স্টাইলক্রাফটের কারখানায় শ্রমিক অসন্তোষের অবসান

0
207

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত বস্ত্র খাতের কোম্পানি স্টাইলক্রাফট লিমিটেডের কারখানায় দীর্ঘদিনের শ্রমিক অসন্তোষ এবং অচলাবস্থার অবসান হচ্ছে। আগামী ২৫ আগস্ট গাজীপুরে অবস্থিত কোম্পানির কারখানা ফের চালু হবে।

গতকাল বুধবার (১১ আগস্ট) রাতে সচিবালয়ে শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ানের সভাপতিত্বে মালিক-শ্রমিক এবং সরকার ত্রিপক্ষীয় জরুরি সভায় দীর্ঘ আলোচনা শেষে এ সিদ্ধান্ত ঘোষণা দেওয়া হয়।

উল্লেখ, গত কয়েক মাস ধরে স্টাইলক্রাফট লিমিটেড এবং একই মালিকদের অপর পোশাক কারখানা ইয়ং ওয়ান বিডি লিমিটেডে শ্রমিক অসন্তুষ চলছে। কারখানা দুটির শ্রমিকদের ঠিকমতো বেতন-ভাতা দেওয়া হচ্ছে না বলে অভিযোগ রয়েছে। গত জুলাই মাসের মাজামাঝি স্টাইল ক্রাফটের শ্রমিকরা বকেয়া বেতন ও ঈদ বোনাসের দাবি টানা চারদিন বিক্ষোভ করে এবং ঢাকা-জয়দেবপুর সড়কে অবস্থান নিয়ে যান চলাচল বন্ধ করে দেয়। পরে প্রশাসনের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে।

এই পরিস্থিতিতে বুধবার রাতে সচিবালয়ে শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ানের সভাপতিত্বে মালিক-শ্রমিক এবং সরকার ত্রিপক্ষীয় বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বৃহস্পতিবার (১২ আগস্ট) মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানানো হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, শ্রম প্রতিমন্ত্রীর ঐকান্তিক প্রচেষ্টা এবং মালিক-শ্রমিক প্রতিনিধিদের আন্তরিকতায় গাজীপুরের ঐতিহ্যবাহী এ পোশাক কারখানার দীর্ঘদিনের অচলাবস্থার অবসান হলো। আলোচনার মাধ্যমে একটি সফল সিদ্ধান্তে শ্রমিক-মালিক উভয় পক্ষই সন্তোষ প্রকাশ করেন।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, এর মাধ্যমে গার্মেন্টস শিল্পের ঐতিহ্যবাহী কারখানা প্রাণ ফিরে পাবে। দ্রুতই একই মালিকানাধীন পাবলিক লিমিটেড কারখানা দুটি পোশাক রফতানিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখতে পারবে বলে আলোচনায় অংশ নেওয়া সকলেই আশা প্রকাশ করেন।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আগামী ২৫ আগস্ট কারখানা খুলে দেওয়া হবে। এদিন শ্রমিক এবং কর্মচারীদের জুন মাসের বেতন দেওয়া হবে। একই সাথে কর্মচারীদের ২০২০ সালের ডিসেম্বর মাসের বকেয়া বেতন এবং শ্রমিক ও কর্মচারীদের গত ঈদুল আজহার বোনাস দেওয়া হবে।

এতে আরও জানানো হয়, আগামী ৫ সেপ্টেম্বর কর্মচারীদের ২০২০ সালের নভেম্বর মাসের বেতন এবং ২৫ সেপ্টেম্বর শ্রমিক ও কর্মচারীদের জুলাই মাসের বেতন দেওয়া হবে। ২০ অক্টোবর দেওয়া হবে শ্রমিক ও কর্মচারীদের আগস্ট মাসের বেতন এবং কর্মচারীদের মার্চ মাসের বকেয়া বেতন। সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এভাবে প্রতি মাসে ৫ দিন করে এগিয়ে শ্রমিক ও কর্মচারীদের বেতন-ভাতা নিয়মিত করবেন কারখানা কর্তৃপক্ষ।