বর্ষপূর্তির দিনে করোনা শনাক্ত ও মৃত্যুতে ব্যাপক উল্লম্ফন

ঠিক এক বছর আগে ২০২০ সালের ৮ মার্চ সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট প্রথমবারের মতো জানায়, বাংলাদেশে দুজন পুরুষ ও একজন নারী করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। সে হিসাবে আজ দেশে করোনা শনাক্তের এক বছর পূর্তি হচ্ছে। বছর শেষে গত ২৪ ঘণ্টায় হঠাৎ করেই বেড়ে গেছে নতুন রোগী শনাক্ত ও মৃত্যু।

বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ভ্যাকসিন প্রদান শুরু হওয়ায় করোনার প্রকোপ এখন নিম্নমুখী। বাংলাদেশেও বিগত বেশ কিছুদিন ধরে নতুন রোগী শনাক্ত ও মৃত্যু কমেছে। তবে গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে নতুন রোগী শনাক্ত ও মৃত্যু উভয়ই বেশ বেড়েছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ৮৪৫ জন নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে। আগের সাত দিনে দেশে যথাক্রমে ৬০৬, ৫৪০, ৬৩৫, ৬১৯, ৬১৪, ৫১৫ ও ৫৮৫ জন রোগী শনাক্ত হয়।

সর্বশেষ তথ্য অনুসারে দেশে নভেল করোনা ভাইরাসে (কোভিড-১৯) মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে পাঁচ লাখ ৫১ হাজার ১৭৫ জনে।

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে মোট ১৬ হাজার ৯৫৮টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। আর পরীক্ষাকৃত এসব নমুনার ৪ দশ‌মিক ৯৮ শতাংশের মধ্যে করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া গেছে।

গতকাল দেশে ১৪ হাজার ৯২টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত দেশে মোট ৪১ লাখ ৬৩ হাজার ১৬৩টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। আর মোট পরীক্ষার ১৩ দশমিক ২৩ শতাংশ পজিটিভ।

আজ সোমবার (০৮ মার্চ) বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।


একনজরে দেশের করোনার চিত্র

নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন: ৮৪৫ জন

মোট আক্রান্তের সংখ্যা: ৫৫১১৭৫ জন

২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে: ১৪ জনের

মোট মৃত্যু হয়েছে: ৮৪৭৬ জনের

২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন: ১১১৭ জন

মোট সুস্থ হয়েছেন: ৫০৪১২৭ জন


গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ১৪ জন মারা গেছেন। গত বছরের ৩০ জুন দেশে সর্বোচ্চ ৬৪ জনের মৃত্যু হয়েছিল। এরপর ২৬ জুলাই ও ২৬ আগস্ট দেশে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৫৪ জনের মৃত্যু হয়। এর আগে গত ১৬ জুন করোনায় মারা যান ৫৩ জন।

গত সাত দিনে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন যথাক্রমে ১১, ১০, ৬, ৭, ৫, ৭ ও ৮ জন।

সর্বশেষ তথ্য অনুসারে দেশে করোনায় মোট মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে আট হাজার ৪৭৬ জনে। মোট শনাক্তকৃত রোগীর বিপরীতে মৃত্যুর হার ১ দশমিক ৫৩ শতাংশ।

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে আরও এক হাজার ১১৭ জন সুস্থ হয়েছেন বলে জানানো হয়েছে। দেশে এখন পর্যন্ত করোনা থেকে মোট সুস্থ হয়েছেন পাঁচ লাখ ৪ হাজার ১২৭ জন। মোট শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৯১ দশমিক শূন্য ৪৬ শতাংশ।

অর্থসূচক/কেএসআর