ফেরি থেকে নামতে গিয়ে মা হারালো কিশোর, বাবা হারিয়েছে অনেক আগেই

নিজস্ব প্রতিবেদক

0
112

মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া ঘাট থেকে যাত্রী নিয়ে মাদারীপুরের বাংলাবাজার ঘাটে নামার সময় হুড়োহুড়িতে ৬ জন মারা গেছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন প্রায় অর্ধশতাধিক। বুধবার (১২ মে) দুপুরে শাহ পরান ও এনায়েতপুরী নামের দুটি ফেরিতে এ দুর্ঘটনা ঘটে। এ সময় এনায়েতপুরীতে ৫ জন আর শাহ পরানে ১ জন মারা যান।

এই ঘটনায় ৬ জনের মধ্যে ২ জনের পরিচয় মিলেছে। এদের মধ্যে একজন হলেন নিপা। তিনি ঢাকার নারায়ণগঞ্জ থাকেন। আজ ফরিদপুরের উদ্দেশে রওনা দেন এনায়েতপুরী ফেরিতে।

নিপার সন্তান বলেন, ফেরিতে অনেক লোক ছিলে এবং গরম ছিলে। সেখান থেকে আমার মা নামার সময়ে পদদলিত হয়ে মায়ের মৃত্যু ঘটে। অনেক দিন আগে বাবা মারা গিয়েছে।

এর আগে, ৩ নম্বর ফেরিঘাটে শাহ পরান নামের রোরো ফেরিটি ভিড়লে নামার সময় যাত্রীদের চাপে আনছার মাদবর নামের এক কিশোর যাত্রীদের চাপে অসুস্থ হয়ে ফেরির পন্টুনেই মারা যায়। তার বাড়ি শরীয়তপুরের নড়িয়া উপজেলার কালিকাপ্রসাদ গ্রামে।

শিবচর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিরাজ হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, বুধবার (১২ মে) বেলা ১১টার দিকে ৩ নম্বর ফেরিঘাটে শাহ পরান নামের রোরো ফেরিটি ভিড়লে নামার সময় যাত্রীদের চাপে আনছার মাদবর নামের এক কিশোর যাত্রীদের চাপে অসুস্থ হয়ে ফেরির পন্টুনেই মারা যায়। তার বাড়ি শরীয়তপুরের নড়িয়া উপজেলার কালিকাপ্রসাদ গ্রামে।

অর্থসূচক/এমএস