারই সম্পৃক্ততা পায় পিবিআই। গত ১২ মে আগের মামলায় চূড়ান্ত প্রতিবেদন জমা দেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা। একইদিন বাবুল আক্তারকে প্রধান আসামি করে চট্টগ্রাম নগরের পাঁচলাইশ থানায় মামলা দায়ের মিতুর বাবা সাবেক পুলিশ পরিদর্শক মোশাররফ হোসেন।

বাবুল আক্তার ছাড়াও ওই মামলার বাকি সাত আসামি হলেন- মো. কামরুল ইসলাম সিকদার ওরফে মুসা (৪০), এহতেশামুল হক ওরফে ভোলাইয়া (৪১), মো. মোতালেব মিয়া ওরফে ওয়াসিম (২৭), মো. আনোয়ার হোসেন (২৮), মো. খায়রুল ইসলম ওরফে কালু (২৮), সাইদুল ইসলাম সিকদার (৪৫) ও শাহজাহান মিয়া (২৮)।

অর্থসূচক/এমএস

  
    

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.