বিভিন্ন পৌরসভায় বিএনপি ও স্বতন্ত্র প্রার্থীদের ভোট বর্জন

বিচ্ছিন্ন সহিংসতা, অনিয়ম এবং ভোট কেন্দ্র দখলের অভিযোগে টাঙ্গাইলের মধুপুর, বরিশালের গৌরনদী, বগুড়ার শিবগঞ্জ, ঝালকাঠির নলছিটি ও সাতক্ষীরার কলারোয়া পৌরসভায় বিএনপি প্রার্থী ভোট বর্জন করেছেন। এছাড়াও নলছিটি পৌরসভায় আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী এবং সাতক্ষীরার কলারোয়ায় বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থীর ভোট বর্জন করেছেন। তৃতীয় দফায় এই পৌরসভাগুলোতে অনুষ্ঠিত ভোটে ব্যাপক অনিয়ম ও কেন্দ্র দখলের অভিযোগ তুলেছেন এসব প্রার্থী।

মধুপুরে বিএনপি প্রার্থীর ভোট বর্জন

টাঙ্গাইলের মধুপুর পৌরসভা নির্বাচনে অনিয়মের অভিযোগে এনে ভোট বর্জন করে পুনরায় নির্বাচনের দাবি জানিয়েছেন বিএনপি মনোনীত প্রার্থী আব্দুল লতিফ পান্না। শনিবার (৩০ জানুয়ারি) দুপুরে উপজেলা রিটার্নিং অফিসারের কাছে লিখিত আবেদন করে এ দাবি জানান।

বিএনপির প্রার্থী আব্দুল লতিফ পান্না বলেন, আমার এজেন্টদের জোর করে কেন্দ্র থেকে নৌকার সমর্থকরা বের করে দেয়। ভোটারদের কাছ থেকে ব্যালট ছিনিয়ে নিয়ে প্রকাশ্যে নৌকায় সিল দেওয়া হয়। বিষয়টি নিয়ে প্রশাসনের কেউ কর্ণপাত করেনি। পরে নির্বাচন কর্মকর্তার কাছে লিখিত আবেদন করে নির্বাচন বর্জন ও প্রার্থিতা প্রত্যাহার করেছি।’ এছাড়াও পুনরায় নির্বাচনের দাবি জানান তিনি।

গৌরনদীতে বিএনপি প্রার্থীর ভোট বর্জন

ভোটে অনিয়ম এবং আওয়ামী লীগ প্রার্থীর সমর্থকদের ভোট কক্ষে প্রভাব বিস্তারের অভিযোগ এনে ভোট বর্জন করেছেন বরিশালের গৌরনদী পৌরসভা নির্বাচনে বিএনপি প্রার্থী জহির সাজ্জাদ হান্নান।

শনিবার দুপুর আড়াইটায় গৌরনদী বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন নিজ বাস ভবনে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে ভোট বর্জন করেন তিনি। এ সময় তিনি আরও বলেন, ভোট কেন্দ্রে ভোটারদের জোর করে নৌকায় ভোট দেওয়ার জন্য বাধ্য করা হচ্ছে। প্রভাব বিস্তার করা হচ্ছে কেন্দ্র থেকে কক্ষ পর্যন্ত।

তার দাবি, নির্বাচন কর্মকর্তাসহ আইনশৃঙ্খলাবাহিনীকে বলেও কোনেও লাভ হয়নি। তাদের সামনে বসে অনিয়ম হলেও তারা ব্যবস্থা নেয়নি। ভোটে কারচুপি হচ্ছে, আর এর সাথে সরকারের লোকজনই জড়িত বলে দাবি করেন বিএনপি প্রার্থী সাজ্জাদ।

তবে এসব অভিযোগ অস্বীকার করে জেলা প্রশাসক জসিম উদ্দিন হায়দার বলেন, নিশ্চিত পরাজয় যেনো প্রোপাগান্ডা ছড়ানো হচ্ছে। যদি কোনও অভিযোগ পাওয়া যায় তাহলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

শিবগঞ্জে বিএনপির মেয়র প্রার্থীর নির্বাচন বর্জন

বগুড়ায় তৃতীয় ধাপে শনিবার পাঁচটি পৌরসভায় ভোট গ্রহণ চলছে। ধুনট, নন্দীগ্রাম, কাহালু ও শিবগঞ্জ পৌরসভায় অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া গেছে। তবে শিবগঞ্জ পৌরসভায় কেন্দ্র থেকে এজেন্টদের বের করে দেওয়া ও বুথ দখল করে জাল ভোট দেওয়ার অভিযোগে বিএনপির মেয়র প্রার্থী মতিয়ার রহমান মতিন নির্বাচন বর্জন করেছেন।

তিনি সংবাদ সম্মেলন করে অভিযোগ করেন, ভোট শুরুর পর থেকে আওয়ামী লীগ প্রার্থী তৌহিদুর রহমান মানিকের লোকজন কেন্দ্রগুলোতে অবস্থান নেন। তারা সকাল ৯টার পর ১১টি কেন্দ্রের মধ্যে ৯টি থেকে তার এজেন্টদের বের করে দেয়। এরপর ইচ্ছামতো জাল ভোট দেয়। ৬টি কেন্দ্রে বেলা ১১টার পর ব্যালট পাওয়া যায়নি। এ ব্যাপারে স্থানীয় নির্বাচন সংশ্লিষ্টদের কাছে অভিযোগ করে কোনও প্রতিকার পাওয়া যায়নি। তাই তিনি মেয়র পদে নির্বাচন বর্জন করলেন।

