নাভালনির বাড়ি-অফিসে তল্লাশি, অবস্থানে অনড় পুতিন

0
164

গোটা বিশ্বে যতই প্রতিবাদ হোক। নাভালনির নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে ইউরোপ-আমেরিকা যতই চাপ তৈরি করুক রাশিয়া প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন নিজের অবস্থানে অনড়। এবার তা আরো একবার স্পষ্ট হয়ে গেল। কারণ রাশিয়ায় নাভালনির যতগুলো বাড়ি আছে এবং তাঁর প্রতিটি অফিস এবং স্টুডিওয় তল্লাশি চালিয়েছে দেশটির পুলিশ। বিশেষজ্ঞদের বক্তব্য, সম্পূর্ণ বেআইনিভাবে একাজ করেছে পুলিশ।

কারণ আগাম বার্তা না দিয়েই নাভালনির একাধিক বাড়ি এবং তাঁর আত্মীয়দের বাড়িতে তল্লাশি অভিযান চালায় দেশটির পুলিশ। একটি বাড়িতে নাভালনির ভাই ছিলেন। অন্যটিতে ছিলেন তাঁর স্ত্রী। প্রত্যক্ষদর্শীদের বক্তব্য, লাথি মেরে দরজা ভেঙে বাড়ির ভিতরে ঢুকেছে পুলিশ। নাভালনির স্ত্রী উইলিয়া তাঁর আইনজীবীকে ফোন করে ঘটনাস্থলে ডেকে নিয়েছিলেন।

তাঁর আইনজীবী জানিয়েছেন, পুলিশ তাঁকে ভিতরে ঢুকতে দেয়নি। রাশিয়ার আইন অনুযায়ী যা সম্পূর্ণ বেআইনি। নাভালনির ভাই ওলেগও একই অভিযোগ করেছেন।

এদিন নাভালনির বাড়ির পাশাপাশি তাঁর একাধিক অফিসে তল্লাশি চালায় পুলিশ। দুর্নীতির বিরুদ্ধে মূলত কাজ করে তাঁর অফিস। রাশিয়ার প্রভাবশালী ব্যক্তিদের দুর্নীতি নিয়ে একাধিক রিপোর্ট তৈরি করেছে নাভালনির দপ্তর। সম্প্রতি তারা প্রেসিডেন্ট পুতিনের একটি প্রাসাদের সন্ধান দিয়েছেন। কৃষ্ণসাগরের ধারের ওই প্রাসাদ দুর্নীতির টাকায় কেনা বলে রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়। পুতিন কিংবা তাঁর প্রশাসন অবশ্য সে বিষয়ে কোনো মন্তব্য করেনি। বিষয়টি নিয়ে রাশিয়ায় প্রতিক্রিয়া তৈরি হয়েছে। এদিন নাভালনির সেই প্রতিটি অফিসেই তল্লাশি চালানো হয়। প্রত্যক্ষদর্শীদের বক্তব্য বহু নথি বাজেয়াপ্ত করে নিয়ে গেছে পুলিশ। তবে কাউকে গ্রেফতার করা হয়েছে কি না, তা স্পষ্ট নয়।

গত সপ্তাহে নাভালনির গ্রেপ্তারের প্রতিবাদে হাজার হাজার মানুষ রাস্তায় নেমেছিলেন। রাশিয়ার প্রায় ১০০টি অঞ্চলে বিক্ষোভ দেখানো হয়। সব মিলিয়ে পুলিশ চার হাজারেরও বেশি প্রতিবাদকারীকে গ্রেফতার করে। তাতেও প্রতিবাদ থামেনি। মস্কোয় প্রায় প্রতিদিনই বিক্ষোভ সমাবেশ হচ্ছে। তারই মধ্যে পুলিশের এই কাজে উত্তাপ আরো বাড়বে বলেই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

এদিকে জার্মান শুরু থেকেই নাভালনির নিঃশর্ত মুক্তির দাবি করছে। জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল জানিয়েছেন, নাভালনিকে মুক্তি না দিলে রাশিয়ার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞার রাস্তায় হাঁটবে জার্মানি বলেও হুমকি দেন। এচাড়া মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনও রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট পুতিনকে এ বিষয়ে সতর্ক করেছেন। কিন্তু রাশিয়া এখনো পর্যন্ত অবস্থান বদল করেনি। সূত্র: রয়টার্স, এপি

 

 

অর্থসূচক/এএইচআর