ওয়েলিংটনে ভাগ্য বদলাল অস্ট্রেলিয়ার

সিরিজ বাঁচাতে অস্ট্রেলিয়ার সামনে জয়ের বিকল্প ছিল না। টানা দুই পরাজয়ে সমালোচনাও হচ্ছিল তীব্র। কিন্তু ওয়েলিংটনে ভাগ্য বদলাল অস্ট্রেলিয়ার। অ্যাস্টন অ্যাগারের ঘূর্ণিতে পাঁচ ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজের তৃতীয়টিতে ৬৪ রানের বড় জয় পেয়েছে অ্যারন ফিঞ্চের দল। ৩০ রান দিয়ে ৬ উইকেট নিয়েছেন অ্যাগার।

অস্ট্রেলিয়ার ছুঁড়ে দেয়া ২০৯ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে শুরুতেই মারকুটে ভূমিকায় অবতীর্ণ হন ওপেনার মার্টিন গাপটিল। ডানহাতি এই ব্যাটসম্যানের চার-ছয়ে ২০৮ রানের পুঁজিও কম লাগছিল অজিদের কাছে। তবে সফরকারীদের ম্যাচে ফেরান অভিষিক্ত রিলে মেরিদিথ।

বিগ ব্যাশ মাতিয়ে আসা এই পেসার নিজের এক স্পেলে ফেরান উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান টিম সেইফার্ট এবং অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসনকে। টপ অর্ডারের দুই ব্যাটসম্যানকে হারানোর পরেও ইনিংস মেরামতের কাজটা করে যাচ্ছিলেন গাপটিল। সঙ্গী ছিলেন ডেভন কনওয়ে। তবে ২৮ বলে ৪৩ রান করা গাপটিলকে সাজঘরে ফেরান স্পিনার এডাম জাম্পা। এরপর কনওয়ে কিছুটা লড়াইয়ে আভাস দিলেও তা ফলপ্রসূ হয়নি। আউট হওয়ার আগে ২৭ বলে ৩৮ রান করেন কনওয়ে। ইনিংসের ১৩ তম ওভার এবং নিজের ব্যক্তিগত দ্বিতীয় ওভারে প্রথম আঘাত হানেন অ্যাগার।

এই ওভারে বোলিংয়ে এসে দুই রানের বিনিময়ে তুলে নেন কিউইদের তিন উইকেট। একে একে ফেরান গ্লেন ফিলিপস, কনওয়ে এবং নিশামকে। মূলত এই ওভারেই ম্যাচ থেকে ছিটকে যায় নিউজিল্যান্ড। এরপর শুধুই কিউইদের হতাশার আসা-যাওয়া। মার্ক চ্যাপম্যানের ১৪ এবং কাইল জেমিসনের ১১ রান বাদে আর কেউ দুই সংখ্যাতেই পৌঁছাতে পারেননি। অ্যাগারের ৬ উইকেট বাদে ২ উইকেট নিয়েছেন মেরিডিথ। একটি করে উইকেট পেয়েছেন জাম্পা এবং কেন রিচার্ডসন।

এর আগে টসে হেরে ব্যাট করতে নেমে ইনিংসে দ্বিতীয় ওভারেই প্রথম ধাক্কা খায় অস্ট্রেলিয়া। ইনিংসের শুরুতেই উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান ম্যাথু ওয়েডকে ফেরান ট্রেন্ট বোল্ট। এরপর জস ফিলিপকে নিয়ে দলীয় ইনিংস গড়ার দায়িত্ব কাঁধে তুলে নেন অধিনায়ক ফিঞ্চ। এই দুজনের ৮৩ রানের জুটিতে বড় সংগ্রহের আভাস পায় সফরকারী দল। ফিলিপ ৪৩ রান করে প্যাভিলিয়নে ফিরলেও বাজে সময় কাটাতে থাকা ফিঞ্চ ঠিকই অর্ধশতক তুলে নেন। আউট হওয়ার আগে খেলেন ৪৪ বলে ৬৯ রানের ইনিংস। এই দুজনকেই ফেরান ইশ সোধি।

এরপর কিউই বোলারদের উপর তাণ্ডব চালান গ্লেন ম্যাক্সওয়েল। তাঁর খেলা ৩১ বলে ৭০ রানের ঝড়ো ইনিংসে নির্ধারিত ওভার শেষে ৪ উইকেট হারিয়ে স্কোরবোর্ডে ২০৮ রান তোলে অজিরা।

স্বাগতিকদের হয়ে এদিন বল হাতে দুই উইকেট নেন সোধি। এছাড়া একটি করে উইকেট পেয়েছেন বোল্ট এবং টিম সাউদি। তবে ভুগতে হয়েছে জেমি নিশামকে। এই অলরাউন্ডারের করা চার ওভারে ৬০ রান তুলে নেয় ফিঞ্চের দল।

 

অর্থসূচক/এএইচআর