তবে বিএনপি প্রার্থীর অভিযোগ অস্বীকার করে আওয়ামী লীগ প্রার্থী বর্তমান মেয়র তৌহিদুর রহমান মানিক বলেন, পরাজয় নিশ্চিত জেনে বিএনপি প্রার্থী ও তার লোকজন মিথ্যাচার করছেন।

নলছিটিতে বিএনপি ও আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী প্রার্থীর ভোট বর্জন

ঝালকাঠির নলছিটি পৌরসভা নির্বাচ‌নে ভোট কেন্দ্রে এজেন্ট‌দের ঢুকতে  না দেওয়া, নৌকায় প্রকাশ্যে সিল দিতে ভোটারদের বাধ্য করাসহ বি‌ভিন্ন অনিয়ম-দুর্নী‌তির অভিযো‌গে নির্বাচন বর্জ‌নের ঘোষণা দি‌য়ে‌ছেন বিএন‌পি ম‌নোনীত ধানের শীষ প্রতিকের প্রার্থী মজিবুর রহমান ও স্বতন্ত্র (আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী) মুঠোফোন প্রতীকের প্রার্থী সাবেক মেয়র মাসুদ খান।

শ‌নিবার দুপুর ১২টার দি‌কে শহরের শহীদ মিনার চত্বরে সংবাদ স‌ম্মেল‌নে নির্বাচন বর্জ‌নের ঘোষণা দেন বিএনপির মজিবুর রহমান। সাড়ে ১২টার দিকে মুঠোফোনে নির্বাচন বর্জনের তথ্য নিশ্চিত করেন স্বতন্ত্র (আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী) মুঠোফোন প্রার্থী সাবেক মেয়র মাসুদ খান ।

তারা অভিযোগ ক‌রে বলেন, সকা‌লে ভোট শুরুর আগ থেকেই এজেন্টদের ভোট কেন্দ্রে প্রবেশ করতে না দেওয়া, শুরুর কিছুক্ষণ পর থে‌কেই  ক্ষমতাসীন দ‌লের প্রার্থীর সমর্থকরা বি‌ভিন্ন ভোট‌কে‌ন্দ্রে অন্য  প্রার্থীর এজেন্টদের বের ক‌রে দি‌য়ে শুধু নৌকা মার্কায় ভোট দি‌চ্ছে। ভোটাররা কে‌ন্দ্রে গি‌য়েও ভোট দি‌তে পারেনি।  অনেক কে‌ন্দ্রে বিএন‌পি  ও স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থক‌দের লাঞ্ছিত করা হ‌য়। নির্বাচন ক‌মিশন ও প্রশাস‌নের কা‌ছে অভিযোগ ক‌রেও কোনও প্র‌তিকার মেলেনি। এ অবস্থায় তারা ভোট বর্জ‌ন করে নতুন করে নির্বাচন দেওয়ার দাবি জানান।

কলারোয়ায় বিএনপি ও বিএনপি বিদ্রোহী প্রার্থীর ভোট বর্জন

সাতক্ষীরার কলারোয়ায় নির্বাচনে ভোটে কারচুপির অভিযোগ বিএনপি ও বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থীর ভোট বর্জনের ঘোষণা দিয়েছে। শনিবার সকাল সাড়ে ১১ বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী নার্গিস সুলতানা নিজ বাড়িতে এবং বেলা ১২ টায়  বিএনপির প্রার্থী শেখ শরিফুজ্জামান তুহিন নির্বাচনি কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে এ বর্জনের ঘোষণা দেন।বিএনপির প্রার্থী শেখ শরিফুজ্জামান তুহিন অভিযোগ করেন, তিনি ৩ ও ৮ নং কেন্দ্র প্রবেশ করতে গেলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তাকে বাধা দেয়। এমনকি অজ্ঞাতরাও তাকে লাঞ্ছিত করেছে।

তিনি ভোট কারচুপির ব্যাপক অভিযোগ তুলে বলেন, কোনও কেন্দ্রের তার এজেন্টদের প্রবেশ করতে দেওয়া হয়নি। সে কারণে তিনি ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন।

বিএনপির অপর বিদ্রোহী প্রার্থী নারগিছ সুলতানা ভোটে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ তুলে বলেন, কোনও কেন্দ্রের তার এজেন্ট প্রবেশ করতে পারেনি। ফলে ভোট কারচুপির অভিযোগে সাড়ে ১১টার দিকে তিনিও নিজ বাসভবনে ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন।

তবে সাধারণ ভোটারদের ব্যাপক উৎসাহ নিয়ে ভোট দিতে দেখা গেছে।

জেলা নির্বাচন ও রিটার্নিং কর্মকর্তা নাজমুল কবীর জানান, তার কাছে ভোটে অনিয়মের তেমন কোনও গুরুতর অভিযোগ আসেনি। কোনও প্রার্থী তার কাছে লিখিতভাবে জানায়নি।

অর্থসূচক/এমএস

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
মন্তব্য
Loading...